আয়কর আইন বাংলায় হচ্ছে
jugantor
আয়কর আইন বাংলায় হচ্ছে

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪৩:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

আয়কর আইন বাংলায় প্রণয়ন করা হচ্ছে। করদাতাদের সুবিধার জন্য শিগগিরই এ বাংলায় এই আইন প্রণয়ন করা হবে বলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (করনীতি) মো. আলমগীর হোসেন জানিয়েছেন।

শনিবার রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) কার্যালয়ে ডিজিট্যাক্স অ্যাপ উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা জানান।
তিনি বলেন, শিগগিরই আয়কর আইন বাংলায় প্রণয়ন করা হচ্ছে। সব ঠিক থাকলে আগামী মাসেই জনগণের মতামতের জন্য আইনটির খসড়া প্রকাশ করা হবে।

তিনি আরও বলেন, হার কমানো এবং প্রক্রিয়া সহজ না হলে করের আওতা বাড়বে না। গত কয়েক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে করের হার কমানো হচ্ছে। কর প্রদান প্রক্রিয়া সহজ করা হচ্ছে, যার ইতিবাচক ফল আমরা পেয়েছি। ইতোমধ্যে ৬১ লাখ ব্যক্তি ই-টিআইএন নিবন্ধন নিয়েছেন।

মো. আলমগীর হোসেন বলেন, বিপুল সংখ্যক করদাতাকে প্রচলিত পদ্ধতিতে করসেবা দেওয়া সম্ভব নয়। করদাতাকে সেবা দিতে সব কিছু অনলাইনে করা ও রিটার্ন দাখিল স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে করার বিকল্প নেই। এনবিআর অনেক আগেই এ উদ্যোগ নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

অনলাইনের মাধ্যমে পেমেন্ট সিস্টেম চালু করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা অনলাইনের মাধ্যমে রিটার্ন ফরম পূরণ, দাখিল ও পেমেন্ট সিস্টেম চালু করছি। বেসরকারিভাবে ডিজিট্যাক্স এগিয়ে আসায় কর সেবাকে ডিজিটাল করার উদ্যোগ আরও সহজ হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দ্য ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশের (আইসিএবি) প্রেসিডেন্ট মাহমুদুল হাসান খসরু, ঢাকা ট্যাক্সেস বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি একে এম আজিজুর রহমান, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন, ডিজিট্যাক্সের পরিচালক গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জু ও ইআরএফ সেক্রেটারি এসএম রাশিদুল ইসলাম প্রমুখ।

আয়কর আইন বাংলায় হচ্ছে

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আয়কর আইন বাংলায় প্রণয়ন করা হচ্ছে। করদাতাদের সুবিধার জন্য শিগগিরই এ বাংলায় এই আইন প্রণয়ন করা হবে বলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (করনীতি) মো. আলমগীর হোসেন জানিয়েছেন। 

শনিবার রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) কার্যালয়ে ডিজিট্যাক্স অ্যাপ উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা জানান।  
তিনি বলেন, শিগগিরই আয়কর আইন বাংলায় প্রণয়ন করা হচ্ছে। সব ঠিক থাকলে আগামী মাসেই জনগণের মতামতের জন্য আইনটির খসড়া প্রকাশ করা হবে।
 
তিনি আরও বলেন, হার কমানো এবং প্রক্রিয়া সহজ না হলে করের আওতা বাড়বে না। গত কয়েক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে করের হার কমানো হচ্ছে। কর প্রদান প্রক্রিয়া সহজ করা হচ্ছে, যার ইতিবাচক ফল আমরা পেয়েছি। ইতোমধ্যে ৬১ লাখ ব্যক্তি ই-টিআইএন নিবন্ধন নিয়েছেন।

মো. আলমগীর হোসেন বলেন, বিপুল সংখ্যক করদাতাকে প্রচলিত পদ্ধতিতে করসেবা দেওয়া সম্ভব নয়। করদাতাকে সেবা দিতে সব কিছু অনলাইনে করা ও রিটার্ন দাখিল স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে করার বিকল্প নেই। এনবিআর অনেক আগেই এ উদ্যোগ নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

অনলাইনের মাধ্যমে পেমেন্ট সিস্টেম চালু করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা অনলাইনের মাধ্যমে রিটার্ন ফরম পূরণ, দাখিল ও পেমেন্ট সিস্টেম চালু করছি। বেসরকারিভাবে ডিজিট্যাক্স এগিয়ে আসায় কর সেবাকে ডিজিটাল করার উদ্যোগ আরও সহজ হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দ্য ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশের (আইসিএবি) প্রেসিডেন্ট মাহমুদুল হাসান খসরু, ঢাকা ট্যাক্সেস বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি একে এম আজিজুর রহমান, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন, ডিজিট্যাক্সের পরিচালক গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জু ও ইআরএফ সেক্রেটারি এসএম রাশিদুল ইসলাম প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন