রপ্তানি আয় বাড়ছে, অক্টোবরে রেকর্ড
jugantor
রপ্তানি আয় বাড়ছে, অক্টোবরে রেকর্ড

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০২ নভেম্বর ২০২১, ১৯:৩৭:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

রপ্তানি আয় বাড়ছে, অক্টোবরে রেকর্ড

করোনা পরিস্থিতির ভাটা কাটিয়ে রপ্তানি আয় বাড়তে শুরু করেছে। পাশাপাশি প্রবৃদ্ধিও হচ্ছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় বেড়েছে ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ। পাশাপাশি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২২ দশমিক ৬২ শতাংশ।

এদিকে একক মাস হিসেবে অক্টোবরে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সঙ্গে প্রবৃদ্ধিও হয়েছে। অক্টোবর মাসে ৪৭২ কোটি ৭০ লাখ ৫০ হাজার ডলার সমমূল্যের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এক মাসে এত বেশি রপ্তানি আয় আর কখনও দেশে আসেনি, যা একক মাসে রেকর্ড আয়।

মঙ্গলবার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

ইপিবির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরের জুলাই-অক্টোবর মাসে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ হাজার ৩৮৯ কেটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে ১ হাজার ৫৭৪ কোটি ৯৪ লাখ ডলার। এ ছাড়া গত বছরের একই সময় আয় হয়েছে ১ হাজার ২৮৪ কোটি ৪৬ লাখ ডলার। সেক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২২ দশমিক ৬২ শতাংশ।

এদিকে একক মাস অক্টোবর মাসে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সঙ্গে প্রবৃদ্ধিও হয়েছে। এ মাসে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৪৬ কোটি ৪০ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৪৭২ কোটি ৭৫ লাখ ডলার। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় বেড়েছে ৩৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ। এ ছাড়া গত বছর একই সময় আয় হয়েছে ২৯৪ কোটি ৭৮ লাখ ডলার। সেক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬০ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

ইপিবি সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরের জুলাই মাসে তৈরি পোশাক খাতে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ হাজার ১২২ কোটি ৭৫ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ১ হাজার ২৬২ কোটি ১১ লাখ ডলার। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় ১২ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়েছে। এ ছাড়া গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২০ দশমিক শূন্য ৭৮ শতাংশ। পাশাপাশি হিমায়িত খাদ্য খাতে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৬ কোটি ২২ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ২২ কোটি ৫২ লাখ ডলার। আয় বেড়েছে ৩৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ। এ ছাড়া গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ১৭ দশমিক ৪৬ শতাংশ।

কৃষিপণ্য রপ্তানিতে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৫ কোটি ৪৩ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৪৬ কোটি ৪১ লাখ ডলার। আয় বেড়েছে ৩০ দশমিক ৯৭ শতাংশ। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ২৯ দশমিক ৩৪ শতাংশ।

এ ছাড়া উৎপাদিত পণ্য খাতে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ হাজার ৩৩৮ কোটি ৩ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ১ হাজার ৫০৬ কোটি ১ লাখ ডলার। সেক্ষেত্রে আয় বেড়েছে ১২ দশমিক শূন্য ৫৫ শতাংশ। গত বছর একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ২২ দশমিক ৫ শতাংশ।

আলোচ্য সময়ে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়েছে। এ সময় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ৩২ কোটি ৯৩ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৩৬ কোটি ৪৯ লাখ ডলার। আয় বেশি হয়েছে ১০ দশমিক ৭৯ শতাংশ। প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ২৮ দশমিক ৮৫ শতাংশ।

পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়নি। এ সময় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৪৫ কোটি ৩৬ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৩৩ কোটি ২৯ লাখ ডলার। এ খাতে আয় কম হয়েছে ২৬ দশমিক ৬ শতাংশ। পাশাপাশি গত বছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধি কমেছে ২৪ দশমিক ১১ শতাংশ।

রপ্তানি আয় বাড়ছে, অক্টোবরে রেকর্ড

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০২ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রপ্তানি আয় বাড়ছে, অক্টোবরে রেকর্ড
ফাইল ছবি

করোনা পরিস্থিতির ভাটা কাটিয়ে রপ্তানি আয় বাড়তে শুরু করেছে। পাশাপাশি প্রবৃদ্ধিও হচ্ছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় বেড়েছে ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ। পাশাপাশি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২২ দশমিক ৬২ শতাংশ। 

এদিকে একক মাস হিসেবে অক্টোবরে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সঙ্গে প্রবৃদ্ধিও হয়েছে।  অক্টোবর মাসে ৪৭২ কোটি ৭০ লাখ ৫০ হাজার ডলার সমমূল্যের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এক মাসে এত বেশি রপ্তানি আয় আর কখনও দেশে আসেনি, যা একক মাসে রেকর্ড আয়।

মঙ্গলবার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

ইপিবির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরের জুলাই-অক্টোবর মাসে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ হাজার ৩৮৯ কেটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে ১ হাজার ৫৭৪ কোটি ৯৪ লাখ ডলার। এ ছাড়া গত বছরের একই সময় আয় হয়েছে ১ হাজার ২৮৪ কোটি ৪৬ লাখ ডলার। সেক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২২ দশমিক ৬২ শতাংশ। 

এদিকে একক মাস অক্টোবর মাসে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সঙ্গে প্রবৃদ্ধিও হয়েছে। এ মাসে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৪৬ কোটি ৪০ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৪৭২ কোটি ৭৫ লাখ ডলার। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় বেড়েছে ৩৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ। এ ছাড়া গত বছর একই সময় আয় হয়েছে ২৯৪ কোটি ৭৮ লাখ ডলার। সেক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬০ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

ইপিবি সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরের জুলাই মাসে তৈরি পোশাক খাতে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ হাজার ১২২ কোটি ৭৫ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ১ হাজার ২৬২ কোটি ১১ লাখ ডলার। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় ১২ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়েছে। এ ছাড়া গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২০ দশমিক শূন্য ৭৮ শতাংশ। পাশাপাশি হিমায়িত খাদ্য খাতে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৬ কোটি ২২ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ২২ কোটি ৫২ লাখ ডলার। আয় বেড়েছে ৩৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ। এ ছাড়া গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ১৭ দশমিক ৪৬ শতাংশ। 

কৃষিপণ্য রপ্তানিতে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৫ কোটি ৪৩ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৪৬ কোটি ৪১ লাখ ডলার। আয় বেড়েছে ৩০ দশমিক ৯৭ শতাংশ। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ২৯ দশমিক ৩৪ শতাংশ। 

এ ছাড়া উৎপাদিত পণ্য খাতে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১ হাজার ৩৩৮ কোটি ৩ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ১ হাজার ৫০৬ কোটি ১ লাখ ডলার। সেক্ষেত্রে আয় বেড়েছে ১২ দশমিক শূন্য ৫৫ শতাংশ। গত বছর একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ২২ দশমিক ৫ শতাংশ।

আলোচ্য সময়ে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়েছে। এ সময় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ৩২ কোটি ৯৩ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৩৬ কোটি ৪৯ লাখ ডলার। আয় বেশি হয়েছে ১০ দশমিক ৭৯ শতাংশ। প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ২৮ দশমিক ৮৫ শতাংশ। 

পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়নি। এ সময় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৪৫ কোটি ৩৬ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৩৩ কোটি ২৯ লাখ ডলার। এ খাতে আয় কম হয়েছে ২৬ দশমিক ৬ শতাংশ। পাশাপাশি গত বছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধি কমেছে ২৪ দশমিক ১১ শতাংশ। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন