টাকার মান ধরে রাখার চেষ্টা থেকে সরে দাঁড়াল বাংলাদেশ ব্যাংক
jugantor
টাকার মান ধরে রাখার চেষ্টা থেকে সরে দাঁড়াল বাংলাদেশ ব্যাংক

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০২ জুন ২০২২, ১৬:৪৩:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করেও দরে লাগাম টানা যাচ্ছে না। মুদ্রাবাজার স্বাভাবিক রাখতে ডলার বিক্রি করছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রায় ১০ মাসে (২০২১ সালের ১ জুলাই থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত) ৪ দশমিক ৬০ বিলিয়ন ডলার (৪৬০ কোটি টাকা) বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু আশানুরূপ কোনো ফল আসছে না। ডলারের বিপরীতে টাকার দাম কমেই যাচ্ছে।

এ অবস্থায় ডলারের বিপরীতে টাকার মান ধরে রাখার চেষ্টা থেকে সরে দাঁড়াল বাংলাদেশ ব্যাংক। সর্বশেষ কেন্দ্রীয় ব্যাংক গত ২৯ মে আন্তঃব্যাংক লেনদেনে ডলারের বিনিময় হার ৮৯ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছিল, আজ (বৃহস্পতিবার) তা তুলে নিয়েছে। ফলে আজ থেকে বাজারই উন্মুক্ত অর্থনীতির নিয়মে মুদ্রা বিনিময় হার ঠিক করবে।ব্যাংকগুলো যে কোনো দরে ডলার বিক্রি করতে পারবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘ওপেন মার্কেট অনুযায়ী ডলারের দাম ঠিক হবে। এটা না করলে রেমিটেন্স কমে যাবে বলে ব্যাংকাররা জানিয়েছেন।’তবে বিষয়টি বাজারের ওপর ছেড়ে দিলেও বাংলাদেশ ব্যাংক সব সময় মনিটরিং করবে বলে জানান তিনি।

শুধু আন্তঃব্যাংক লেনদেনেই ২০২১ সালের এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন হয়েছে ৩ শতাংশের বেশি। গত বছরের এপ্রিলে ডলারের বিনিময় হার ছিল ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা। জুনে তা এক পয়সা বাড়লেও আগস্ট থেকে টাকার মান দ্রুত কমতে থাকে।আন্তঃব্যাংক লেনদেনে ডলারের দর ৯০ টাকার নিচে থাকলেও মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে খোলা বাজারে ডলারের দাম ১০০ টাকা ছাড়িয়ে রেকর্ড গড়েছে।

এদিকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের ডলার বাঁচাতে বিলাসবহুল পণ্য আমদানিতে নিরুৎসাহিত করার পাশাপাশি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রতা সাধনের দিকে কঠোর মনোযোগ দিয়েছে সরকার। অতি জরুরি প্রকল্প ছাড়া অন্য ক্ষেত্রে অর্থায়নে সতর্কতা অবলম্বনের পাশাপাশি বিশেষ কারণ ছাড়া কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ আপাতত বন্ধ করা হয়েছে।

টাকার মান ধরে রাখার চেষ্টা থেকে সরে দাঁড়াল বাংলাদেশ ব্যাংক

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০২ জুন ২০২২, ০৪:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করেও দরে লাগাম টানা যাচ্ছে না। মুদ্রাবাজার স্বাভাবিক রাখতে ডলার বিক্রি করছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রায় ১০ মাসে (২০২১ সালের ১ জুলাই থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত) ৪ দশমিক ৬০ বিলিয়ন ডলার (৪৬০ কোটি টাকা) বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু আশানুরূপ কোনো ফল আসছে না। ডলারের বিপরীতে টাকার দাম কমেই যাচ্ছে।

এ অবস্থায় ডলারের বিপরীতে টাকার মান ধরে রাখার চেষ্টা থেকে সরে দাঁড়াল বাংলাদেশ ব্যাংক। সর্বশেষ কেন্দ্রীয় ব্যাংক গত ২৯ মে আন্তঃব্যাংক লেনদেনে ডলারের বিনিময় হার ৮৯ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছিল, আজ (বৃহস্পতিবার) তা তুলে নিয়েছে। ফলে আজ থেকে বাজারই উন্মুক্ত অর্থনীতির নিয়মে মুদ্রা বিনিময় হার ঠিক করবে।ব্যাংকগুলো যে কোনো দরে ডলার বিক্রি করতে পারবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘ওপেন মার্কেট অনুযায়ী ডলারের দাম ঠিক হবে। এটা না করলে রেমিটেন্স কমে যাবে বলে ব্যাংকাররা জানিয়েছেন।’তবে বিষয়টি বাজারের ওপর ছেড়ে দিলেও বাংলাদেশ ব্যাংক সব সময় মনিটরিং করবে বলে জানান তিনি।

শুধু আন্তঃব্যাংক লেনদেনেই ২০২১ সালের এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন হয়েছে ৩ শতাংশের বেশি। গত বছরের এপ্রিলে ডলারের বিনিময় হার ছিল ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা। জুনে তা এক পয়সা বাড়লেও আগস্ট থেকে টাকার মান দ্রুত কমতে থাকে।আন্তঃব্যাংক লেনদেনে ডলারের দর ৯০ টাকার নিচে থাকলেও মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে খোলা বাজারে ডলারের দাম ১০০ টাকা ছাড়িয়ে রেকর্ড গড়েছে।

এদিকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের ডলার বাঁচাতে বিলাসবহুল পণ্য আমদানিতে নিরুৎসাহিত করার পাশাপাশি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রতা সাধনের দিকে কঠোর মনোযোগ দিয়েছে সরকার। অতি জরুরি প্রকল্প ছাড়া অন্য ক্ষেত্রে অর্থায়নে সতর্কতা অবলম্বনের পাশাপাশি বিশেষ কারণ ছাড়া কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ আপাতত বন্ধ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন