বিদ্যুৎকেন্দ্রকে যত খুশি ঋণ দেওয়ার সুযোগ দিয়ে নির্দেশনা জারি
jugantor
বিদ্যুৎকেন্দ্রকে যত খুশি ঋণ দেওয়ার সুযোগ দিয়ে নির্দেশনা জারি

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৬ জুলাই ২০২২, ২২:২৯:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোকে যে কোনো পরিমাণ ঋণ দেওয়ার সুযোগ দিয়ে নতুন নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফলে আগামী ৬ মাসের জন্য বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোকে যত খুশি তত ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক।

কোনো একক বা গ্রুপকে ব্যাংক তার নিজস্ব মূলধনের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দিতে পারে, সেই নিষেধাজ্ঞা ৬ মাসের জন্য তুলে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানির বাজারে অস্থিরতার কারণে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর খরচ বেড়েছে। তাই এই ঋণ সুবিধা দেওয়া হলো।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু ফরাহ মো. নাছের স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এই নিষেধাজ্ঞা বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য ৬ মাসের জন্য তুলে নেওয়া হয়েছে। এই নির্দেশনা সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘বিদ্যুৎ উৎপাদনে প্রয়োজনীয় অর্থ সরবরাহ নির্বিঘ্ন রাখার লক্ষ্যে ওই খাতে জ্বালানি তেলসহ অন্যান্য কাঁচামাল আমদানির জন্য এ সুযোগটি দেওয়া হলো। এজন্য ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ২৬খ(১) ধারার শর্তাংশে বর্ণিত নিষেধাজ্ঞা আগামী ৬ মাসের জন্য কার্যকর হইবে না।’

নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার পর এখন থেকে ‘কেস-টু-কেস’ অর্থাৎ প্রতি আবেদন বিবেচনা করে ঋণসীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

উল্লেখ্য, ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী- কোনো একক গ্রাহককে (কোম্পানি, ব্যক্তি ও গ্রুপ) ব্যাংকের মূলধনের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

বিদ্যুৎকেন্দ্রকে যত খুশি ঋণ দেওয়ার সুযোগ দিয়ে নির্দেশনা জারি

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৬ জুলাই ২০২২, ১০:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোকে যে কোনো পরিমাণ ঋণ দেওয়ার সুযোগ দিয়ে নতুন নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফলে আগামী ৬ মাসের জন্য বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোকে যত খুশি তত ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক।

কোনো একক বা গ্রুপকে ব্যাংক তার নিজস্ব মূলধনের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দিতে পারে, সেই নিষেধাজ্ঞা ৬ মাসের জন্য তুলে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানির বাজারে অস্থিরতার কারণে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর খরচ বেড়েছে। তাই এই ঋণ সুবিধা দেওয়া হলো।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু ফরাহ মো. নাছের স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এই নিষেধাজ্ঞা বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য ৬ মাসের জন্য তুলে নেওয়া হয়েছে। এই নির্দেশনা সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘বিদ্যুৎ উৎপাদনে প্রয়োজনীয় অর্থ সরবরাহ নির্বিঘ্ন রাখার লক্ষ্যে ওই খাতে জ্বালানি তেলসহ অন্যান্য কাঁচামাল আমদানির জন্য এ সুযোগটি দেওয়া হলো। এজন্য ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ২৬খ(১) ধারার শর্তাংশে বর্ণিত নিষেধাজ্ঞা আগামী ৬ মাসের জন্য কার্যকর হইবে না।’

নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার পর এখন থেকে ‘কেস-টু-কেস’ অর্থাৎ প্রতি আবেদন বিবেচনা করে ঋণসীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

উল্লেখ্য, ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী- কোনো একক গ্রাহককে (কোম্পানি, ব্যক্তি ও গ্রুপ) ব্যাংকের মূলধনের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন