যুক্তরাজ্যে জিএসপি সুবিধা নিয়ে শংকা কাটল বাংলাদেশের
jugantor
যুক্তরাজ্যে জিএসপি সুবিধা নিয়ে শংকা কাটল বাংলাদেশের

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৮:১২:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাজ্যে ২০২৭ সাল পর্যন্ত অগ্রাধিকার বাজার সুবিধা (জিএসপি) পাবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হলেও দুই ধাপে তিন বছর করে দেশটিতে বাংলাদেশের পণ্য এই জিএসপি সুবিধা পাবে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট ডিকসন।

বুধবার সকালে ব্রিটিশ হাইকমিশনার তার বাসায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান। গেল মঙ্গলবার দু'দেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত প্রথম বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্মেলন নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ব্রিটিশ হাইকমিশন।

ব্রিটিশ হাইকমিশনার সংবাদ সম্মেলনে বলেন, রপ্তানিভিত্তিক বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনীতিকে বিকশিত করার ক্ষেত্রে সহযোগিতার অংশ হিসেবে শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হলেও দুই ধাপে তিন বছর করে যুক্তরাজ্যের বাজারে জিএসপি সুবিধা পাবে। প্রথম ধাপে ২০২৪ সাল আর দ্বিতীয় ধাপে ২০২৭ সাল পর্যন্ত জিএসপি সুবিধা পাবে। অর্থাৎ আগামী ছয় বছর যুক্তরাজ্যের বাজারে বাংলাদেশ অগ্রাধিকারমূলক সুবিধা পেতে থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে রবার্ট ডিকসন তার দেশে ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের আরও আকৃষ্ট করতে বাংলাদেশে ব্যবসার পরিবেশের উন্নতির ওপর জোর দেন। গেল মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া দু'দেশের ওই বৈঠকে এ বিষয় আলোচনা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগে বেশ কিছু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। এর মধ্যে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমম্বয়হীনতা, পদ্ধতিগত অনিশ্চয়তা, চুক্তি বাস্তবায়নের শর্তাবলী ও দুর্নীতি দূর করার পাশাপাশি ট্যাক্সেশনে জটিলতা রয়েছে। এই বিষয়গুলোর সুরাহা হওয়া জরুরি। আর এসব বিষয় সুরাহার ক্ষেত্রে পূর্বশর্ত হচ্ছে রাজনৈতিক অঙ্গীকার বলে উল্লেখ করেন রবার্ট ডিকসন।

যুক্তরাজ্যে জিএসপি সুবিধা নিয়ে শংকা কাটল বাংলাদেশের

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৬:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাজ্যে ২০২৭ সাল পর্যন্ত অগ্রাধিকার বাজার সুবিধা (জিএসপি) পাবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হলেও দুই ধাপে তিন বছর করে দেশটিতে বাংলাদেশের পণ্য এই জিএসপি সুবিধা পাবে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট ডিকসন।  

বুধবার সকালে ব্রিটিশ হাইকমিশনার তার বাসায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান। গেল মঙ্গলবার দু'দেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত প্রথম বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্মেলন নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ব্রিটিশ হাইকমিশন।

ব্রিটিশ হাইকমিশনার সংবাদ সম্মেলনে বলেন, রপ্তানিভিত্তিক বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনীতিকে বিকশিত করার ক্ষেত্রে সহযোগিতার অংশ হিসেবে শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হলেও দুই ধাপে তিন বছর করে যুক্তরাজ্যের বাজারে জিএসপি সুবিধা পাবে। প্রথম ধাপে ২০২৪ সাল আর দ্বিতীয় ধাপে ২০২৭ সাল পর্যন্ত জিএসপি সুবিধা পাবে। অর্থাৎ আগামী ছয় বছর যুক্তরাজ্যের বাজারে বাংলাদেশ অগ্রাধিকারমূলক সুবিধা পেতে থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে রবার্ট ডিকসন তার দেশে ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের আরও আকৃষ্ট করতে বাংলাদেশে ব্যবসার পরিবেশের উন্নতির ওপর জোর দেন। গেল মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া দু'দেশের ওই বৈঠকে এ বিষয় আলোচনা হয়েছে বলেও জানান তিনি। 

ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগে বেশ কিছু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। এর মধ্যে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমম্বয়হীনতা, পদ্ধতিগত অনিশ্চয়তা, চুক্তি বাস্তবায়নের শর্তাবলী ও দুর্নীতি দূর করার পাশাপাশি ট্যাক্সেশনে জটিলতা রয়েছে। এই বিষয়গুলোর সুরাহা হওয়া জরুরি। আর এসব বিষয় সুরাহার ক্ষেত্রে পূর্বশর্ত হচ্ছে রাজনৈতিক অঙ্গীকার বলে উল্লেখ করেন রবার্ট ডিকসন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন