শেয়ারবাজারে ৬৬ কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার
jugantor
শেয়ারবাজারে ৬৬ কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৭ এপ্রিল ২০২১, ১৯:৫৭:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

শেয়ারবাজারে ৬৬ কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৬৬টি কোম্পানি থেকে ফ্লোর প্রাইস (সর্বনিম্ন মূল্যস্তর) প্রত্যাহার করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

বুধবার কমিশনের সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে যা কার্যকর হবে।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, করোনায় ভয়াবহ পতন ঠেকাতে গত বছরের ১৯ মার্চ শেয়ারের ফ্লোর প্রাইস বেধে দেওয়া হয়। এর মানে হলো, কোম্পানিরগুলোর শেয়ার সেই দামের নিচে নামতে পারবে না।

বিএসইসির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষা ও শেয়ারবাজারের উন্নয়নে প্রাথমিকভাবে ৬৬টি কোম্পানি থেকে ফ্লোর প্রাইসের নির্দেশনা প্রত্যাহার করা হলো।

জানা গেছে, বর্তমানে ১১০টি কোম্পানি সিকিউরিটিজ ফ্লোর প্রাইসে আটকে আছে। এরমধ্যে ৬৬টি থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হলো। এর ফলে আটকে থাকা শেয়ারগুলোর লেনদেনের সুযোগ তৈরি হয়েছে। যেগুলোর অধিকাংশই দীর্ঘদিন ধরে কেনাবেচা বন্ধ রয়েছে। বাকি কোম্পানিগুলোর ফ্লোর প্রাইস পরবর্তী ২ ধাপে তুলে নেওয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে।

ফ্লোর প্রাইসের নির্দেশনা প্রত্যাহার করে নেওয়া কোম্পানিগুলো হলো- পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্স সার্ভিস, আর এন স্পিনিং মিলস, বাংলাদেশ সার্ভিসেস, আইএফআইসি ইসলামী মিউচ্যুয়াল ফান্ড, জাহিন স্পিনিং, রিং সাইন টেক্সটাইল, অলিম্পিক এক্সেসরিস, ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ফিনিক্স ফাইন্যান্স ফাস্ট মিউচুয়াল ফান্ড, নূরানী ডাইং অ্যান্ড সুইটার, রিজেন্ট টেক্সটাইল মিলস, এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ড, ইভেন্সি টেক্সটাইল, প্যাসিফিক ডেনিম, মেট্রো স্পিনিং, কাট্টালী টেক্সটাইল, ফার ক্যামিকেল, দেশবন্ধু পলিমার, ইয়াকিন পলিমার, সাফকো স্পিনিং মিলস, ওয়েস্টান মেরিন শিপইয়ার্ড, সেন্টাল ফার্মাসিউটিক্যাল, বীচ হ্যাচারী, সীমটেক্স ইন্ডাস্ট্রি, শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রি, হামিদ ফেব্রিক্স, প্রাইম টেক্সটাইল স্পিনিং মিলস, সায়হাম কটন, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস, গোল্ডেন হারভেস্ট, এএফসি এ্যাগ্রো, খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, বেঙ্গল ওয়েন্ডসন, এমএল ডাইং, প্যারামাউন্ড টেক্সটাইল, সিনো বাংলা ইন্ডাস্ট্রি, দুলামিয়া কটন, নাহি অ্যালুমিনিয়াম, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি, উসমানিয়া গ্লাস শিট, উত্তরা ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ, স্ট্যান্ডান্ড ইন্স্যুরেন্স, ইউনিটক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট, ঢাকা ইলেক্ট্রনিক্স সাপ্লাই কোম্পানি, নাভানা সিএনজি, গ্লোবাল হ্যাভি ক্যামিকেল, আলিফ ইন্ডাস্ট্রি, সোনারগাঁও টেক্সটাইল, সায়হাম টেক্সটাইল, রূপালী ব্যাংক, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, কুইস সাউথ টেক্সটাইল মিলস, এ্যাডভান্ট ফার্মা, ফিনিক্স ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, আইপিডিসি ফাইন্যান্স, ভিএফএস থ্রেড ডাইং, ইস্কিউ নিট, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রি, শাসা ডেনিম, কপারটেক ইন্ডাস্ট্রি, আর্গন ডেনিম, ইন্দো বাংলা ফার্মা ও সিলভো ফার্মা এবং ওয়াইমেক্স ইলেকট্রডিস।

শেয়ারবাজারে ৬৬ কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৭ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শেয়ারবাজারে ৬৬ কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস প্রত্যাহার
ফাইল ছবি

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৬৬টি কোম্পানি থেকে ফ্লোর প্রাইস (সর্বনিম্ন মূল্যস্তর) প্রত্যাহার করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। 

বুধবার কমিশনের সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে যা কার্যকর হবে। 

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

উল্লেখ্য, করোনায় ভয়াবহ পতন ঠেকাতে গত বছরের ১৯ মার্চ শেয়ারের ফ্লোর প্রাইস বেধে দেওয়া হয়। এর মানে হলো, কোম্পানিরগুলোর শেয়ার সেই দামের নিচে নামতে পারবে না।

বিএসইসির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষা ও শেয়ারবাজারের উন্নয়নে প্রাথমিকভাবে ৬৬টি কোম্পানি থেকে ফ্লোর প্রাইসের নির্দেশনা প্রত্যাহার করা হলো।

জানা গেছে, বর্তমানে ১১০টি কোম্পানি সিকিউরিটিজ ফ্লোর প্রাইসে আটকে আছে। এরমধ্যে ৬৬টি থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হলো। এর ফলে আটকে থাকা শেয়ারগুলোর লেনদেনের সুযোগ তৈরি হয়েছে। যেগুলোর অধিকাংশই দীর্ঘদিন ধরে কেনাবেচা বন্ধ রয়েছে। বাকি কোম্পানিগুলোর ফ্লোর প্রাইস পরবর্তী ২ ধাপে তুলে নেওয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে। 

ফ্লোর প্রাইসের নির্দেশনা প্রত্যাহার করে নেওয়া কোম্পানিগুলো হলো- পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্স সার্ভিস, আর এন স্পিনিং মিলস, বাংলাদেশ সার্ভিসেস, আইএফআইসি ইসলামী মিউচ্যুয়াল ফান্ড, জাহিন স্পিনিং, রিং সাইন টেক্সটাইল, অলিম্পিক এক্সেসরিস, ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ফিনিক্স ফাইন্যান্স ফাস্ট মিউচুয়াল ফান্ড, নূরানী ডাইং অ্যান্ড সুইটার, রিজেন্ট টেক্সটাইল মিলস, এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ড, ইভেন্সি টেক্সটাইল, প্যাসিফিক ডেনিম, মেট্রো স্পিনিং, কাট্টালী টেক্সটাইল, ফার ক্যামিকেল, দেশবন্ধু পলিমার, ইয়াকিন পলিমার, সাফকো স্পিনিং মিলস, ওয়েস্টান মেরিন শিপইয়ার্ড, সেন্টাল ফার্মাসিউটিক্যাল, বীচ হ্যাচারী, সীমটেক্স ইন্ডাস্ট্রি, শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রি, হামিদ ফেব্রিক্স, প্রাইম টেক্সটাইল স্পিনিং মিলস, সায়হাম কটন, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস, গোল্ডেন হারভেস্ট, এএফসি এ্যাগ্রো, খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, বেঙ্গল ওয়েন্ডসন, এমএল ডাইং, প্যারামাউন্ড টেক্সটাইল, সিনো বাংলা ইন্ডাস্ট্রি, দুলামিয়া কটন, নাহি অ্যালুমিনিয়াম, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি, উসমানিয়া গ্লাস শিট, উত্তরা ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ, স্ট্যান্ডান্ড ইন্স্যুরেন্স, ইউনিটক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট, ঢাকা ইলেক্ট্রনিক্স সাপ্লাই কোম্পানি, নাভানা সিএনজি, গ্লোবাল হ্যাভি ক্যামিকেল, আলিফ ইন্ডাস্ট্রি, সোনারগাঁও টেক্সটাইল, সায়হাম টেক্সটাইল, রূপালী ব্যাংক, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, কুইস সাউথ টেক্সটাইল মিলস, এ্যাডভান্ট ফার্মা, ফিনিক্স ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, আইপিডিসি ফাইন্যান্স, ভিএফএস থ্রেড ডাইং, ইস্কিউ নিট, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রি, শাসা ডেনিম, কপারটেক ইন্ডাস্ট্রি, আর্গন ডেনিম, ইন্দো বাংলা ফার্মা ও সিলভো ফার্মা এবং ওয়াইমেক্স ইলেকট্রডিস।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

১৭ অক্টোবর, ২০২১