তফসিল পেছানোর দাবিতে বিকালে ইসিতে যাচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ০৮:২৫ | অনলাইন সংস্করণ

ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে উপস্থিত নেতারা
ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে উপস্থিত নেতারা। ফাইল ছবি

জাতীয় নির্বাচনের ঘোষিত তফসিল এক মাস পেছানোর দাবি নিয়ে আলোচনা করতে আজ বুধবার নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা বিকাল সাড়ে ৩টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

সাক্ষাতে তাদের ওই দাবির সঙ্গে নির্বাচনী লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড না থাকা, সারা দেশে গায়েবি মামলা, গ্রেফতার-হয়রানি ছাড়াও ইভিএম ব্যবহার না করার বিষয়ে আলোচনা করবেন নেতারা।

মঙ্গলবার রাতে অভিযোগ ও দাবির একটি খসড়া প্রস্তুত করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনে যাওয়ার বিষয়টি অবহিত করার জন্য মঙ্গলবার দুপুরে একটি চিঠি নিয়ে ফ্রন্টের নেতা শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন নির্বাচন কমিশনে যান। চিঠিতে নির্বাচনের বিবিধ বিষয়ে আলোচনা করার জন্য বুধবার সময় চান তারা।

জানা গেছে, আজ বিকাল সাড়ে ৩টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের সাক্ষাতের সময় দিয়েছেন।

এদিকে ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে একাদশ জাতীয় নির্বাচন ও বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি তুলে ধরতে আগামী শুক্রবার জাতীয় সংবাদপত্রের সম্পাদকদের সঙ্গে মতবিনিময় করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনসহ নেতারা এ মতবিনিময়সভায় উপস্থিত থাকবেন। পরে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রধানদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন ফ্রন্ট নেতারা। তবে এ মতবিনিময়সভার দিনক্ষণ নির্ধারণ করা হয়নি।

এ ছাড়া মঙ্গলবার নির্বাচনী ইশতেহার তৈরির জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ঘোষিত ভিশন-২০৩০ ও ঐক্যফ্রন্টের ১১ লক্ষ্য সামনে রেখে আগামী নির্বাচনী ইশতেহার তৈরি করবে এ কমিটি। ওই বৈঠকে দেশের রাজনৈতিক ও নির্বাচনী পরিবেশ সম্পর্কে গণমাধ্যমের সঙ্গে মতবিনিময় করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, নির্বাচনী ইশতেহার তৈরির কমিটিতে বিএনপি থেকে সিনিয়র সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, গণফোরাম থেকে আ ও ম শফিকউল্লাহ, জেএসডি থেকে শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের ইকবাল সিদ্দিকী, নাগরিক ঐক্য থেকে ডা. জাহেদ-উর রহমান রয়েছেন। আর এই কমিটির মূল দায়িত্বে থাকবেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচন এক মাস পিছিয়ে দেয়া অত্যন্ত জরুরি।

আশা করব, নির্বাচন কমিশন ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। তফসিলের তারিখ আর পেছানো হবে না-প্রধান নির্বাচন কমিশনারের এমন বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিইসি স্পষ্ট করে বললে তো হবে না।

সিইসি তো সব একাই বলে যাচ্ছেন। কেন নির্বাচনের তফসিল আবারও পেছানোর দাবি তা ব্যাখ্যা করে মির্জা ফখরুল বলেন, যে সময় তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে, সেই সময়টিতে বড়দিনের ছুটি থাকে।

ওই সময়টি খ্রিস্টান সম্প্রদায় একটি উৎসবের আমেজে থাকে, তাদের ধর্মীয় বড়দিন। এ ছাড়া নববর্ষ আসছে সেটি একটি বড় অনুষ্ঠান। একই সঙ্গে একটি সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের জন্য যে বিদেশি পর্যবেক্ষকদের আশা করছি, সেই সুযোগও থাকছে না এ তফসিলে।

এই তফসিলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ছাড়াও অন্যান্য রাজনৈতিক দল অত্যন্ত হতাশ হয়েছে। এর মাধ্যমে মনে করা হচ্ছে-কমিশন একটি সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন করার ব্যাপারে খুব একটা আগ্রহী নয়।

কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের সভাপতি ও ঐক্যফ্রন্টের নেতা বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, নির্বাচনের তারিখ সাত দিন পেছানো অন্যায় হয়েছে। এটি সরকারের আহ্বানে তারা করেছে।

তিনি বলেন, দেশ সম্পূর্ণ অনিয়মে চলছে। আমরা সেটি নিয়মে আনতে চাই। নির্বাচন কমিশন ঠিকমতো চলছে না। তারা যে নির্বাচন সাত দিন পিছিয়েছে, সেটি অন্যায়। এটি তো সরকারের আহ্বান। বদরুদ্দোজা চৌধুরীর আহ্বান। আমরা তো এক মাস চেয়েছি। দেশের মানুষ এক মাস পেছানোর কথা বলেছেন।

অতীতে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে তফসিল ঘোষণা করা হতো বলে উল্লেখ করে কাদের সিদ্দিকী বলেন, কিন্তু এ নির্বাচন কমিশন সেটি করেনি। সে জন্য আমার সন্দেহ হয় প্রধান নির্বাচন কমিশনার ভালোভাবে নির্বাচন করতে পারবেন কিনা।

এ সন্দেহ এখনও মানুষের মধ্যে আছে। তিনি বলেন, অনেকের ধারণা-সরকার ভোট নিয়ে যাবে। আমার ধারণা-সরকার ভোটে টিকতেই পারবে না।

বৈঠকে ঐক্যফ্রন্টের আসন বণ্টনের বিষয়ে প্রাথমিক আলোচনা হলেও এ নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এর আগে প্রত্যেক দল তাদের নিজ প্রার্থীদের মধ্যে মনোনয়ন ফরম বিতরণ ও সাক্ষাৎকার পর্ব শেষ করতে চান।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামালের সভাপতিত্বে স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে মির্জা ফখরুল ছাড়া উপস্থিত ছিলেন জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, মোকাব্বির খান, জগলুল হায়দার আফ্রিক, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ।

ঘটনাপ্রবাহ : বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×