এবার তাঁবু গেঁড়ে শুয়ে পড়েছেন লতিফ সিদ্দিকী

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০১:১২ | অনলাইন সংস্করণ

হামলার বিচার দাবিতে তাঁবু গেঁড়ে শুয়ে আছেন লতিফ সিদ্দিকী
তাঁবু গেঁড়ে লেপ গায়ে শুয়ে আছেন লতিফ সিদ্দিকী। ছবি: সংগৃহীত

নির্বাচনী প্রচারে হামলা ও ভাঙচুরের প্রতিবাদে টাঙ্গাইল-৪ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী লতিফ সিদ্দিকী জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে সেই দুপুর থেকে অবস্থান নিয়ে আছেন।

এবার বেড, কাঁথা-বালিশ বিছিয়ে শুয়ে পড়েন আওয়ামী লীগের সাবেক এই মন্ত্রী। সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত হলেও তিনি তার অবস্থান থেকে নড়েননি।

বরং তাঁবু গেঁড়ে, লেপ নিয়ে সেখানে রাত কাটাতে সব প্রস্তুতি সেরে শুয়ে পড়েছেন তিনি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তিনি জায়গা ছাড়বেন না বলে জানিয়েছেন।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় কালিহাতী উপজেলার গোহালিয়া ইউনিয়নের সড়াতৈল এলাকায় গণসংযোগের সময় এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার সময় চারটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।

এ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারীর সমর্থকরা এ হামলা করেছে অভিযোগ করেছেন লতিফ সিদ্দিকী।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্য হাসান ইমাম খান জানান, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তার গাড়িবহরে হামলা করেনি।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে লতিফ সিদ্দকী মানহানিকর বক্তব্য দেয়ায় স্থানীয় জনতা তার গাড়িবহরে হামলা করেছে।

এরপর দুপুর ২টা থেকে তিনি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সামনের সড়কে ধর্মঘট পালন শুরু করেন।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় দিকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সামনে গিয়ে দেখে যায়, রাতে থাকার জন্য ডিসি অফিসের সামনের রাস্তায় তাঁবু টাঙানো হয়েছে।

আর ভেতরে মাটিতে পাটি ও তোষক বিছানো হয়েছে। প্রচণ্ড শীতের কারণে সেখানে লেপ গায়ে দিয়ে শুয়ে রয়েছেন লতিফ সিদ্দিকী।

লতিফ সিদ্দিকী বলেন, নির্বাচনে আমার বিজয় নিশ্চিত জেনে বর্তমান সংসদ সদস্য হাসান ইমান খানের সমর্থকরা আমার গাড়িবহরে হামলা চালায়। যাতে আমি নির্বাচন থেকে সরে যাই।

‌‘কিন্তু আমি তো আওয়ামী লীগের বাইরে নই। বর্তমান এমপি সোহেল হাজারীর কারণে আওয়ামী লীগের যে সুনাম এ আসনে ক্ষুণ্ণ হয়েছে তা দূর করতেই সাধারণ মানুষ আমাকে নির্বাচনে অংশ নিতে বাধ্য করেছে।’

অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেফতার ও কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেনকে প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত আমি এখানেই অবস্থান ধর্মঘট পালন করবো।

লতিফ সিদ্দিকী আরো বলেন, কালিহাতীতে সরকার দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করতে তার কর্মী-সমর্থকদের পুলিশ ফোন করে প্রকাশ্যে হুমকি দিচ্ছে। সরকার দলীয় প্রার্থী ও তার কর্মী-সমর্থকরা নিয়মিত নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে যাচ্ছেন।

‘ইতোপূর্বে আমি তিনটি পৃথক লিখিত অভিযোগ করেছি। কিন্তু রিটার্নিং কর্মকর্তা কোনো ব্যবস্থাই নেননি।’

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সামনের তার এ অবস্থান নিয়ে জানতে চাইলে এসপি সঞ্জীব কুমার রায় যুগান্তরকে বলেন, তাকে অনুরোধ করা হয়েছে, তার যে দাবিগুলো আছে, সেগুলো লিখিত দিতে বলা হয়েছে, আমরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। কিন্তু তিনি না করে এখনো সেখানে অবস্থান নিয়ে আছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×