অবশেষে মুক্তি পেল রানুর ‘তেরি মেরি কাহানি’

  অনলাইন ডেস্ক ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:১০:২৩ | অনলাইন সংস্করণ

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রানাঘাট রেল স্টেশনের রানু মণ্ডল রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গেছেন সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে। তিনি এখন হিমেশ রেশমিয়ার প্লে-ব্যাক সিঙ্গার।

পরপর তিনটে গান রেকর্ড করেছেন তিনি। এতদিন তার ঝলক প্রকাশ পেয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। এবার তারই একটি গান মুক্তি পেল। গানের দৃশ্যায়নে রানুকেও দেখা গেছে।

‘হ্যাপি হার্ডি অ্যান্ড হির’ ছবির ‘তেরি মেরি কাহানি’ গানটি মুক্তি পেয়েছে বুধবার। গানে হিমেশ রেশমিয়া আর অভিনেত্রী সোনিয়া মানের সঙ্গে দেখা গিয়েছে রানুকেও। মঙ্গলবার মুক্তি পেয়েছিল গানটির টিজার।

তবে রানুর যে ফুটজটি ব্যবহার করা হয়েছে তা রেকর্ডিংয়ের সময়েই তোলা। এই গানটিই প্রথম রানুকে দিয়ে রেকর্ড করিয়েছিলেন হিমেশ। এরপর রানুকে দিয়ে আরও দুটি গান রেকর্ড করান হিমেশ।

একটি ‘আদত’, অন্যটি ২০০৬ সালের শাহিদ কাপুর এবং করিনা কাপুর অভিনীত বক্সঅফিস হিট কমেডি-মার্ডার থ্রিলার ‘৩৬ চায়না টাউন’ ছবির টাইটেল সং ‘আশিকি মে তেরি’।

কেবল গানের গলার জোরেই রানু এখন সোশ্যাল মিডিয়ার ‘সুরসম্রাজ্ঞী’। তার গান শুনে শ্রোতাদের মন ভিজেছে বটে, তবে এই আচমকা গগনচুম্বী সাফল্য কিংবা, ভাগ্যের চাবিকাঠি হাতে পাওয়া নিয়ে ইতিমধ্যেই তাকে ঘিরে শুরু হয়েছে বিতর্ক।

রানাঘাট স্টেশন থেকে বলিউড। এ যেন স্বপ্নের উড়ান৷ অতীন্দ্রয়ের তোলা ভিডিও ফেসবুকে আপ করার সঙ্গে সঙ্গে তা থেকে ভাইরাল হয়ে যায়। রাণু নজরে পড়ল সঙ্গীত পরিচালক হিমেশ রেশমিয়ার৷ আর তারপর যা ঘটল তা এখন গোটা বিশ্ব জানে৷

সেই স্বপ্নপূরণের আরেক নামই হল রানাঘাটের রাণু ও তার গান ‘তেরি মেরি কাহানি’৷ আর এই স্বপ্নপূরণের গল্পের রচয়িতা হলেন হিমেশ নিজেই৷ সেই গল্প বলতে গিয়েই সংবাদ সম্মেলনে কেঁদে ফেললেন হিমেশ৷ পাশে তখন বসে ছিলেন রাণু মণ্ডল।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত