যেখানেই থাকেন, যেন ভালো থাকেন : শাওন
jugantor
যেখানেই থাকেন, যেন ভালো থাকেন : শাওন

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১৫:০৪:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

হৃদয়নন্দিত কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদ ও শা্ওন।

বাঙালির হৃদয়নন্দিত কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদের ৭১তম জন্মদিন আজ। নুহাশপল্লীর সেই প্রিয় লিচুতলায় শায়িত আছেন তিনি। প্রতি বছরের মতো এবারও নানা আয়োজনে উদযাপিত হচ্ছে দিনটি। বিশেষ দিনটি উপলক্ষে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে।

হুমায়ূনের জন্মদিন নিয়ে স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন বলেন, ছেলেদের নিয়ে জন্মদিনের কেক কেটেছেন ও ফুল দিয়েছেন হুমায়ূনের কবরে।
জন্মদিন উপলক্ষে নুহাশপল্লীতে মোমবাতি জ্বালিয়ে আলোকসজ্জা, সকালে কেক কাটা ও দুপুরে মিলাদ পড়ানো হয়েছে।

শাওন বলেন, হুমায়ূন আহমেদ কখনো জাঁকজমকভাবে জন্মদিন পালন করতেন না। তাই আমরা উনার জন্মদিনে বাড়তি কোনো আয়োজন করি না। সবাই তার জন্য দোয়া করবেন। উনি যেখানেই থাকেন, যেন ভালো থাকেন।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর ময়মনসিংহের নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়ার কুতুবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন হুমায়ূন আহমেদ। তার পিতার নাম ফয়জুর রহমান। মা আয়েশা ফয়েজ।

বাবা ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তৎকালীন পিরোজপুর মহকুমার এসডিপিও হিসেবে কর্তব্যরত অবস্থায় শহীদ হন।
হুমায়ূন আহমেদের অনুজ মুহম্মদ জাফর ইকবাল বিজ্ঞান-শিক্ষক এবং কথাসাহিত্যিক; সর্বকনিষ্ঠ ভ্রাতা আহসান হাবীব রম্য সাহিত্যিক ও কার্টুনিস্ট।
২০১০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তার অন্ত্রে ক্যানসার ধরা পড়ে। এরপর চিকিৎসাধীন অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই কোটি বাঙালিকে কাঁদিয়ে চলে যান হুমায়ূন আহমেদ।

যেখানেই থাকেন, যেন ভালো থাকেন : শাওন

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হৃদয়নন্দিত কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদ ও শা্ওন।
হৃদয়নন্দিত কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদ ও শা্ওন। ছবি সংগৃহীত

বাঙালির হৃদয়নন্দিত কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদের ৭১তম জন্মদিন আজ। নুহাশপল্লীর সেই প্রিয় লিচুতলায় শায়িত আছেন তিনি।  প্রতি বছরের মতো এবারও নানা আয়োজনে উদযাপিত হচ্ছে দিনটি। বিশেষ দিনটি উপলক্ষে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। 

হুমায়ূনের জন্মদিন নিয়ে স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন বলেন, ছেলেদের নিয়ে জন্মদিনের কেক কেটেছেন ও ফুল দিয়েছেন হুমায়ূনের কবরে। 
জন্মদিন উপলক্ষে নুহাশপল্লীতে মোমবাতি জ্বালিয়ে আলোকসজ্জা, সকালে কেক কাটা ও দুপুরে মিলাদ পড়ানো হয়েছে। 

শাওন বলেন, হুমায়ূন আহমেদ কখনো জাঁকজমকভাবে জন্মদিন পালন করতেন না। তাই আমরা উনার জন্মদিনে বাড়তি কোনো আয়োজন করি না। সবাই তার জন্য দোয়া করবেন। উনি যেখানেই থাকেন, যেন ভালো থাকেন।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর ময়মনসিংহের নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়ার কুতুবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন হুমায়ূন আহমেদ। তার পিতার নাম ফয়জুর রহমান। মা আয়েশা ফয়েজ। 

বাবা ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তৎকালীন পিরোজপুর মহকুমার এসডিপিও হিসেবে কর্তব্যরত অবস্থায় শহীদ হন। 
হুমায়ূন আহমেদের অনুজ মুহম্মদ জাফর ইকবাল বিজ্ঞান-শিক্ষক এবং কথাসাহিত্যিক; সর্বকনিষ্ঠ ভ্রাতা আহসান হাবীব রম্য সাহিত্যিক ও কার্টুনিস্ট।
২০১০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তার অন্ত্রে ক্যানসার ধরা পড়ে। এরপর চিকিৎসাধীন অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই কোটি বাঙালিকে কাঁদিয়ে চলে যান হুমায়ূন আহমেদ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন