সিনেমায় বাংলাদেশি পণ্য নিয়ে ‘আপত্তিকর’ সংলাপ, পোশাকখাত নিয়ে গভীর চক্রান্ত?
jugantor
সিনেমায় বাংলাদেশি পণ্য নিয়ে ‘আপত্তিকর’ সংলাপ, পোশাকখাত নিয়ে গভীর চক্রান্ত?

  বিনোদন ডেস্ক  

০৪ আগস্ট ২০২১, ০০:১৭:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের বিনোদনধর্মী প্রতিষ্ঠান নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া একটি চলচ্চিত্রে বাংলাদেশি পণ্য নিয়ে ‘আপত্তিকর’ সংলাপ শোনা গেছে। বাংলাদেশি পণ্যবিরোধী প্রচারণার মতো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে সিনেমাটির বিরুদ্ধে। যা নিয়ে দেশে-বিদেশে প্রতিবাদে ঝড় উঠেছে।

সিনেমাটির নাম ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’। এতে অভিনয় করেছেন হলিউড খ্যাত অ্যাকশন হিরো ভ্যান ড্যাম।

সিনেমার একটি দৃশ্যে দেখা যায়, একজন অভিনয়শিল্পী বলছেন, ‘হ্যাঁ, এটা বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট’(Ah, yes. Bulletproof tuxedo)’। জবাবে অন্যজন বলেন, ‘এটা মেড ইন ফ্রান্স। তবে যদি এটি বাংলাদেশ থেকে আসে, তাহলে আমি ধ্বংস হয়ে যাব।’ (Made in France. If it was from Bangladesh, I,d be gone.)

এমন সংলাপে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের পণ্যকে খাটো করা হয়েছে মন্তব্য করে এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন কানাডাপ্রবাসী বাংলাদেশি সাংবাদিক মুহম্মদ খান।

মুহম্মদ খান তার ফেসবুক ওয়ালে প্রশ্ন রেখেছেন, ‘বিষয়টাকে নেহাত সিনেমার একটা ডায়লগ মনে করলে আমার মনে হয় চরম বোকামি হবে। এটা খুব প্রচ্ছন্নভাবে করা হয়েছে বলেই ধরে নেয়া ভালো। এবং বাংলাদেশের বা বাংলাদেশে তৈরি পণ্যের নেগেটিভ ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য এসব মুভি যে মোক্ষম অস্ত্র, তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখানোর প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না! একটা জুতসই প্রতিবাদ হওয়া দরকার না?’

তার এমন পোস্টের পর বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী অনেক প্রবাসীর নজরে পড়ে। তারাও এর প্রতিবাদ করেছেন।

সিনেমায় এমন সংলাপ ব্যবহারকে বাংলাদেশের পোশাকশিল্পের বিরুদ্ধে গভীর কোনো ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখছেন সুজন হোসেন নামের একজন।

তার ভাষ্যে, ‘আমরা বুলেটপ্রুফ কিছু তৈরি করি না। তার পরেও এর সঙ্গে বাংলাদেশের নাম জুড়ে নিম্নমানের প্রমাণ করাটা সত্যিকার অর্থে একটা গভীর চক্রান্ত। বিশেষ করে বাংলাদেশের পোশাক, চামড়া, ওষুধ এবং অন্যান্য রপ্তানিযোগ্য পণ্য ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত করার উদ্দেশ্যে এসব করা হচ্ছে।’

সুজন হোসেনের বক্তব্যে সহমত জানিয়েছেন সুমন কায়সার। তিনি লিখেছেন, ‘এত দেশ থাকতে বাংলাদেশ! প্রতিদ্বন্দ্বীদের উদ্দেশ্যমূলক প্রচার হওয়া অসম্ভব না।’

হলিউড সিনেমায় এমন সংলাপ ব্যবহারে বিস্ময় ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান।

তিনি এক গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমরা সব সময় উন্নত মানের পোশাক রপ্তানি করি, সে কারণেই বিশ্বের বিখ্যাত ব্র্যান্ডগুলো আমাদের পোশাক কেনে। কোনো চলচ্চিত্র বা মুভিতে বাংলাদেশকে নিয়ে বিতর্কিত কোনো সংলাপ মোটেই সমীচীন নয়। আমি এই সংলাপ ব্যবহারে গভীর উদ্বেগ ও যুতসই প্রতিবাদ করছি।’

প্রসঙ্গত, গত ৩০ জুলাই নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেয়েছে ভ্যান ড্যাম অভিনীত ছবি ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’।ডেভিড চারহন পরিচালিত ফ্রেঞ্চ ভাষার সিনেমাটি এখন ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জনপ্রিয়তার তালিকার সেরা দশে অবস্থান করছে।

সিনেমায় বাংলাদেশি পণ্য নিয়ে ‘আপত্তিকর’ সংলাপ, পোশাকখাত নিয়ে গভীর চক্রান্ত?

 বিনোদন ডেস্ক 
০৪ আগস্ট ২০২১, ১২:১৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের বিনোদনধর্মী প্রতিষ্ঠান নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া একটি চলচ্চিত্রে বাংলাদেশি পণ্য নিয়ে ‘আপত্তিকর’ সংলাপ শোনা গেছে।  বাংলাদেশি পণ্যবিরোধী প্রচারণার মতো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে সিনেমাটির বিরুদ্ধে। যা নিয়ে দেশে-বিদেশে প্রতিবাদে ঝড় উঠেছে।

সিনেমাটির নাম ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’। এতে অভিনয় করেছেন হলিউড খ্যাত অ্যাকশন হিরো ভ্যান ড্যাম।

সিনেমার একটি দৃশ্যে দেখা যায়, একজন অভিনয়শিল্পী বলছেন, ‘হ্যাঁ, এটা বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট’(Ah, yes. Bulletproof tuxedo)’। জবাবে অন্যজন বলেন, ‘এটা মেড ইন ফ্রান্স। তবে যদি এটি বাংলাদেশ থেকে আসে, তাহলে আমি ধ্বংস হয়ে যাব।’ (Made in France. If it was from Bangladesh, I,d be gone.)

এমন সংলাপে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের পণ্যকে খাটো করা হয়েছে মন্তব্য করে এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন কানাডাপ্রবাসী বাংলাদেশি সাংবাদিক মুহম্মদ খান।

মুহম্মদ খান তার ফেসবুক ওয়ালে প্রশ্ন রেখেছেন, ‘বিষয়টাকে নেহাত সিনেমার একটা ডায়লগ মনে করলে আমার মনে হয় চরম বোকামি হবে। এটা খুব প্রচ্ছন্নভাবে করা হয়েছে বলেই ধরে নেয়া ভালো। এবং বাংলাদেশের বা বাংলাদেশে তৈরি পণ্যের নেগেটিভ ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য এসব মুভি যে মোক্ষম অস্ত্র, তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখানোর প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না! একটা জুতসই প্রতিবাদ হওয়া দরকার না?’

তার এমন পোস্টের পর বিষয়টি  যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী অনেক প্রবাসীর নজরে পড়ে। তারাও এর প্রতিবাদ করেছেন।

সিনেমায় এমন সংলাপ ব্যবহারকে বাংলাদেশের পোশাকশিল্পের বিরুদ্ধে গভীর কোনো ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখছেন সুজন হোসেন নামের একজন।

তার ভাষ্যে, ‘আমরা বুলেটপ্রুফ কিছু তৈরি করি না। তার পরেও এর সঙ্গে বাংলাদেশের নাম জুড়ে নিম্নমানের প্রমাণ করাটা সত্যিকার অর্থে একটা গভীর চক্রান্ত। বিশেষ করে বাংলাদেশের পোশাক, চামড়া, ওষুধ এবং অন্যান্য রপ্তানিযোগ্য পণ্য ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত করার উদ্দেশ্যে এসব করা হচ্ছে।’

সুজন হোসেনের বক্তব্যে সহমত জানিয়েছেন সুমন কায়সার। তিনি লিখেছেন, ‘এত দেশ থাকতে বাংলাদেশ! প্রতিদ্বন্দ্বীদের উদ্দেশ্যমূলক প্রচার হওয়া অসম্ভব না।’

হলিউড সিনেমায় এমন সংলাপ ব্যবহারে বিস্ময় ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান।

তিনি এক গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমরা সব সময় উন্নত মানের পোশাক রপ্তানি করি, সে কারণেই বিশ্বের বিখ্যাত ব্র্যান্ডগুলো আমাদের পোশাক কেনে। কোনো চলচ্চিত্র বা মুভিতে বাংলাদেশকে নিয়ে বিতর্কিত কোনো সংলাপ মোটেই সমীচীন নয়। আমি এই সংলাপ ব্যবহারে গভীর উদ্বেগ ও যুতসই প্রতিবাদ করছি।’

প্রসঙ্গত, গত ৩০ জুলাই নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেয়েছে ভ্যান ড্যাম অভিনীত ছবি ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’।ডেভিড চারহন পরিচালিত ফ্রেঞ্চ ভাষার সিনেমাটি এখন  ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জনপ্রিয়তার তালিকার সেরা দশে অবস্থান করছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন