‘বাংলা কেন হিন্দি বলুন’, ক্ষুব্ধ সৃজিত-আবির-পরমব্রত
jugantor
‘বাংলা কেন হিন্দি বলুন’, ক্ষুব্ধ সৃজিত-আবির-পরমব্রত

  বিনোদন ডেস্ক  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৬:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

কলকাতায় বাংলায় কথা বলে রীতিমতো অপমানিত হলেন টালিউড ছবির জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত পরিচালক-প্রযোজক সত্রাজিৎ সেন।

নতুন চশমার পাওয়ারে স্বচ্ছ্ন্দ বোধ করছিলেন না তিনি। সেটি ফেরত দেওয়ার কথা বলতে চশমার মোবাইল ফোনে বাংলায় দোকানের ডেলিভারি বয়ের সঙ্গে কথা বলছিলেন তিনি।

তখন ডেলিভারি বয়ে অনেকটা একপ্রকার নির্দেশ দেওয়ার সুরে বলে ওঠেন - বাংলায় নন হিন্দিতে বলুন।

এমন ঘটনায় যারপরনাই হতবাক ও ক্ষুব্ধ সত্রাজিৎ সেন। সেই ক্ষোভ উগড়ে দিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ওই চশমার ব্র্যান্ডকে ট্যাগ করে এক টুইটে এ পরিচালক লেখেন, ‘এই নাম্বারের ব্যক্তিটি মোবাইল ফোনে আমাকে জানান, এটা বাংলাদেশ নয়, হিন্দিতে বলুন। হিন্দিতে না বললে আপনার সঙ্গে ব্যবসায়িক আলাপ চালিয়ে যাব না।’

সত্রাজিতের এই টুইট দেখে হতবাক টালিউডের দুই জনপ্রিয় অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় ও আবির চট্টোপাধ্যায়, পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়।

গোটা ঘটনার সমালোচনা করে পরম টুইট করে লেখেন, ‘খিস্তিটা বিশুদ্ধ বাংলায় হতে হবে, তবে আনন্দ।’

ক্ষুব্ধ সৃজিত মুখোপাধ্যায় লিখলেন, ‘কাঁচা বাংলায় উত্তর দিয়েছিস তো!’

সত্রাজিতের এই টুইটের সুবাদে বিষয়টি ভাইরাল হয়ে পড়ে। তাতে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন কলকাতার নেটিজেনরাও। পরিচালককে সমর্থন করে তার টুইটটিও রিটুইট করে চলেছে তারা।

সত্রাজিতের এমন টুইটের পর টুইটারে ক্ষমা চেয়েছে ওই চশমার কোম্পানি।

রি টুইটে খোঁচা মেরে জবাব দিলেন এ পরিচালক। লিখেছেন, ‘আমি বাঙালি, বাংলায় লিখছি। রিফান্ড করে দেবেন। আমার আপনাদের সঙ্গে আর কোনো লেনদেনের ইচ্ছে নেই। বেশ কয়েক বছর করলাম। রোমানে লিখলাম যাতে পড়তে সুবিধা হয়। নয়তো বাঙালি কেউ তো আছেই আপনাদের কোম্পানিতে আশা করি। তাকে দিয়ে অনুবাদ করিয়ে নেবেন।’

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস, টুইটার

‘বাংলা কেন হিন্দি বলুন’, ক্ষুব্ধ সৃজিত-আবির-পরমব্রত

 বিনোদন ডেস্ক 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কলকাতায় বাংলায় কথা বলে রীতিমতো অপমানিত হলেন টালিউড ছবির জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত পরিচালক-প্রযোজক সত্রাজিৎ সেন। 

নতুন চশমার পাওয়ারে স্বচ্ছ্ন্দ বোধ করছিলেন না তিনি। সেটি ফেরত দেওয়ার কথা বলতে চশমার মোবাইল ফোনে বাংলায় দোকানের ডেলিভারি বয়ের সঙ্গে কথা বলছিলেন তিনি।

তখন ডেলিভারি বয়ে অনেকটা একপ্রকার নির্দেশ দেওয়ার সুরে বলে ওঠেন - বাংলায় নন হিন্দিতে বলুন।

এমন ঘটনায় যারপরনাই হতবাক ও ক্ষুব্ধ সত্রাজিৎ সেন। সেই ক্ষোভ উগড়ে দিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ওই চশমার ব্র্যান্ডকে ট্যাগ করে এক টুইটে এ পরিচালক লেখেন, ‘এই নাম্বারের ব্যক্তিটি মোবাইল ফোনে আমাকে জানান, এটা বাংলাদেশ নয়, হিন্দিতে বলুন। হিন্দিতে না বললে আপনার সঙ্গে ব্যবসায়িক আলাপ চালিয়ে যাব না।’

সত্রাজিতের এই টুইট দেখে হতবাক টালিউডের দুই জনপ্রিয় অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় ও আবির চট্টোপাধ্যায়, পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়। 

গোটা ঘটনার সমালোচনা করে পরম টুইট করে লেখেন, ‘খিস্তিটা বিশুদ্ধ বাংলায় হতে হবে, তবে আনন্দ।’ 

ক্ষুব্ধ সৃজিত মুখোপাধ্যায় লিখলেন, ‘কাঁচা বাংলায় উত্তর দিয়েছিস তো!’  

 

সত্রাজিতের এই টুইটের সুবাদে বিষয়টি ভাইরাল হয়ে পড়ে। তাতে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন কলকাতার নেটিজেনরাও। পরিচালককে সমর্থন করে তার টুইটটিও রিটুইট করে চলেছে তারা।

সত্রাজিতের এমন টুইটের পর টুইটারে ক্ষমা চেয়েছে ওই চশমার কোম্পানি। 

রি টুইটে খোঁচা মেরে জবাব দিলেন এ পরিচালক। লিখেছেন, ‘আমি বাঙালি, বাংলায় লিখছি। রিফান্ড করে দেবেন। আমার আপনাদের সঙ্গে আর কোনো লেনদেনের ইচ্ছে নেই। বেশ কয়েক বছর করলাম। রোমানে লিখলাম যাতে পড়তে সুবিধা হয়। নয়তো বাঙালি কেউ তো আছেই আপনাদের কোম্পানিতে আশা করি। তাকে দিয়ে অনুবাদ করিয়ে নেবেন।’  

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস, টুইটার
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন