শতবর্ষের আলোয় ঢাবিতে গাইলেন তারা
jugantor
শতবর্ষের আলোয় ঢাবিতে গাইলেন তারা

  বিনোদন প্রতিবেদন   

০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:১০:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

শিক্ষা ও সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার শতবর্ষ পূরণ করেছে। ১৯২১ সালের ১ জুলাই এ বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয়েছিল। মাঝখানে বিরতি দিয়ে ৬ দিনব্যাপী ‘শতবর্ষের আলোয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ছিল ১ ডিসেম্বর।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন শুরু হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরই বিভিন্ন বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী, বিভিন্ন বিভাগের ছাত্র-শিক্ষক অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন। আর এর পরপরই ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ থিম সংটি পরিবেশন করেন উপস্থিত শিল্পীরা। থিম সংটি লিখেছেন ও সুর করেছেন জাকির হোসেন।

যাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন- সৈয়দ আব্দুল হাদী, ফাহমিদা নবী, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, সামিনা চৌধুরী, অণিমা রায়, শুভ্র দেব, শফিক তুহিন, প্রিয়াংকা গোপ, জয় শাহরিয়ার, বেলাল খান, শুভ, লোপা হোসেইনসহ অনেকেই। এমন একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পেরে ভীষণ গর্বিত ও আনন্দিত সৈয়দ আব্দুল হাদী।

তিনি তার অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, আমি ভীষণ গর্ববোধ করি যে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র, একজন প্রবীণ ছাত্র। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র বলেই জীবনে আজ যা কিছু অর্জন তা করতে পেরেছি। আমার জীবন গঠনে এই বিশ্ববিদ্যালয় ভীষণ ভূমিকা রেখেছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে আমাকে সম্পৃক্ত রাখার জন্য আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ।

ফাহমিদা নবী বলেন, অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে পারার মধ্যে সত্যিই ভীষণ গর্ববোধ করছি। এখানে এসে অনেকের সঙ্গেই দেখা হলো দীর্ঘদিন পর, এটাও অনেক ভালোলাগার। সামিনা চৌধুরী বলেন, এমন আয়োজনে থাকতে পারাটাই আসলে গর্বিত হবার মতো, আনন্দে থাকার মতো।

বেলাল খান বলেন, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র- এটাই আমার গর্ব। এখানকার প্রতিটি ধূলিকণার সাথে আমার সম্পর্ক। নিজেকে আজকের বেলাল খান হিসেবে গড়ে তোলার নেপথ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরই অবদান। অনুষ্ঠানের একটি অংশ হতে পারাই পরম সৌভাগ্যের।

শতবর্ষের আলোয় ঢাবিতে গাইলেন তারা

 বিনোদন প্রতিবেদন  
০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:১০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শিক্ষা ও সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার শতবর্ষ পূরণ করেছে। ১৯২১ সালের ১ জুলাই এ বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয়েছিল। মাঝখানে বিরতি দিয়ে ৬ দিনব্যাপী ‘শতবর্ষের আলোয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ছিল ১ ডিসেম্বর।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন শুরু হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরই বিভিন্ন বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী, বিভিন্ন বিভাগের ছাত্র-শিক্ষক অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন। আর এর পরপরই ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ থিম সংটি পরিবেশন করেন উপস্থিত শিল্পীরা। থিম সংটি লিখেছেন ও সুর করেছেন জাকির হোসেন।

যাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন- সৈয়দ আব্দুল হাদী, ফাহমিদা নবী, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, সামিনা চৌধুরী, অণিমা রায়, শুভ্র দেব, শফিক তুহিন, প্রিয়াংকা গোপ, জয় শাহরিয়ার, বেলাল খান, শুভ, লোপা হোসেইনসহ অনেকেই। এমন একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পেরে ভীষণ গর্বিত ও আনন্দিত সৈয়দ আব্দুল হাদী।

তিনি তার অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, আমি ভীষণ গর্ববোধ করি যে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র, একজন প্রবীণ ছাত্র। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র বলেই জীবনে আজ যা কিছু অর্জন তা করতে পেরেছি। আমার জীবন গঠনে এই বিশ্ববিদ্যালয় ভীষণ ভূমিকা রেখেছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে আমাকে সম্পৃক্ত রাখার জন্য আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ।

ফাহমিদা নবী বলেন, অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে পারার মধ্যে সত্যিই ভীষণ গর্ববোধ করছি। এখানে এসে অনেকের সঙ্গেই দেখা হলো দীর্ঘদিন পর, এটাও অনেক ভালোলাগার। সামিনা চৌধুরী বলেন, এমন আয়োজনে থাকতে পারাটাই আসলে গর্বিত হবার মতো, আনন্দে থাকার মতো।

বেলাল খান বলেন, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র- এটাই আমার গর্ব। এখানকার প্রতিটি ধূলিকণার সাথে আমার সম্পর্ক। নিজেকে আজকের বেলাল খান হিসেবে গড়ে তোলার নেপথ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরই অবদান। অনুষ্ঠানের একটি অংশ হতে পারাই পরম সৌভাগ্যের।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন