একনজরে অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ

প্রকাশ : ২২ মে ২০১৮, ২২:৪৪ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

তাজিন আহমেদ

না ফেরার দেশে চলে গেলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ। আর কখনো হাসবেন না চোখ বুজে আসা সেই হাসি। তার চঞ্চলতা মাখা বাক্যালাপে মুগ্ধতাও ছড়াবে না আর। অভিনয় নিয়ে কখনোই আর দর্শকের মনে দোলা দেবেন না তিনি। এ যাত্রা তার, চিরতরে। মাত্র ৪৩ বছর বয়সেই নিভে গেল প্রাণোচ্ছ্বল এই অভিনেত্রীর জীবন প্রদীপ।

মঙ্গলবার সকালের দিকে হার্ট অ্যাটাক করলে তাকে দ্রুত রাজধানীর উত্তরার চীন-জাপান মৈত্রী হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানকার ডাক্তাররা অপারগ হলে এরপর দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে এ অভিনেত্রীকে নেয়া হয় উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে। এ হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় বিকাল ৪টা ৩০ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

তার মৃত্যুর খবরে শোকের ছায়া নেমে আসে মিডিয়া পাড়ায়। বিশেষ করে নাট্যাঙ্গনের তার সহকর্মীরা শুটিং বন্ধ রেখে তাকে শেষবারের মতো দেখতে হাসপাতালে ছুটে যান। 

এ সময় হাসপাতালে উপস্থিত ছিলেন চিত্রনায়ক রিয়াজ, অভিনেতা রওনক হাসান, নির্মাতা বদরুল আনাম সৌদ, সকাল আহমেদ, অভিনেত্রী জেনীসহ অনেকেই।

১৯৭৫ সালের ৩০ জুলাই নোয়াখালীতে জন্মগ্রহণ করেন তাজিন আহমেদ। তিনি বেড়ে উঠেছেন পাবনা জেলায়। ঢাকার ইডেন কলেজ থেকে পড়াশোনা শেষ করেছেন এ অভিনেত্রী। ম্যানেজমেন্টে স্নাতকোত্তর করেছেন তিনি। 

দিলারা ডলি রচিত ও শেখ নিয়ামত আলী পরিচালিত ‘শেষ দেখা শেষ নয়’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার অভিনয়যাত্রা শুরু হয়েছিল। নাটকটি ১৯৯৬ সালে বিটিভিতে প্রচার হয়। এরপর তিনি অসংখ্য নাটক-টেলিছবি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন। হুমায়ূন আহমেদের নাটক ‘নীলচুড়ি’তে অভিনয় করেও বেশ আলোচিত হন। তার সর্বশেষ অভিনীত ধারাবাহিক নাটক ‘বিদেশি পাড়া’। তবে দীর্ঘদিন ধরে তিনি মিডিয়া থেকে দূরে ছিলেন।

তাজিন আহমেদ আনন্দ ভুবন ম্যাগাজিনের কলামিস্টও ছিলেন তিনি। পরে মার্কেন্টাইল ব্যাংকে পাবলিক রিলেশন অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সঙ্গীত শিল্পী ও পরিচালক রুমি রহমানের সাথেই সংসার জীবনে আবদ্ধ ছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ জীবনে একাকী জীবন কাটছিল তার।

মায়ের হাত ধরেই অভিনয়ে আসেন তাজিন আহমেদ। মা দিলারা জলির প্রোডাকশন হাউজ ছিল। তিনি দীর্ঘদিন থিয়েটারেও অভিনয় করেছেন। ‘নাট্যজন’ থিয়েটারের হয়ে বেশকিছু নাটকে তিনি অভিনয় করেন। এরপর ‘আরণ্যক’ নাট্যদলের হয়ে ‘ময়ূর সিংহাসন’ নাটকে কাজ করেছিলেন। এতে তিনি বলাকা চরিত্রে অভিনয় করেন। তার সর্বশেষ অভিনীত মঞ্চনাটক এটি।

অভিনয়ের বাইরে লেখালেখির কাজেও যুক্ত ছিলেন তাজিন। লিখেছেন একাধিক নাটক। আর নিয়মিত মিডিয়ায় সময় দিতে না পারলেও উপস্থাপনায় ছিলেন বেশ দাপুটে। এনটিভিতে প্রচারিত ‘টিফিনের ফাঁকে’ অনুষ্ঠানে টানা ১০ বছর উপস্থাপনা করেন তিনি। একাত্তর টিভিতেও ‘একাত্তরের সকালে’ হাজির হয়েছেন তিনি।

তাজিন আহমেদ রাজনৈতিক সংগঠন ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (এনডিএম)’-এ যোগ দিয়েছিলেন। দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির বিভাগীয় সম্পাদক (সাংস্কৃতিক) পদে দায়িত্বপালন করেছেন তিনি। দীর্ঘদিন ধরেই ঢাকায় একা বসবাস করে আসছেন। স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর তার মেকাপ আর্টিস্টই তাকে দেখাশোনা করতেন। মূলত বিটিভিযুগীয় অভিনেত্রী ছিলেন তাজিন আহমেদ। ওই সময়ে বিটিভির দর্শকদের কাছে তুমুল জনপ্রিয় একটি নাম হয়ে উঠেন তিনি।