বৈশাখীর ঈদ আয়োজনে ২৭ নাটক
jugantor
বৈশাখীর ঈদ আয়োজনে ২৭ নাটক

  বিনোদন প্রতিবেদন  

৩০ জুন ২০২২, ০৫:৩২:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বৈশাখী টেলিভিশনের ঈদ আয়োজনে থাকছে ২৭টি নাটক। অভিনয় করেছেন অপূর্ব, নিশো, মেহেজাবীন, সাবিলা, ফারান, তিশা, জোভান, তৌসিফ, ফারিনসহ জনপ্রিয় তারকারা।

এ ছাড়া রয়েছে সাতটি সিনেমা, জনপ্রিয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সংগীতানুষ্ঠান, ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান এবং বিশেষ কমেডি শো ফানি মোমেন্টসহ নানা আয়োজন।

প্রতিদিন রাত ৮টা ১০ মিনিট ও রাত ৯টা ৫০ মিনিটে প্রচার হবে দুটি করে একক নাটক। এবার ঈদে ১২টি নাটকের গল্প লিখেছেন পুরস্কারপ্রাপ্ত গল্পকার বৈশাখী টিভির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন। এর মধ্যে ৫টি একক নাটক ও দুটি ৭ পর্বের ধারাবাহিক এবং পাঁচটি মেগানাটক।

পাঁচটি একক হলো- গোলাম সারোয়ার অনিকের চিত্রনাট্যে নাসিরুদ্দীন মাসুদের পরিচালনায় ‘বিসর্জন’। অভিনয় করেছেন এফএস নাঈম, নাজিয়া হক অর্ষা, তানিন সুবাহ, শেলী আহসান প্রমুখ।

সুবাতা রাহিক জারিফার চিত্রনাট্যে, জিয়াউর রহমান জিয়ার পরিচালনায় রাশেদ সীমান্ত, অহনা, শফিক খান দিলু, অলিউল হক রুমি অভিনীত ‘বরিশাল টু ঢাকা’, ইউসুফ আলী খোকনের চিত্রনাট্য জামাল মল্লিকের পরিচালনায় ‘কোর্ট ম্যারেজ’ নাটকে অভিনয় করেছেন ইয়াশ রোহান, নিশাত প্রিয়ম, বড়দা মিঠু, মাসুম বাসার প্রমুখ।

আকাশ রঞ্জনের চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় ‘পরিণতি’। এতে অভিনয় করেছেন সাঈদ বাবু, তানজিকা আমিন, মারিয়া মিম, প্রিয়াংকা জামান, টাইগার রবি প্রমুখ। আরফান আহমেদের পরিচালনায় ‘বাকর খানি’। এ নাটকের গুরুত্বপূর্ণ দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন আরফান আহমেদ ও নাদিয়া মীম। টিপু আলম মিলনের লেখা দুটি সাত পর্বের ধারাবাহিক হলো- ইউসুফ আলী খোকনের চিত্রনাট্যে, মজিবুল হক খোকনের পরিচালনায় ‘পরিপূর্ণ ভালোবাসা’।

এতে অভিনয় করেছেন মুকিত জাকারিয়া, সুমন পাটোয়ারী, উর্মিলা শ্রাবন্তী কর, মৌমিতা মৌ প্রমুখ। আহসান আলমগীরের চিত্রনাট্যে, আল হাজেনের পরিচালনায় ‘শিয়াল বাড়ি-৩’। এতে অভিনয় করেছেন রাশেদ সীমান্ত, মৌসুমী হামিদ, আমিরুল হক চৌধুরী, আরফান আহমেদ, মিলন ভট্ট, স্বর্ণলতা, শেলী আহসান প্রমুখ। পাঁচটি মেগানাটকের মধ্যে- আকাশ রঞ্জনের পরিচালনায় ‘ভাইরাল ভিডিও’, আল হাজেনের পরিচালনায় ‘শিয়াল বাড়ি-২’, আহমেদ রোহান রুবেল ও হানিফ খানের পরিচালনায় ‘বাগানবাড়ি’, এসএ হক অলিকের পরিচালনায় ‘কোরবানির বিরাট হাট’, আকাশ রঞ্জনের পরিচালনায় ‘বার্থ ডে পুশিং’। অন্যান্য একক নাটকের মধ্যে বিইউ শুভর পরিচালনায় অপূর্ব, সাবিলা অভিনীত ‘বিপদ সংকেত’, মুহাম্মদ মিফতাহ্ আনানের পরিচালনায় তৌসিফ-তানজিন তিশা অভিনীত ‘কোথাও কেউ ভালো নেই’, মহিদুল মহিনের পরিচালনায় ফারান, তানজিন তিশা অভিনীত ‘বেলা শেষে’, ওসমান মির্জার পরিচালনায় নিলয়, সানজানা রিয়া অভিনীত ‘বস যখন গার্ল ফ্রেন্ড’, মুহাম্মদ মিফতাহ্ আনান পরিচালিত তৌসিফ, কেয়া পায়েল অভিনীত ‘পিরিতের ছেড়া খ্যাতা’, ইমরুল রাফাতের পরিচালনায় জোভান, তাসনিয়া ফারিন অভিনীত টুইন ট্রাবল, সবুজ খানের পরিচালনায় শ্যামল মওলা, নাদিয়া খানম অভিনীত ‘কান্নাঘর’, মৃত্যুঞ্জয় সরদারের পরিচালনায় রাশেদ সীমান্ত, শশী অভিনীত ‘বাবার পুরস্কার’, সাদেক সিদ্দিকীর পরিচালনায় শিপন মিত্র ও ম্যেমিতা মৌ অভিনীত ‘ভালোবাসার রং তামাশা’। এ ছাড়া মহিদুল মহিনের পরিচালনায় আফরান নিশো, মেহজাবীন অভিনীত নাটকটির নাম এখনো চূড়ান্ত হয়নি। বিশেষ সংগীতানুষ্ঠানগুলোর মধ্যে ঈদের সাত দিন সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে প্রচার হবে বৈশাখীর সকালের গান’। লিটু সোলায়মানের প্রযোজনায় অংশ নেবেন রিজিয়া পারভীন, খুরশীদ আলম, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, হায়দার হেসেন, ফেরদৌস আরা, বাদশা বুলবুল ও শফি মণ্ডল।

ঈদের সাত দিন বেলা ১১টায় প্রচার হবে বিশেষ সংগীতানুষ্ঠান ‘গানে গানে ঈদ আনন্দ’। লিটু সোলায়মানের প্রযোজনায় এ অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন কণ্ঠশিল্পী সালমা ও তার দল, কনা, আগুন ও নদী, গামছা পলাশ ও মুনিয়া মুন, আতিক হাসান ও অনুপমা মুক্তি, ইউসুফ আহমেদ খান ও চম্পা বনিক। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করবেন তাসনুভা মোহনা, আফরিন অথৈ, অনন্যা প্রীতি, সানজিদা তন্বী, আইনুন পুতুল ও ইশরাত জাহান জুঁই।

শাহ্ আলমের প্রযোজনায় এবং চিত্রনায়িকা তানহা তাসনিয়ার উপস্থাপনায় ঈদের সাত দিন দুপুর ১টায় প্রচার হবে চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় গান নিয়ে অনুষ্ঠান ‘শুধু সিনেমার গান’। দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে বৈশাখী টিভিতে প্রচারিত বিভিন্ন নাটকে ব্যবহৃত গান নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান নাটকের গান। দুপুর ১২টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে কমেডি শো ফানি মোমেন্ট। বৈশাখী টিভিতে প্রচারিত বিভিন্ন নাটকের হাস্যরস ও ফান নিয়েই এ অনুষ্ঠান।

ঈদের সাত দিন দুপুর ২টা ৪০ মিনিট থেকে প্রচার হবে সাতটি সিনেমা। বৈশাখী টেলিভিশনের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন বলেন, বৈশাখী টেলিভিশনের মূল লক্ষ্যই হচ্ছে- দর্শকদের বিনোদন দেওয়া।

কতটুকু সফল হতে পারব সে বিচারের ভার দর্শকদের, যাদের ভালোবাসা আর অনুপ্রেরণায় আমরা এতটা পথ পেরিয়ে এসেছি। তবে এবারের ব্যতিক্রমী আয়োজনে সব শ্রেণির দর্শক যে বিনোদিত হবে এতে কোনো সন্দেহ নেই।

বৈশাখীর ঈদ আয়োজনে ২৭ নাটক

 বিনোদন প্রতিবেদন 
৩০ জুন ২০২২, ০৫:৩২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বৈশাখী টেলিভিশনের ঈদ আয়োজনে থাকছে ২৭টি নাটক। অভিনয় করেছেন অপূর্ব, নিশো, মেহেজাবীন, সাবিলা, ফারান, তিশা, জোভান, তৌসিফ, ফারিনসহ জনপ্রিয় তারকারা।

এ ছাড়া রয়েছে সাতটি সিনেমা, জনপ্রিয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সংগীতানুষ্ঠান, ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান এবং বিশেষ কমেডি শো ফানি মোমেন্টসহ নানা আয়োজন। 

প্রতিদিন রাত ৮টা ১০ মিনিট ও রাত ৯টা ৫০ মিনিটে প্রচার হবে দুটি করে একক নাটক। এবার ঈদে ১২টি নাটকের গল্প লিখেছেন পুরস্কারপ্রাপ্ত গল্পকার বৈশাখী টিভির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন। এর মধ্যে ৫টি একক নাটক ও দুটি ৭ পর্বের ধারাবাহিক এবং পাঁচটি মেগানাটক।

পাঁচটি একক হলো- গোলাম সারোয়ার অনিকের চিত্রনাট্যে নাসিরুদ্দীন মাসুদের পরিচালনায় ‘বিসর্জন’। অভিনয় করেছেন এফএস নাঈম, নাজিয়া হক অর্ষা, তানিন সুবাহ, শেলী আহসান প্রমুখ।

সুবাতা রাহিক জারিফার চিত্রনাট্যে, জিয়াউর রহমান জিয়ার পরিচালনায় রাশেদ সীমান্ত, অহনা, শফিক খান দিলু, অলিউল হক রুমি অভিনীত ‘বরিশাল টু ঢাকা’, ইউসুফ আলী খোকনের চিত্রনাট্য জামাল মল্লিকের পরিচালনায় ‘কোর্ট ম্যারেজ’ নাটকে অভিনয় করেছেন ইয়াশ রোহান, নিশাত প্রিয়ম, বড়দা মিঠু, মাসুম বাসার প্রমুখ।

আকাশ রঞ্জনের চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় ‘পরিণতি’। এতে অভিনয় করেছেন সাঈদ বাবু, তানজিকা আমিন, মারিয়া মিম, প্রিয়াংকা জামান, টাইগার রবি প্রমুখ। আরফান আহমেদের পরিচালনায় ‘বাকর খানি’। এ নাটকের গুরুত্বপূর্ণ দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন আরফান আহমেদ ও নাদিয়া মীম।  টিপু আলম মিলনের লেখা দুটি সাত পর্বের ধারাবাহিক হলো- ইউসুফ আলী খোকনের চিত্রনাট্যে, মজিবুল হক খোকনের পরিচালনায় ‘পরিপূর্ণ ভালোবাসা’।

এতে অভিনয় করেছেন মুকিত জাকারিয়া, সুমন পাটোয়ারী, উর্মিলা শ্রাবন্তী কর, মৌমিতা মৌ প্রমুখ। আহসান আলমগীরের চিত্রনাট্যে, আল হাজেনের পরিচালনায় ‘শিয়াল বাড়ি-৩’। এতে অভিনয় করেছেন রাশেদ সীমান্ত, মৌসুমী হামিদ, আমিরুল হক চৌধুরী, আরফান আহমেদ, মিলন ভট্ট, স্বর্ণলতা, শেলী আহসান প্রমুখ।  পাঁচটি মেগানাটকের মধ্যে- আকাশ রঞ্জনের পরিচালনায় ‘ভাইরাল ভিডিও’, আল হাজেনের পরিচালনায় ‘শিয়াল বাড়ি-২’, আহমেদ রোহান রুবেল ও হানিফ খানের পরিচালনায় ‘বাগানবাড়ি’, এসএ হক অলিকের পরিচালনায় ‘কোরবানির বিরাট হাট’, আকাশ রঞ্জনের পরিচালনায় ‘বার্থ ডে পুশিং’।  অন্যান্য একক নাটকের মধ্যে বিইউ শুভর পরিচালনায় অপূর্ব, সাবিলা অভিনীত ‘বিপদ সংকেত’, মুহাম্মদ মিফতাহ্ আনানের পরিচালনায় তৌসিফ-তানজিন তিশা অভিনীত ‘কোথাও কেউ ভালো নেই’, মহিদুল মহিনের পরিচালনায় ফারান, তানজিন তিশা অভিনীত ‘বেলা শেষে’, ওসমান মির্জার পরিচালনায় নিলয়, সানজানা রিয়া অভিনীত ‘বস যখন গার্ল ফ্রেন্ড’, মুহাম্মদ মিফতাহ্ আনান পরিচালিত তৌসিফ, কেয়া পায়েল অভিনীত ‘পিরিতের ছেড়া খ্যাতা’, ইমরুল রাফাতের পরিচালনায় জোভান, তাসনিয়া ফারিন অভিনীত টুইন ট্রাবল, সবুজ খানের পরিচালনায় শ্যামল মওলা, নাদিয়া খানম অভিনীত ‘কান্নাঘর’, মৃত্যুঞ্জয় সরদারের পরিচালনায় রাশেদ সীমান্ত, শশী অভিনীত ‘বাবার পুরস্কার’, সাদেক সিদ্দিকীর পরিচালনায় শিপন মিত্র ও ম্যেমিতা মৌ অভিনীত ‘ভালোবাসার রং তামাশা’। এ ছাড়া মহিদুল মহিনের পরিচালনায় আফরান নিশো, মেহজাবীন অভিনীত নাটকটির নাম এখনো চূড়ান্ত হয়নি।  বিশেষ সংগীতানুষ্ঠানগুলোর মধ্যে ঈদের সাত দিন সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে প্রচার হবে বৈশাখীর সকালের গান’। লিটু সোলায়মানের প্রযোজনায় অংশ নেবেন রিজিয়া পারভীন, খুরশীদ আলম, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, হায়দার হেসেন, ফেরদৌস আরা, বাদশা বুলবুল ও শফি মণ্ডল।  

ঈদের সাত দিন বেলা ১১টায় প্রচার হবে বিশেষ সংগীতানুষ্ঠান ‘গানে গানে ঈদ আনন্দ’। লিটু সোলায়মানের প্রযোজনায় এ অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন কণ্ঠশিল্পী সালমা ও তার দল, কনা, আগুন ও নদী, গামছা পলাশ ও মুনিয়া মুন, আতিক হাসান ও অনুপমা মুক্তি, ইউসুফ আহমেদ খান ও চম্পা বনিক। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করবেন তাসনুভা মোহনা, আফরিন অথৈ, অনন্যা প্রীতি, সানজিদা তন্বী, আইনুন পুতুল ও ইশরাত জাহান জুঁই। 

শাহ্ আলমের প্রযোজনায় এবং চিত্রনায়িকা তানহা তাসনিয়ার উপস্থাপনায় ঈদের সাত দিন দুপুর ১টায় প্রচার হবে চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় গান নিয়ে অনুষ্ঠান ‘শুধু সিনেমার গান’।  দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে বৈশাখী টিভিতে প্রচারিত বিভিন্ন নাটকে ব্যবহৃত গান নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান নাটকের গান। দুপুর ১২টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে কমেডি শো ফানি মোমেন্ট। বৈশাখী টিভিতে প্রচারিত বিভিন্ন নাটকের হাস্যরস ও ফান নিয়েই এ অনুষ্ঠান। 

ঈদের সাত দিন দুপুর ২টা ৪০ মিনিট থেকে প্রচার হবে সাতটি সিনেমা।   বৈশাখী টেলিভিশনের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন বলেন, বৈশাখী টেলিভিশনের মূল লক্ষ্যই হচ্ছে- দর্শকদের বিনোদন দেওয়া।

কতটুকু সফল হতে পারব সে বিচারের ভার দর্শকদের, যাদের ভালোবাসা আর অনুপ্রেরণায় আমরা এতটা পথ পেরিয়ে এসেছি। তবে এবারের ব্যতিক্রমী আয়োজনে সব শ্রেণির দর্শক যে বিনোদিত হবে এতে কোনো সন্দেহ নেই।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন