‘যাকে ইচ্ছা ভালোবাসার, মন মতো পোশাক পরার স্বাধীনতা যেন পাই’
jugantor
‘যাকে ইচ্ছা ভালোবাসার, মন মতো পোশাক পরার স্বাধীনতা যেন পাই’

  অনলাইন ডেস্ক  

১৫ আগস্ট ২০২২, ১৬:৪৬:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

শুরু থেকেই বিতর্ক, সমালোচনার আতঙ্কে মুখে কুলুপ না এঁটে মিমি নিজের কথা বলেছেন। নিজের মতো করে ছক ভেঙেছেন বারবার। অভিনেত্রীদের যোগ্য সম্মান বা পারিশ্রমিকের জন্য লড়াই হোক বা লিঙ্গ বৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ— সব ক্ষেত্রেই তিনি সরব।

মিমি চক্রবর্তীর কাছে স্বাধীনতার অর্থ কী? স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে সে কথাই জানিয়ে দিলেন সংসাদ সদস্য ও টালিউড অভিনেত্রী।

সোমবার ইনস্টাগ্রামে একটি সংক্ষিপ্ত ভিডিও পোস্ট করেন মিমি। সেখানেই নিজের সব বক্তব্য রেখেছেন তিনি। বললেন, আশা করি, আমরা সকলে যেন প্রত্যেক দিন প্রকৃত অর্থে স্বাধীনতা খুঁজে পাই। নিজেদের কথা বলার স্বাধীনতা যেন পাই। যাকে ইচ্ছা ভালোবাসার, মনের মতো নিজেকে গড়ে তোলার স্বাধীনতাও যেন পাই।

শুরু থেকেই বিতর্ক, সমালোচনার আতঙ্কে মুখে কুলুপ না এঁটে মিমি নিজের কথা বলেছেন। নিজের মতো করে ছক ভেঙেছেন বারবার। অভিনেত্রীদের যোগ্য সম্মান বা পারিশ্রমিকের জন্য লড়াই হোক বা লিঙ্গবৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ— সব ক্ষেত্রেই তিনি সরব। স্বাধীনতা দিবসে ভেদাভেদহীন এক সমাজের স্বপ্ন দেখেছেন সাংসদ-অভিনেত্রী। যেখানে ইচ্ছে মতো পোশাক পরার, নিজের মতো করে দেশকে ভালোবাসা স্বাধীনতা থাকবে। তার কথায়, যা কিছু আমাদের বৈচিত্রের মাঝে ঐক্যকে নষ্ট করতে পারে, সেগুলি থেকেও যেন আমরা স্বাধীনতা পাই।

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে মিমির এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন অনুরাগীরা। পোস্টের কমেন্ট বক্সে শুভেচ্ছা বার্তা দিয়েছেনে অনেকেই। রোববার হাতে তেরঙা নিয়েও লেন্সবন্দি হয়েছিলেন অভিনেত্রী। বিবরণীতে লেখেন, আমাদের দেশ, আমার সম্ভ্রম, আমার গর্ব।

২০১০ সালে ঋতুপর্ণ ঘোষের 'গানের ওপারের হাত ধরে মিমির অভিনয়ে শুরু হয়। ধারাবাহিকের পর কাজ শুরু করেন বড় পর্দায়। এর পর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ২০১৯ সালে শুরু হয় তার রাজনৈতিক সফর। একাধারে অভিনেত্রী এবং সাংসদ। দুই দায়িত্বই মন দিয়ে পালন করছেন তিনি।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

‘যাকে ইচ্ছা ভালোবাসার, মন মতো পোশাক পরার স্বাধীনতা যেন পাই’

 অনলাইন ডেস্ক 
১৫ আগস্ট ২০২২, ০৪:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শুরু থেকেই বিতর্ক, সমালোচনার আতঙ্কে মুখে কুলুপ না এঁটে মিমি নিজের কথা বলেছেন। নিজের মতো করে ছক ভেঙেছেন বারবার। অভিনেত্রীদের যোগ্য সম্মান বা পারিশ্রমিকের জন্য লড়াই হোক বা লিঙ্গ বৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ— সব ক্ষেত্রেই তিনি সরব।

মিমি চক্রবর্তীর কাছে স্বাধীনতার অর্থ কী? স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে সে কথাই জানিয়ে দিলেন সংসাদ সদস্য ও টালিউড অভিনেত্রী।

সোমবার ইনস্টাগ্রামে একটি সংক্ষিপ্ত ভিডিও পোস্ট করেন মিমি। সেখানেই নিজের সব বক্তব্য রেখেছেন তিনি। বললেন, আশা করি, আমরা সকলে যেন প্রত্যেক দিন প্রকৃত অর্থে স্বাধীনতা খুঁজে পাই। নিজেদের কথা বলার স্বাধীনতা যেন পাই। যাকে ইচ্ছা ভালোবাসার, মনের মতো নিজেকে গড়ে তোলার স্বাধীনতাও যেন পাই।

শুরু থেকেই বিতর্ক, সমালোচনার আতঙ্কে মুখে কুলুপ না এঁটে মিমি নিজের কথা বলেছেন। নিজের মতো করে ছক ভেঙেছেন বারবার। অভিনেত্রীদের যোগ্য সম্মান বা পারিশ্রমিকের জন্য লড়াই হোক বা লিঙ্গবৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ— সব ক্ষেত্রেই তিনি সরব। স্বাধীনতা দিবসে ভেদাভেদহীন এক সমাজের স্বপ্ন দেখেছেন সাংসদ-অভিনেত্রী। যেখানে ইচ্ছে মতো পোশাক পরার, নিজের মতো করে দেশকে ভালোবাসা স্বাধীনতা থাকবে। তার কথায়, যা কিছু আমাদের বৈচিত্রের মাঝে ঐক্যকে নষ্ট করতে পারে, সেগুলি থেকেও যেন আমরা স্বাধীনতা পাই।

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে মিমির এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন অনুরাগীরা। পোস্টের কমেন্ট বক্সে শুভেচ্ছা বার্তা দিয়েছেনে অনেকেই। রোববার হাতে তেরঙা নিয়েও লেন্সবন্দি হয়েছিলেন অভিনেত্রী। বিবরণীতে লেখেন, আমাদের দেশ, আমার সম্ভ্রম, আমার গর্ব।

২০১০ সালে ঋতুপর্ণ ঘোষের 'গানের ওপারের হাত ধরে মিমির অভিনয়ে শুরু হয়। ধারাবাহিকের পর কাজ শুরু করেন বড় পর্দায়। এর পর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ২০১৯ সালে শুরু হয় তার রাজনৈতিক সফর। একাধারে অভিনেত্রী এবং সাংসদ। দুই দায়িত্বই মন দিয়ে পালন করছেন তিনি।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন