সেই রনিকে আর বিয়ে করছেন না নুসরাত
jugantor
সেই রনিকে আর বিয়ে করছেন না নুসরাত

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯:৫০:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘ সাত বছর গোপনে প্রেম করেন অভিনেত্রী নুসরাত ফারিয়া ও রনি রিয়াদ রশিদ। ২০২০ সালের মার্চে বাগদানও সারেন। ওই বছরের ১২ জুন আংটি বদলের একটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেন ফারিয়া।

ওই সময়ফারিয়া জানিয়েছিলেন, ডিসেম্বরে আয়োজন করে বিয়ে করবেন তারা। কিন্তু দুই বছর পার হতে চললেও বিয়ে নিয়ে আর কোনো কথা বলেননি এই অভিনেত্রী।

বাগদানের পরও তার বিয়ে না করা নিয়ে বেশকিছু দিন ধরেই ফিসফাস চলছিল মিডিয়া অঙ্গনে। বিষয়টি নায়িকার নজরে আনার পর সবকিছু খোলাসা করেছেন তিনি।

গতকাল বুধবার একটি গণমাধ্যমকে নুসরাত বলেছেন, ‘বিয়ে আর হবে না, করছি না।’

কেন করছেন না? জানতে চাইলে অভিনেত্রীর সোজা জবাব- এত জানার দরকার কী? ইন্ডাস্ট্রিতে অন্তত একজন নায়িকা সিঙ্গেল থাক না।

তিনি মনে করেন, জোর করে বিয়ে, বাচ্চা- এসব দরকার নাই তো। একটু রিলাক্সে, একটু শান্তিতে থাকতে চান।

এত আয়োজন করে রনির সঙ্গে আংটি বদল হলো- এরপর এমন কী হলো যে, বিয়ে না করারই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেন; এমন প্রশ্নে নুসরাত বলেন, জীবনে ওঠা-নামা তো থাকবেই। আমাদের নিজেদের ভেতরে কোনো সমস্যা নাই, কোনো দ্বিধাদ্বন্দ্ব নাই, কখনো হয়নি। কিন্তু বিয়েটা আর হচ্ছে না।

এই অভিনেত্রীর ভাষ্য- রনির সঙ্গে আমার সব সময়ই যোগাযোগ আছে। সারা জীবনই বন্ধুর মতো সম্পর্ক থাকবে তার সঙ্গে। এখন যে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এটি দুজনের বোঝাপড়ার সিদ্ধান্ত।

নুসরাত আরও বলেন, হুজুগের বশে কোনো কিছু করা ঠিক না। এতে দীর্ঘ সময়ের ভোগান্তিটা আমারই হবে। এ কারণে ঠাণ্ডা মাথায় যা করার, সেটাই করছি আমি। সেভাবেই চলার চেষ্টা করি, করছি। আমার কাছে মনে হয়েছে আমাদের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক থাকলে সম্পর্কটি দীর্ঘস্থায়ী হবে।

এছাড়া বিয়ের পর বিচ্ছেদ নিয়ে ভয়ের শঙ্কাও প্রকাশ করেছেন নায়িকা। তিনি বলেন, আশপাশে অনেক বিচ্ছেদের খবরে আমার ভয় লাগে। কারণ আমাদের পরিবার, আত্মীয়স্বজনের মধ্যে এই বিবাহবিচ্ছেদের বিষয়টি নাই। এটি আমার জন্য একটা মানসিক ট্রমা।

রনি ছাড়া অন্য কোথায় বিয়ের ব্যাপারে পরিবার থেকে কোনো চাপ আছে কিনা- এ বিষয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, হুম, পরিবার থেকে বিয়ের বিষয়ে চাপ আছে। কিন্তু আমি এখন যেভাবে, যে পরিমাণ কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছি, বিয়ের বিষয়টি আসলে আমি কাজে সময় দিতে পারব না। সুতরাং কাজ ফেলে এখনই বিয়ে করব না।

তবে তিনি মনে করেন, একসময় না একসময় বিয়ে তো করতেই হবে। যখন হবে তখন দেখা যাবে। এটি নিয়ে বাড়তি কোনো চাপ নেই মাথায়।

উল্লেখ্য, বাগদানের সময় হবু বর সম্পর্কে বিস্তারিত না জানাননিনুসরাত। তবে নায়িকার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছিল, নুসরাতেরহবু স্বামী রনি রিয়াদ রশিদ একটি টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তা। তিনি সাবেক সেনাপ্রধান লে. জে. হারুন-অর-রশীদের ছেলে।

২০১৫ সালে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘আশিকি’র মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন নুসরাত ফারিয়া। এরপর ‘হিরো ৪২০’, ‘বাদশা দ্য ডন’, ‘বস-টু’, ‘প্রেমী ও প্রেমী’, ‘ধ্যাততেরিকি’-সহ বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। এর সবই যৌথ প্রযোজনার ছবি। একক বাংলাদেশি প্রযোজনায় তার অভিনীত ছবি ‘শাহেনশাহ’। এ ছবিতে তিনি শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেন।

সেই রনিকে আর বিয়ে করছেন না নুসরাত

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘ সাত বছর গোপনে প্রেম করেন অভিনেত্রী নুসরাত ফারিয়া ও রনি রিয়াদ রশিদ। ২০২০ সালের মার্চে বাগদানও সারেন। ওই বছরের ১২ জুন আংটি বদলের একটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেন ফারিয়া। 

ওই সময় ফারিয়া জানিয়েছিলেন, ডিসেম্বরে আয়োজন করে বিয়ে করবেন তারা। কিন্তু দুই বছর পার হতে চললেও বিয়ে নিয়ে আর কোনো কথা বলেননি এই অভিনেত্রী। 

বাগদানের পরও তার বিয়ে না করা নিয়ে বেশকিছু দিন ধরেই ফিসফাস চলছিল মিডিয়া অঙ্গনে। বিষয়টি নায়িকার নজরে আনার পর সবকিছু খোলাসা করেছেন তিনি। 

গতকাল বুধবার একটি গণমাধ্যমকে নুসরাত বলেছেন, ‘বিয়ে আর হবে না, করছি না।’   

কেন করছেন না? জানতে চাইলে অভিনেত্রীর সোজা জবাব- এত জানার দরকার কী? ইন্ডাস্ট্রিতে অন্তত একজন নায়িকা সিঙ্গেল থাক না। 

তিনি মনে করেন, জোর করে বিয়ে, বাচ্চা- এসব দরকার নাই তো। একটু রিলাক্সে, একটু শান্তিতে থাকতে চান।

এত আয়োজন করে রনির সঙ্গে আংটি বদল হলো- এরপর এমন কী হলো যে, বিয়ে না করারই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেন; এমন প্রশ্নে নুসরাত বলেন, জীবনে ওঠা-নামা তো থাকবেই। আমাদের নিজেদের ভেতরে কোনো সমস্যা নাই, কোনো দ্বিধাদ্বন্দ্ব নাই, কখনো হয়নি। কিন্তু বিয়েটা আর হচ্ছে না।

এই অভিনেত্রীর ভাষ্য- রনির সঙ্গে আমার সব সময়ই যোগাযোগ আছে। সারা জীবনই বন্ধুর মতো সম্পর্ক থাকবে তার সঙ্গে। এখন যে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এটি দুজনের বোঝাপড়ার সিদ্ধান্ত।

নুসরাত আরও বলেন, হুজুগের বশে কোনো কিছু করা ঠিক না। এতে দীর্ঘ সময়ের ভোগান্তিটা আমারই হবে। এ কারণে ঠাণ্ডা মাথায় যা করার, সেটাই করছি আমি। সেভাবেই চলার চেষ্টা করি, করছি। আমার কাছে মনে হয়েছে আমাদের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক থাকলে সম্পর্কটি দীর্ঘস্থায়ী হবে।

এছাড়া বিয়ের পর বিচ্ছেদ নিয়ে ভয়ের শঙ্কাও প্রকাশ করেছেন নায়িকা। তিনি বলেন, আশপাশে অনেক বিচ্ছেদের খবরে আমার ভয় লাগে। কারণ আমাদের পরিবার, আত্মীয়স্বজনের মধ্যে এই বিবাহবিচ্ছেদের বিষয়টি নাই। এটি আমার জন্য একটা মানসিক ট্রমা।

রনি ছাড়া অন্য কোথায় বিয়ের ব্যাপারে পরিবার থেকে কোনো চাপ আছে কিনা- এ বিষয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, হুম, পরিবার থেকে বিয়ের বিষয়ে চাপ আছে। কিন্তু আমি এখন যেভাবে, যে পরিমাণ কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছি, বিয়ের বিষয়টি আসলে আমি কাজে সময় দিতে পারব না। সুতরাং কাজ ফেলে এখনই বিয়ে করব না।

তবে তিনি মনে করেন, একসময় না একসময় বিয়ে তো করতেই হবে। যখন হবে তখন দেখা যাবে। এটি নিয়ে বাড়তি কোনো চাপ নেই মাথায়।

উল্লেখ্য, বাগদানের সময় হবু বর সম্পর্কে বিস্তারিত না জানাননি নুসরাত। তবে নায়িকার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছিল, নুসরাতের হবু স্বামী রনি রিয়াদ রশিদ একটি টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তা। তিনি সাবেক সেনাপ্রধান লে. জে. হারুন-অর-রশীদের ছেলে।

২০১৫ সালে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘আশিকি’র মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন নুসরাত ফারিয়া। এরপর ‘হিরো ৪২০’, ‘বাদশা দ্য ডন’, ‘বস-টু’, ‘প্রেমী ও প্রেমী’, ‘ধ্যাততেরিকি’-সহ বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। এর সবই যৌথ প্রযোজনার ছবি। একক বাংলাদেশি প্রযোজনায় তার অভিনীত ছবি ‘শাহেনশাহ’। এ ছবিতে তিনি শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন