১ অক্টোবর: হাসতে নেই মানা
jugantor
১ অক্টোবর: হাসতে নেই মানা

  যুগান্তর ডেস্ক  

০১ অক্টোবর ২০২০, ১০:১২:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ


* জোকস-১

মেয়ে: আমি মা হতে চলেছি।
মা: কোথায় গেছিলি বংশের মুখ কালো করার জন্য? বল তাড়াতাড়ি, নইলে সিমেন্টের সাথে দেয়ালে একেবারে প্যাকেট করে রেখে দেব!
মেয়ে: স্কুলের একটা নাটকে ‘মা’র চরিত্রে অভিনয় করতে চলেছি আমি।

* জোকস-২

গতকাল রাতে এক বন্ধু রনিকে একটি মেসেজ দিয়েছে। মেসেজটি পড়ে রনি ভয়ে লাফিয়ে উঠলো। মেসেজটি ছিল এ রকম-
‘প্রিয় বন্ধু, এখন আমার হাতে এক বোতল বিষ। আমি মুক্তি পেতে চাই। এত জ্বালা আমার আর সহ্য হয় না, এত যন্ত্রণা আর ভালো লাগে না। আমি রাতে ঘুমাতে পারি না, ঠিকমত খেতে পারি না। সব সময় রুমের ভেতর একটু বেশি যেন অস্থির থাকি, যেটা আমাকে ভীষণ কষ্ট দেয়। তাই যাচ্ছি… ইঁদুর মারতে। শুভ রাত্রি!’

* জোকস-৩

বিকেলে দুই বন্ধু বসে বসে আলাপ করছে—
প্রথম বন্ধু: জানিস দোস্ত, আমার আব্বু না ভীষণ ভুলোমনা আর বেখেয়ালি। আমি প্রতিদিন আব্বুর মানিব্যাগ থেকে টাকা চুরি করি, আব্বু খেয়ালই করে না।
দ্বিতীয় বন্ধু: তবুও তো ভালো! আমার আব্বু এতই ভুলোমনা যে, তার মানিব্যাগে টাকা রাখতেই ভুলে যায়!

* জোকস-৪

পাড়ার এক ছেলেকে দাঁড় করিয়ে মেয়ের বাবা বলল—
মেয়ের বাবা: ইভটিজিং ও ভালোবাসার মাঝে পার্থক্য কী?
ছেলে: মেয়েরা রাজি থাকলে ভালোবাসা আর না থাকলে হয় ইভটিজিং।
মেয়ের বাবা: তুমি কি ইভটিজিং কর?
ছেলে: না, আপনার মেয়ে তো রাজিই!

১ অক্টোবর: হাসতে নেই মানা

 যুগান্তর ডেস্ক 
০১ অক্টোবর ২০২০, ১০:১২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ


* জোকস-১

মেয়ে: আমি মা হতে চলেছি।
মা: কোথায় গেছিলি বংশের মুখ কালো করার জন্য? বল তাড়াতাড়ি, নইলে সিমেন্টের সাথে দেয়ালে একেবারে প্যাকেট করে রেখে দেব!
মেয়ে: স্কুলের একটা নাটকে ‘মা’র চরিত্রে অভিনয় করতে চলেছি আমি।

* জোকস-২

গতকাল রাতে এক বন্ধু রনিকে একটি মেসেজ দিয়েছে। মেসেজটি পড়ে রনি ভয়ে লাফিয়ে উঠলো। মেসেজটি ছিল এ রকম-
‘প্রিয় বন্ধু, এখন আমার হাতে এক বোতল বিষ। আমি মুক্তি পেতে চাই। এত জ্বালা আমার আর সহ্য হয় না, এত যন্ত্রণা আর ভালো লাগে না। আমি রাতে ঘুমাতে পারি না, ঠিকমত খেতে পারি না। সব সময় রুমের ভেতর একটু বেশি যেন অস্থির থাকি, যেটা আমাকে ভীষণ কষ্ট দেয়। তাই যাচ্ছি… ইঁদুর মারতে। শুভ রাত্রি!’

* জোকস-৩

বিকেলে দুই বন্ধু বসে বসে আলাপ করছে—
প্রথম বন্ধু: জানিস দোস্ত, আমার আব্বু না ভীষণ ভুলোমনা আর বেখেয়ালি। আমি প্রতিদিন আব্বুর মানিব্যাগ থেকে টাকা চুরি করি, আব্বু খেয়ালই করে না।
দ্বিতীয় বন্ধু: তবুও তো ভালো! আমার আব্বু এতই ভুলোমনা যে, তার মানিব্যাগে টাকা রাখতেই ভুলে যায়!

* জোকস-৪

পাড়ার এক ছেলেকে দাঁড় করিয়ে মেয়ের বাবা বলল—
মেয়ের বাবা: ইভটিজিং ও ভালোবাসার মাঝে পার্থক্য কী?
ছেলে: মেয়েরা রাজি থাকলে ভালোবাসা আর না থাকলে হয় ইভটিজিং।
মেয়ের বাবা: তুমি কি ইভটিজিং কর?
ছেলে: না, আপনার মেয়ে তো রাজিই!