স্পেন প্রবাসী আল আমীনের বাংলাদেশি সবজি চাষে সাফল্য

  কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে ২২ অক্টোবর ২০১৮, ২১:৩৩ | অনলাইন সংস্করণ

স্পেনে দেশীয় সবজি চাষ

প্রবাসীদের কাছে দেশীয় খাবারের কদর থাকলেও আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে প্রবাসজীবনে অনেকেই সে স্বাদ থেকে বঞ্চিত হন।

আর সে কথা মাথায় রেখেই স্পেনের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, শিল্পপতি ও ঢাকা ফ্রুটাসের চেয়ারম্যান আল আমীন মিয়া ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিস্তৃত মাঠজুড়ে সরকারি অনুমোদন নিয়ে শুরু করেছেন দেশীয় শাকসবজির ফলন।

মাদ্রিদের নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে পরীক্ষামূলকভাবে আবাদ করছেন বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি। নিজেদের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব ও প্রতিবেশীদের মাঝেও তারা বিলিয়ে দিচ্ছেন পারিবারিক বাগানে চাষ করা টাটকা শাকসবজি।

মাদ্রিদের শহরতলি টোলেডোর টেম্বলেকে গ্রামে প্রায় ১০ হাজার মিটার আবাদি জমি সরকারি অনুমোদন নিয়ে দেশি লাউ, লালশাক, মিষ্টি কুমড়া এবং স্পেনিশ কালাবাচীনের চাষ করেছেন তিনি।

আবাদি জমি ভাড়া নিয়ে প্রাথমিকভাবে শখ করে দেশীয় সবজি চাষ করে এ মৌসুমে পেয়েছেন দেশীয় সবজির স্বাদ। তবে বাজারে এসব সবজির চড়া মূল্য থাকায় আল আমিন মিয়া এসব সবজি নিজের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব ও প্রতিবেশীদের সম্পূর্ণ বিনামূল্যে বিলিয়ে দিচ্ছেন।

রোববার আল আমীন মিয়া তার চাষকৃত এসব সবজি সংগ্রহের জন্য প্রবাসীদের নিয়ে যান তার চাষকৃত জমিতে এবং প্রবাসীরা যে যার চাহিদামতো সংগ্রহ করেন সবজি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর, গ্রেটার ঢাকা অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সোহেল ভূঁইয়া, গ্রেটার সিলেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. লুৎফুর রহমান, অল ইউরোপ বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক কবির আল মাহমুদ, কমিউনিটি নেতা এসএম মাসুদ, খলিলুর রহমান, মো. ইকবাল, সাঈদ আনোয়ার প্রমুখ।

বিদেশিদের কাছে এসব সবজি অপরিচিত হলেও প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে তা ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। দেশীয় স্বাদ পেতে অনেকেই এসব সবজি সংগ্রহ করছেন আনন্দ মনে।

আল আমিন মিয়া বলেন, এখানে সার বা পানির তেমন সমস্যা নেই। মাটি খুবই উপযোগী সবজি ফলনের জন্য। তাই বাংলাদেশি যে কেউ ইচ্ছে করলে এ পেশায় আসতে পারেন। এতে একদিকে যেমন দেশীয় শাকসবজির স্বাদ পাওয়া যাবে। অপরদিকে অর্থনৈতিকভাবেও লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সবজি সংগ্রহ করতে আসা কমিউনিটি ব্যক্তিরা আল আমীন মিয়ার ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, ব্যক্তিগত চাহিদা মিটিয়ে এসব শাকসবজি বাণিজ্যিকভাবেও বাজারজাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter