কফি হাউজের আড্ডাখানা হবে আরো মজার

প্রকাশ : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:১৩ | অনলাইন সংস্করণ

  রহমান মৃধা, সুইডেন থেকে

আজ থেকে ঠিক ২৫ বছর আগে খুব কম লোকের ভাগ্যেই সুযোগ হয়েছিল মোবাইল ফোন ব্যবহার করার। এরিক্সসন টেলিকমিউনিকেশন তখন বলতে গেলে পৃথিবীর ফ্রন্ট পেজে নতুন প্রযুক্তির দিক দিয়ে।

আমি আমার মোবাইল টেলিফোনে কথা বলছি আর হাঁটছি। হঠাৎ এক মহিলা চিৎকার করে বলছে ‘হেলপ হেলপ সে আমাকে কি যেন বলছে?’ কিছুক্ষন পরে একটি লোক আমাকে জিজ্ঞেস করল ‘তুমি কি বলেছ মহিলাকে? আমি বল্লাম কৈ নাতো কিছুই না?’ মহিলা বললো হ্যাঁ তুমি আমাকে অনেক কিছু বলেছ।’ আমি বললাম ‘দেখো কোথাও ভুল হচ্ছে, আমি স্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথা বলতে বলতে হাঁটছি আর তুমি পাশ দিয়ে তোমার মত যাচ্ছো, তুমি কোথাও ভুল করছো। মহিলা এবং লোকটি সব শুনে এবং আমার হাতের টেলিফোন দেখে অবাক হয়েছিল সেদিন সুইডেনে।

আজ সবার হাতে মোবাইল ফোন পৃথিবীর সর্বত্র। ওই একই সময়ে NASA (National Aeronautics and Space Administration) চাঁদে জমি বিক্রি করছে জানলাম। আমার এক আমেরিকান বন্ধু জন বেনান জানলো সে কিনবে আমি ইচ্ছুক কিনা! জিজ্ঞেস করলাম দাম কত সে জানলো কাঠা ২০০ ডলার তবে জায়গা একটু ছায়া কারণ ভালো জায়গাগুলো আগেই বিক্রি হয়ে গেছে। জনকে বললাম দেখ একটু কম দামে কেনা যায় কিনা, পরে দামাদামি করে দুই কাটা কেনা হলো ৩০০ ডলার দিয়ে। প্রতি বছর কর দিতে হয় ২০ ডলার।

তখন ভেবেছিলাম বাংলাদেশ ছেড়ে যখন সুইডেনে আসতে পেরেছি চাঁদে যাওয়া অসম্ভব হবে না। গত বছর বন্ধু জন সে জমি বিক্রি করে দেয়, খরচ খরচা বাদে লাভ হয়েছে ৫০০ ডলার। ভাবছি যদি চাঁদে বসতবাড়ি হয়, বেড়াতে যাবো একবার বেঁচে থাকলে।

যাইহোক ঘটে যাওয়া ঘটনা সম্বন্ধে লিখেছি বেশ। এখন ভাবনাতে ঢুকেছে যা ঘটেনি তবে ঘটতে পারে তার ওপর কিছু লেখি। যদি বলি আগামী ১০ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে আমরা টাকা, পয়সা বা ব্যাংকের কার্ড ছাড়াই কেনাবেচা করবো শুধু আমাদের হাতের বুড়ো আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে। আঙ্গুলের ছাপ সনাক্ত করবে আমাদেরকে।

এ ধরণের প্রযুক্তি শুরু হয়েছে অনেক ক্ষেত্রে। কি মনে হয় যদি আমি বলি আমাদের শরীরের যে কোন অংশে একটি সিম কার্ড বসানো হবে এবং সব ধরনের খবর সেখানে আসবে। টেলিফোন বা কোন ডিভাইস দরকার হবে না।

শুধু তাই নয়, চোখের পর্দায় পৃথিবীর কোথায় কি ঘটছে তা দেখতে পারবো। চোখের পলক ফেলবো আর নতুন খবর দেখবো যা আজ রিমোট কন্ট্রোলের মাধ্যমে আমরা করে থাকি।

আমাদের কোন ডাক্তারের দরকার হবে না। ডাক্তার আর ঠকাতে পারবে না। পারবে না রুগিকে নানা ধরণের শারীরিক সমস্যার কথা বলে ক্লিনিকে পাঠাতে এবং চেকআপ করাতে, সঙ্গে ৩০-৪০% কমিশন খেতে। হঠাৎ হার্টে সমস্যা দেখা দিয়েছে, শরীরের ভেতর যে সিম কার্ড ঢুকানো রয়েছে তা সহজেই মনিটরিং করে আমাদেরকে জানাবে শারীরিক সমস্যার কথা।

একই সঙ্গে রাস্তাঘাটে বা আশেপাশে থাকবে অটোমেটিক মেসিন যেখানে ওষুধ থেকে শুরু করে দরকারি জিনিসপত্র থাকবে।

সমস্যার কারনসহ একটি কোড নং চোখের সামনে এসে হাজির হবে, সেই কোড নং ব্যবহার করে যে ওষুধের প্রয়োজন তা সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে সমস্যার সমাধান করা যাবে। স্কুল কলেজের দরকার থাকবে বলে মনে হয় না। তখন আর চিন্তা করতে হবে না কিভাবে নকল বন্ধ করতে হবে। সুশিক্ষার জন্য লেখালিখিও করা লাগবে না। কাগজের টাকা চলবে না। দূর্নীতি করার উপায়ও থাকবে না। কেনাকাটা করতে তো শুধু বুড়ো আঙ্গুলের ছাপ দরকার হবে। অন্যায় করার তেমন ব্যবস্থা থাকবে না। যা দরকার তা সহজেই পাওয়া যাবে। বুঝতে অসুবিধা হলে বা ভাষাগত সমস্যা থাকলে তাও সহজ উপায়ে বিশ্লেষন থেকে শুরু করে যা দরকার সব ব্যাবস্থা থাকবে।

কাজ করতে অফিসে যাওয়া লাগবে না কারন হনুলুলুতে ছুটিতে থাকা অবস্থায় বাংলাদেশের সমস্যার সমাধান করা যাবে এবং বাংলাদেশের সমস্যা তখন গ্লোবাল সমস্যা হবে তাই বাংলার মানুষকে ভাবতে হবে না সমাধান খুঁজতে। পানি সম্মন্ধে কিছু বলি। কারণ পানি নিয়ে আমার ভাবনা কয়েক বছর আগে থেকে। পানি সত্যি এক বিস্মকর পদার্থ। পানির বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষন এখনও মানব জাতির অজানা। যদিও আমরা এর ব্যবহার করে চলছি দেদারছে। এত পানি থাকতেও পৃথিবীতে ব্যবহারযোগ্য পানির অভাব এটাও একটি চিন্তার বিষয়। আমি যেটা ভেবেছি তা হলো একদিন আমরাই এ পানিকে ভেঙ্গে এর অক্সিজেন এবং হাইড্রোজেনকে পৃথক করতে সক্ষম হবো। তখন তেলের পরিবর্তে ব্যবহার হবে হাইড্রোজেন আর অক্সিজেন জীবজন্তু ব্যবহার করবে।

আমাদের কাজ হবে শুধু তেলের পরিবর্তে পানি ব্যবহার করা। আজ পর্যন্ত আমরা শুধু পানি পান করতে, রান্না করতে, শরীর পরিষ্কার করতে এবং আরও কিছু ছোটখাটো কাজে পানির ব্যবহার শিখেছি মাত্র।

মানবজাতি যত জানবে তার নিজের অস্তিত্ব সম্পর্কে তত সচেতন হবে। আমাদের শরীরের কাজকর্ম থেকে শুরু করে ব্রেনের বিভিন্ন চিন্তা চেতনা এর সব কিছুই কপি করা যাবে। আমরা যেমন খাবার খাই এবং আমাদের বেঁচে থাকার জন্য যা দরকার তার সবই শরীর স্টেপ বাই স্টেপ তার মতো করে তৈরি করে।

ঠিক তেমন করে প্রযুক্তি তৈরি করা হবে যা নিজের মতো করে চলবে এবং ভাববে। যেহেতু আমরা এ উন্নতির জন্য কাজ করবো তাই স্বাভাবিক ভাবেই আমাদের বিলাসিতা বাড়তে থাকবে। পৃথিবীর বেশির ভাগ মানুষ কিছুই করবে না। তারা শুধু আনন্দ ফুর্তিতে মেতে থাকবে। কিছু লোক ক্রিয়েটিভ হবে এবং নতুনত্বের আবির্ভাব ঘটাবে সারা বিশ্বের মানব কল্যানের জন্য।

দিনে একটি ট্যাবলেট খেলেই যা দরকার শরীর তা পেয়ে যাবে। মানুষের শারীরিক গঠনের পরিবর্তন হতে থাকবে। মানুষ চলাচল করবে তার নিজের মতো করে, ইচ্ছে মতো যেখানে খুশি যাবে, ফ্লাই করতে চাইলে করবে কোন রকম ট্রাফিক সমস্যা ছাড়াই।

আরো অনেক কিছু যা লিখার ইচ্ছে ছিলো কিন্তু আজ আর নয়। চিন্তাকে কর্মে প্রতিফলিত না হওয়া পর্যন্ত সবাই বলবে এসব শুধুই কল্পনা। তবুও বলে রাখি সব কিছুই না জানা, না শোনা, না দেখার আগে কিন্তু অজানা ছিল।

আমরা কি আগে ব্যাকটেরিয়া দেখেছি? এখন তার চোদ্দগুস্টি চিনি। যাইহোক চেনা জানার ভাবনা থেকে বর্তমানে ফিরে এক কাপ কফি পান করতে রান্না ঘরে যেতে হবে।

মারিয়া আমার সহধর্মীনি অপেক্ষা করছে। কফি হাউজের আড্ডা খানা থাকবে। কারণ বন্ধু বান্ধবীদের সঙ্গে আড্ডা মারা সঙ্গে চা-কফি পান করা এতে মজাই আলাদা, এ বাদ দিয়ে বেঁচে থাকার চেয়ে মরে যাওয়া অনেক ভালো। তাই বলি চলো এক কাপ চা বা কফি সঙ্গে প্রিয় মানুষটিকে নিয়ে কিছুক্ষণ হয়ে যাক কিছু হৃদয় ছোয়া মুহুর্ত, কিছু আশা আর কিছু ভালোবাসার প্রত্যাশা। এসো হে বন্ধু এসো মজা করি।