মিডসামারে সুইডেনের আকাশে ২৪ ঘণ্টা সূর্য

  রহমান মৃধা, দূরপরবাস সুইডেন ২৩ জুন ২০১৯, ২০:২৫:৪১ | অনলাইন সংস্করণ

সুইডেনে এ বছর মিডসামার আয়োজনের একটি অংশ। ছবি: লেখক

জানার নেই শেষ, দেখারও নেই শেষ। তারপর হঠাৎ আবার সব কিছুর হবে একদিন শেষ। কবে তা শেষ হবে জানি না। তবে যা জানি তা নিয়ে বলব কিছু কথা। ২৪ ঘণ্টাই সূর্যের আলো দেখা যায় ২২ জুন। দিনটির নাম মিডসামার এবং এই দিনের উৎসব নিয়ে আসুন কিছু তথ্য জেনে নেই।

প্রাক-খ্রিস্টীয় সময়ে মিডসামারকে উদযাপন করা হয়েছে কিনা তা জানা নেই। কিন্তু ৩০০ এর দশকের প্রথম দিকে চার্চে সেন্ট জন ব্যাপটিস্টের জন্মদিন পালন করা হত ২৪ জুন। কারণটি ছিল ব্যাপটিস্টের ছয় মাস পরে যিশু জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

যারা খ্রিস্টান ধর্মে বিশ্বাসী তারা তখন সাধারণত মিডসামার উদযাপন করত। সম্ভবত ১৩০০ সাল থেকে ধর্মীয়ভাবে মিডসামার পালন করা হয়। পরে মিডসামার পালন করা একটি ট্র্যাডিশনে পরিণত হয়েছে।

কেউ কেউ যুক্তি দেয় যে মিডসামার দিনটি বছরের দীর্ঘতম দিন এই কারণে তারা মিডসামার উদযাপন করে। এখন ধর্ম বা ট্র্যাডিশন যাই হোক না কেন, মিডসামার পালন করা সুইডিশদের জন্য একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

সাধারণত জুন মাসের তৃতীয় সপ্তাহের শুক্রবারকে মিডসামার ডে বলা হয়। এখন এই শুক্রবার হতে পারে ১৯-২৫ জুনের মধ্যে। ১৯৫৩ সালের আগ পর্যন্ত ২৩ জুন মিডসামার পালন করা হতো।

এ বছর জুনের তৃতীয় শুক্রবার ছিল ২২ জুন; তাই উদযাপিত হলো মিডসামার হই হুল্লোড়ের মধ্য দিয়ে। সূর্য উদয় হয় এ সময় রাত ২-৩ টার দিকে এবং অস্ত যায় রাত ১০-১১ টার দিকে। বলতে গেলে পুরো সময়টিই দিনের আলোয় আলোকিত।

২২ জুন দিনটি সুইডেনের সব চেয়ে দীর্ঘ দিন হয়ে থাকে বিশেষ করে নর্থে। এসময় সূর্য সারাক্ষণই দেখা যায়। পৃথিবীর বহু দেশের ভ্রমণকারীরা সাধারণত এ সময় সুইডেনের নর্থে ভ্রমণ করে থাকে পুরো দিনটিকে উপভোগ করার জন্য।

এই তো ১৬৩৩ সালের কথা। পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘুরছে- এই অভিমতের জন্য গ্যালিলিও গ্যালিলির বিচার শুরু হয়। শেষে তার কথাই সত্যি হয়েছিল। পরে জানা গেলো সূর্য কখনও উদয় বা অস্ত যায় না। পৃথিবী ঘোরার কারণে দিন রাতের পরিবর্তন হয়।

এসব রহস্যের আসল তথ্য জানতে হলে সুইডেনের নর্থে ভ্রমণ করতে হবে। বিশেষ করে সুইডিশ মিডসামারে। দিনটি সুইডিশদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং দিনটিকে সুইডিশ মিডসামার বলা হয়।

সুইডিশ মিডসোমারস্টংয় (midsommarstång)-এর চারপাশে হাতে হাত ধরে সুইডিশ জাতীয় পোশাক পরে সবাই নাচ-গান, আনন্দ-ফুর্তির মধ্যে দিয়ে দিনটি পালন করে।

প্রথমে বড় একটি লম্বা গাছকে পাতা দিয়ে সাজানো হয়। গাছের উপরের অংশে গাছের ডাল দিয়ে ত্রিভুজের মত করে পরে গাছের পাতা দিয়ে তাকে আবরণ করা হয়।

ত্রিভুজের দুই কোনায় দাড়ি পাল্লার মত করে দুটো রিং ঝুলন্ত অবস্থায় তৈরি করা হয়। সুন্দর করে সেই রিং দুটোকেও পাতা দিয়ে সাজিয়ে সুইডিশ পতাকার রংয়ের ফিতা দিয়ে তাকে সাজানো হয়। পরে সবাই মিলে পুরো গাছটিকে মাটিতে দাঁড় করায়।

তার পর সেই সাজানো গাছের (যাকে সুইডিশ ভাষায় বলা হয় midsommarstång) চার পাশ দিয়ে সবাই হাতে হাত ধরে নাচগান করে। দিনের খাবারের মেনুটা একটু ভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে।

এই দিনে এদের খাবারে মাছ, ডিম, ফল, গোস্ত এবং স্পেশাল ড্রিঙ্কস থাকে যাকে বলা হয় স্ন্যাপ্স। স্ন্যাপ্সের সঙ্গে নানা ধরণের খাবার এবং বিশেষ ধরণের গান যা তারা এক সঙ্গে গায়।

বাইরে খোলামেলা জায়গায় সবাই একত্রে জড়িত হয় এবং চলতে থাকে নাচগান এবং খানাপিনা। সুইডেন শীতের দেশ হওয়ায় যখনই গরমের আবির্ভাব ঘটে তখনই আনন্দের সঙ্গে এরা তাকে বরণ করে।

সামারের দিনগুলোকে তারা সত্যি উপভোগ করে মনের আনন্দে। বলতে হয় গরমকে বরণ করাই মিডসামার পালন করার মূল উদ্দেশ্য। সুইডেনের মিডসামার সুইডিশ জাতির জীবনের এক রোমান্টিক সময়।

যারা এ মুহূর্তটি উপলোদ্ধি করেছে তাঁরাই জানে এর অনুভূতি। মিডসামারের পরেরদিন থেকে দিনের আলো কমতে শুরু করে সেইসঙ্গে আস্তে আস্তে শরতের আবির্ভাব হতে থাকে।

গাছের পাতা নানা রঙে রঙিন হয়ে প্রকৃতিকে সৌন্দর্যে মাতাল করে তোলে। দেখে যেন মনে হয় পুরো সুইডেন পেইন্টিংয়ে সাজানো শৈল্পিক এক দেশ...।

রহমান মৃধা, দূরপরবাস সুইডেন, [email protected]

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

ঘটনাপ্রবাহ : রহমান মৃধার কলাম

আরও

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত