প্লিজ কাম ব্যাক ফর বেটার লাইফ

  রহমান মৃধা, সুইডেন থেকে ১০ অক্টোবর ২০১৯, ২০:১৬ | অনলাইন সংস্করণ

বেটার লাইফ

শিক্ষা প্রশিক্ষণে যখন সুশিক্ষা বা ক্রিয়েটিভ শিক্ষা বন্ধ হয়ে গেছে, সংসদ ভবনে যখন বিরোধীদলের কোনও ভয়েজ নেই, প্রশাসনে যখন কোনও শাসন নেই, জনগণের যখন কোনও ভোটের অধিকার নেই, সাংবাদিকদের মুখে যখন কোনও প্রশ্ন নেই, তখন আছে শুধু চামচার দল। এ এক বড় দল, এ দলের বিরুদ্ধে কথা না বলে বরং দলের প্রশংসা করাই শ্রেয়। তাই সবাই প্রশংসা করছে।

অন্যদিকে জনগণের কোনও একত্মতা নেই, নেই কোনও নেতা, যাকে সবাই মান্য করে। সবাই সাংবাদিক হয়েছে, কিন্তু প্রশ্ন করার সাহস নেই। প্রশ্ন করলেও সঠিক উত্তরের পরিবর্তে পাল্টা প্রশ্ন, কেন এধরনের প্রশ্ন? ক্ষমতার বাহাদুরি, যার কারণে প্রশ্ন মনঃপুত না হলে সাংবাদিকতা থাকবে না তেমন একটি হুমকি, যা নেতাদের অহংকারী একটি মনোভাব (arrogant an attitude)।

যদি সব দায়িত্ব বা কর্তব্যের জন্য প্রধানমন্ত্রীকেই সিদ্ধান্ত নিতে হয় তাহলে কি দরকার আছে এতগুলো মন্ত্রণালয়ের এবং কেনই বা গরিবের পেটে লাথি মেরে সেই অর্থ দিয়ে তাদেরকে (মন্ত্রীদের) রাখা হয়েছে? এ প্রশ্ন করার সাহস হারিয়েছে জাতি। পুলিশের আইজিপির কাজ প্রধানমন্ত্রীকে নয়, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন করা। কিন্তু না তিনি সরাসরি ফোন করেছেন প্রধানমন্ত্রীকে।

কারণ কি? তাহলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কি ঘুমাচ্ছিলেন তখন? দেশ চলছে ম্যানেজমেন্ট বাই থ্রেট কনসেপ্টে, যেখানে ম্যানেজমেন্ট বাই অবজেকটিভসের কোনও বালাই নেই। বলা যেতে পারে যাজকতন্ত্রের (hierarchy) শাসনতন্ত্র। যার কারণে প্রধানমন্ত্রীই শুধু জেগে জেগে দেশ চালাচ্ছেন বাকি সব ঘুমোচ্ছেন। কথাটি মনে রাখবেন সবাই। ভালো আমরাও বাসি আমাদের দেশকে, ভুলে যাবেন না সে কথা।

এদিকে সবাই আমরা নেতা সেজেছি, আমাদের নাম ডিজিটাল নেতা। কারণ ফেসবুকে আমরা আমাদের নেতাগিরি করি এবং সবাই মনে করি ফেসবুকে আমি আমার মন্তব্য করেছি এবং অনেকেই লাইক দিয়েছে তার মানে আমার যা করার তা করতে পেরেছি। এদিকে জনগণকে শোষণ করে সব সুযোগ সুবিধা প্রশাসনকে দেয়া হচ্ছে বিধায় তারা সরকারের নির্দেশানুযায়ী কাজ করছে।

বিশ্ব জানছে দেশে গণতন্ত্রের বন্যা বয়ে চলছে এবং সরকার জঙ্গী এবং সন্ত্রাসী দমনে ১০০% কাজ করে চলছে। কূটনৈতিকবৃন্দ ১০০% নিশ্চয়তা পাচ্ছে এবং বিলাসিতায় জীবনযাপন করছে বিধায় তাদের ধারণা দেশে গণতন্ত্র সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। সব মিলে বাংলাদেশ ডুইং গুড।

যে দেশে সবাই পণ্ডিত হয়েছে সে দেশে শিক্ষারও তেমন দরকার নেই। শাসন, শোষণ এবং ভাষণে সবাই পাকা। সাথে সবাই হয়েছে উপদেষ্টা। যার কারণে সরকার তার নিজের গতিতে চলছে, চলবে। সরকার যখন এতোই খারাপ তাহলে কিভাবে তিন তিন বার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় ৯০% এর উপর ভোট পেয়ে জয়লাভ করে!

শিক্ষার্থী হয়েছে সন্ত্রাসী, শিক্ষকরা হয়েছে সরকারের দালাল, প্রশাসন হয়েছে ডিক্টেটর, জনগণ হয়েছে ভাষ্যকার, রাণী হয়েছে রাজরাণী। সাউথ এশিয়ার 'মাদার অব হিউম্যানিটি'র দেশ হয়েছে বাংলাদেশ। যেখানে রোহিঙ্গার বসেছে মেলা, খেলছে বিশ্ব দাবার খেলা। এটাই আমার দেশ, আমার বাংলাদেশ।

শিক্ষার্থী রাজনীতি করে বুঝলাম, কিন্তু বেতনভুক্ত শিক্ষকরাও রাজনীতি করে? এ কোন দেশ, এ আমার বাংলাদেশ।

ভেজাল, আর্সেনিক, কেমিক্যালযুক্ত খাবার এবং পানাহারের সঙ্গে যোগ হয়েছে মদ, গাঁজা এবং ইয়াবা, যার কারণে বেশির ভাগ মানুষ চিকিৎসার জন্য দৌঁড়াদৌঁড়ি করছে সিঙ্গাপুর আর ইন্ডিয়া। চলছে নানা ধরনের অপারেশন বেঁচে থাকার জন্য। বেঁচে থাকতে দরকার পাহাড় সমান টাকা, তাইতো করেছে দেশকে ফাঁকা। দুর্নীতি হয়েছে নীতি আর মসজিদ, হ্জ্জ এবং মন্দিরে যাওয়া হয়েছে গতি।

স্বামী-স্ত্রীর দৈহিক ইন্টিমেট সম্পর্কে ব্যবহার হচ্ছে ভায়াগ্রা (viagra) বা আর্টিফিশিয়াল যন্ত্রপাতি, কারণ ভালোবাসায় নেই কোন মজা, তাই ধরছে হাতে গাঁজা। এটাই যদি বেঁচে থাকার চাবিকাঠি হয় তাহলে বলতে হবে we are living in hell already.

আমি ভাবছি পরবর্তী প্রজন্মের কথা। আজকের এ জীবন আগামী প্রজন্মের মরণ। yesterday has past, today is running and tomorrow is coming. Currently the future of Bangladesh is under construction so let’s join for better BANGLADESH.

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×