লেবাননে হাত-পা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় বাংলাদেশি নারীর মৃতদেহ উদ্ধার
jugantor
লেবাননে হাত-পা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় বাংলাদেশি নারীর মৃতদেহ উদ্ধার

  ওয়াসীম আকরাম, লেবানন থেকে  

০২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮:৪৬:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

লেবাননে মিনু বেগম (পায়েল) নামে এক বাংলাদেশি নারীকর্মী খুন হয়েছে। তার দেশে বাড়ি ঢাকার আশুলিয়া থানায়। নিহত পায়েলের একটি হাত ও একটি পা বিছিন্ন অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করে স্থানীয় লেবানন পুলিশ।

শনিবার (৩০ নভেম্বর) স্থানীয় সময় রাত ৮টায় রাজধানী বৈরুতের আসরাফিয়ে এলাকায় একটি বাসা থেকে পায়েলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানান, জামসেদ মিয়া ওরফে ফারুক নামের এক বাংলাদেশির সঙ্গে পায়েল
live together বসবাসরত ছিল। প্রায় তিন মাস আগে অন্যত্র থেকে এসে আসরাফিয়ে এলাকায় বাসাভাড়া করে থাকত তারা।

গত তিনদিন যাবত তাদের বাসায় তালাবদ্ধ দেখা যায় এবং পাশে থাকা বাংলাদেশিদের সন্দেহ হয় এবং দুর্গন্ধ পেয়ে বাসার মালিককে জানায়।

পরে বাসার মালিক ২/৪ বাংলাদেশি সঙ্গে নিয়ে তালা ভেঙে বিছানার নিচে দেখতে পায় পলিথিন মোড়ানো মরদেহ।

স্থানীয় পুলিশকে খবর দিলে ময়না তদন্তের জন্য পায়েলের মরদেহ তাদের হেফাজতে নিয়ে যায়। বাসায় এবং আশপাশে খুঁজেও পায়েলের বিছিন্ন হাত ও পা পাননি পুলিশ। ঘাতক হাত-পা কেটে নিয়ে গেছে এমনটাই ধারণা হচ্ছে।

বর্তমানে পায়েলের live togethe সঙ্গী কুমিল্লা জেলার সুরুজনগর গ্রামের ফারুক পলাতক রয়েছেন। তার খোঁজে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

এমন হত্যাকাণ্ডে আসরাফিয়ে এলাকাসহ পুরো লেবানন প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ এ হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জড়িত ব্যক্তিকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত শাস্তির দাবি জানান।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

লেবাননে হাত-পা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় বাংলাদেশি নারীর মৃতদেহ উদ্ধার

 ওয়াসীম আকরাম, লেবানন থেকে 
০২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লেবাননে মিনু বেগম (পায়েল) নামে এক বাংলাদেশি নারীকর্মী খুন হয়েছে। তার দেশে বাড়ি ঢাকার আশুলিয়া থানায়। নিহত পায়েলের একটি হাত ও একটি পা বিছিন্ন অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করে স্থানীয়  লেবানন পুলিশ।

শনিবার (৩০ নভেম্বর) স্থানীয় সময় রাত ৮টায় রাজধানী বৈরুতের আসরাফিয়ে এলাকায় একটি বাসা থেকে পায়েলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানান, জামসেদ মিয়া ওরফে ফারুক নামের এক বাংলাদেশির সঙ্গে পায়েল
live together  বসবাসরত ছিল। প্রায় তিন মাস আগে অন্যত্র থেকে এসে আসরাফিয়ে এলাকায় বাসাভাড়া করে থাকত তারা।

গত তিনদিন যাবত তাদের বাসায় তালাবদ্ধ দেখা যায় এবং পাশে থাকা বাংলাদেশিদের সন্দেহ হয়  এবং দুর্গন্ধ পেয়ে বাসার মালিককে জানায়।

পরে বাসার মালিক ২/৪ বাংলাদেশি সঙ্গে নিয়ে তালা ভেঙে বিছানার নিচে দেখতে পায় পলিথিন মোড়ানো মরদেহ।

স্থানীয় পুলিশকে খবর দিলে ময়না তদন্তের জন্য পায়েলের মরদেহ তাদের হেফাজতে নিয়ে যায়। বাসায় এবং আশপাশে খুঁজেও পায়েলের বিছিন্ন হাত ও পা পাননি পুলিশ। ঘাতক হাত-পা কেটে নিয়ে গেছে এমনটাই ধারণা হচ্ছে।

বর্তমানে  পায়েলের live togethe সঙ্গী কুমিল্লা জেলার সুরুজনগর গ্রামের ফারুক পলাতক রয়েছেন। তার খোঁজে বিভিন্ন  জায়গায় অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

এমন হত্যাকাণ্ডে আসরাফিয়ে এলাকাসহ পুরো লেবানন প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ এ হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জড়িত ব্যক্তিকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত শাস্তির দাবি জানান।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]