‘বঙ্গমাতা চিরায়ত বাংলার প্রতিচ্ছবি, বাঙালির প্রেরণার উৎস’
jugantor
‘বঙ্গমাতা চিরায়ত বাংলার প্রতিচ্ছবি, বাঙালির প্রেরণার উৎস’

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে  

১০ আগস্ট ২০২০, ২১:০১:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ৮ আগস্ট এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন লেবার কাউন্সলের (শ্রম-২) হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিবের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত, ১৫ আগস্টের সকল শহীদ এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। বঙ্গমাতার জীবন সম্পর্কিত প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এ দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রদত্ত বাণী পাঠ করেন যথাক্রমে ডিফেন্স অ্যাডভাইজার কমোডর মুশতাক আহমেদ এবং ডেপুটি হাইকমিশনার ওয়াহিদা আহমেদ।

অনুষ্ঠানে হাইকমিশনার শহীদুল ইসলাম বঙ্গমাতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিব বঙ্গবন্ধুর সমগ্র জীবনে প্রেরণা ও সাহস দিয়েছেন। তিনি একদিকে সংসার ও সন্তানদের লালন-পালন করেছেন, অন্যদিকে স্বাধীনতা ও মুক্তির সংগ্রামে প্রেরণা দিয়েছেন। স্বাধীনতার পর নির্যাতিত অসহায় নারীদের পুনর্বাসন করেছেন। তিনি চিরায়ত বাংলার প্রতিচ্ছবি এবং বাঙ্গালির প্রেরণার উৎস।

তিনি বলেন, এমন মহিয়সী নারীকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে স্বামী-পুত্র-পুত্রবধূসহ নিজ বাসভবনে ঘাতকচক্রের হাতে নির্মমভাবে শহীদ হতে হয়েছে, যা জাতির ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায়।

অনুষ্ঠানে আরও আলোচনা করেন লেবার কাউন্সেলর মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন করে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

‘বঙ্গমাতা চিরায়ত বাংলার প্রতিচ্ছবি, বাঙালির প্রেরণার উৎস’

 আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে 
১০ আগস্ট ২০২০, ০৯:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ৮ আগস্ট এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন লেবার কাউন্সলের (শ্রম-২) হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিবের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত, ১৫ আগস্টের সকল শহীদ এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। বঙ্গমাতার জীবন সম্পর্কিত প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এ দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রদত্ত বাণী পাঠ করেন যথাক্রমে ডিফেন্স অ্যাডভাইজার কমোডর মুশতাক আহমেদ এবং ডেপুটি হাইকমিশনার ওয়াহিদা আহমেদ।

অনুষ্ঠানে হাইকমিশনার শহীদুল ইসলাম বঙ্গমাতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিব বঙ্গবন্ধুর সমগ্র জীবনে প্রেরণা ও সাহস দিয়েছেন। তিনি একদিকে সংসার ও সন্তানদের লালন-পালন করেছেন, অন্যদিকে স্বাধীনতা ও মুক্তির সংগ্রামে প্রেরণা দিয়েছেন। স্বাধীনতার পর নির্যাতিত অসহায় নারীদের পুনর্বাসন করেছেন। তিনি চিরায়ত বাংলার প্রতিচ্ছবি এবং বাঙ্গালির প্রেরণার উৎস।

তিনি বলেন, এমন মহিয়সী নারীকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে স্বামী-পুত্র-পুত্রবধূসহ নিজ বাসভবনে ঘাতকচক্রের হাতে নির্মমভাবে শহীদ হতে হয়েছে, যা জাতির ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায়।

অনুষ্ঠানে আরও আলোচনা করেন লেবার কাউন্সেলর মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন করে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
 
আরও খবর