লেবানন থেকে দেশে ফিরেছেন ৪০৬ প্রবাসী বাংলাদেশি
jugantor
লেবানন থেকে দেশে ফিরেছেন ৪০৬ প্রবাসী বাংলাদেশি

  ওয়াসীম আকরাম, লেবানন থেকে  

২১ আগস্ট ২০২০, ২১:১৪:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে ৪০৬ কাগজপত্রবিহীন প্রবাসী বাংলাদেশি দেশে ফিরেছেন।

বৈরুত রফিক হারিরি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় বিকাল ৪টা ২০ মিনিটে ফ্লাইটটি রওনা হয়ে বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

লেবাননে দীর্ঘ প্রায় দশ-এগারো মাস আগে থেকে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, ডলার সংকট ও করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে এখানে হাজার হাজার প্রবাসী কর্মহারা, অর্ধাহার-অনাহারে জীবনযাপন করছেন। এছাড়া অবৈধ হওয়ার পথেও হাজার হাজার প্রবাসী।

অনেক কোম্পানি নবায়ন করছে না তাদের শ্রমিকদের আকামা। ইতোমধ্যে কিছু কোম্পানি শ্রমিকদের দেশেও পাঠিয়ে দিয়েছে। নিয়মিত ফ্লাইট না থাকায় দেশে ফিরতে পারছেন না বৈধ প্রবাসীরাও।

এর আগে সেপ্টেম্বরে বিশেষ সুযোগে পুরুষদের চার লাখ এবং মহিলাদের তিন লাখ লেবানিজ পাউন্ড জরিমানা এবং বিমান টিকিট বাবদ তিনশ' আমেরিকান ডলার জমা দিয়ে দেশে ফিরতে নাম নিবন্ধন করেন প্রায় সাড়ে সাত হাজারের অধিক প্রবাসী বাংলাদেশি।

ওই সময় প্রায় দেড় হাজার প্রবাসী দেশে ফিরতে পারলেও করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে লকডাউন, ফ্লাইট ও বিমানবন্দর বন্ধের কারণে বাকিরা ফিরতে পারেননি।

৪ আগস্ট লেবাননের বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণে প্রায় দুই শতকের অধিক লোক মারা যান এবং প্রায় সাত হাজারের অধিক আহতের ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশ সরকার সহযোগিতাস্বরূপ খাদ্যসামগ্রী, ওষুধ ও ওষুধসামগ্রী পাঠান বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একটি বিমানে। আর সেই বিমানে লেবানন থেকে ৭১ জন প্রবাসী দেশে প্রথম ফিরে আসেন।

দায়িত্বপ্রাপ্ত নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. জাহাঙ্গীর আল মোস্তাহিদুর রহমান পিএসসি বাংলাদেশ বিমান পরিবহন সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা করেন।

১৭ আগস্ট পূর্বের নিবন্ধনকৃত ৪১০ জন বিশেষ ব্যবস্থায় রফিক হারিরি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দেশে ফিরেছেন।

বাংলাদেশের একমাত্র সরকারি এবং জাতীয় পতাকাবাহী বিমান পরিবহন সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে লেবাননের বাংলাদেশ দূতাবাসের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. জাহাঙ্গীর আল মোস্তাহিদুর রহমান পিএসসি ও প্রথম সচিব (শ্রম) ও দূতালয় প্রধান আব্দুল্লাহ আল মামুনের আন্তরিক প্রচেষ্টায় দ্বিতীয়বারের মতো ৪০৬ জন কাগজপত্রবিহীন বাংলাদেশি বিশেষ ফ্লাইটে দেশের উদ্দেশে রওনা দেন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

লেবানন থেকে দেশে ফিরেছেন ৪০৬ প্রবাসী বাংলাদেশি

 ওয়াসীম আকরাম, লেবানন থেকে 
২১ আগস্ট ২০২০, ০৯:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে ৪০৬ কাগজপত্রবিহীন প্রবাসী বাংলাদেশি দেশে ফিরেছেন।

বৈরুত রফিক হারিরি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় বিকাল ৪টা ২০ মিনিটে ফ্লাইটটি রওনা হয়ে বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

লেবাননে দীর্ঘ প্রায় দশ-এগারো মাস আগে থেকে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, ডলার সংকট ও করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে এখানে হাজার হাজার প্রবাসী কর্মহারা, অর্ধাহার-অনাহারে জীবনযাপন করছেন। এছাড়া অবৈধ হওয়ার পথেও হাজার হাজার প্রবাসী।

অনেক কোম্পানি নবায়ন করছে না তাদের শ্রমিকদের আকামা। ইতোমধ্যে কিছু কোম্পানি শ্রমিকদের দেশেও পাঠিয়ে দিয়েছে। নিয়মিত ফ্লাইট না থাকায় দেশে ফিরতে পারছেন না বৈধ প্রবাসীরাও।

এর আগে সেপ্টেম্বরে বিশেষ সুযোগে পুরুষদের চার লাখ এবং মহিলাদের তিন লাখ লেবানিজ পাউন্ড জরিমানা এবং বিমান টিকিট বাবদ তিনশ' আমেরিকান ডলার জমা দিয়ে দেশে ফিরতে নাম নিবন্ধন করেন প্রায় সাড়ে সাত হাজারের অধিক প্রবাসী বাংলাদেশি।

ওই সময় প্রায় দেড় হাজার প্রবাসী দেশে ফিরতে পারলেও করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে লকডাউন, ফ্লাইট ও বিমানবন্দর বন্ধের কারণে বাকিরা ফিরতে পারেননি।

৪ আগস্ট লেবাননের বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণে প্রায় দুই শতকের অধিক লোক মারা যান এবং প্রায় সাত হাজারের অধিক আহতের ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশ সরকার সহযোগিতাস্বরূপ খাদ্যসামগ্রী, ওষুধ ও ওষুধসামগ্রী পাঠান বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একটি বিমানে। আর সেই বিমানে লেবানন থেকে ৭১ জন প্রবাসী দেশে প্রথম ফিরে আসেন।

দায়িত্বপ্রাপ্ত নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. জাহাঙ্গীর আল মোস্তাহিদুর রহমান পিএসসি বাংলাদেশ বিমান পরিবহন সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা করেন।

১৭ আগস্ট পূর্বের নিবন্ধনকৃত ৪১০ জন বিশেষ ব্যবস্থায় রফিক হারিরি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দেশে ফিরেছেন।

বাংলাদেশের একমাত্র সরকারি এবং জাতীয় পতাকাবাহী বিমান পরিবহন সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে লেবাননের বাংলাদেশ দূতাবাসের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. জাহাঙ্গীর আল মোস্তাহিদুর রহমান পিএসসি ও প্রথম সচিব (শ্রম) ও দূতালয় প্রধান আব্দুল্লাহ আল মামুনের আন্তরিক প্রচেষ্টায় দ্বিতীয়বারের মতো ৪০৬ জন কাগজপত্রবিহীন বাংলাদেশি বিশেষ ফ্লাইটে দেশের উদ্দেশে রওনা দেন।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]