নিউইয়র্কে শেখ হাসিনার আগমনে গতিশীল হয় দেশী রাজনীতি
jugantor
নিউইয়র্কে শেখ হাসিনার আগমনে গতিশীল হয় দেশী রাজনীতি

  তোফাজ্জল লিটন, নিউইয়র্ক থেকে  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪:৪৯:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতিসংঘে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন উপলক্ষে প্রতিবছর নিউইয়র্কে আসেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগরে সভানেত্রী শেখ হাসিনা। করোনাভাইরাসের কারণে ৭৫তম অধিবেশনটি অনুষ্ঠিত হবে ভার্চুয়ালি। তাই পৃথিবীর কোনো দেশের নেতৃবৃন্দ এবার নিউইয়র্কে আসছেন না। প্রতিবার নিউইয়র্কে শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীরা ব্যাপক উজ্জীবিত হন।

নিউইয়র্ক শহরের বাঙালি অধ্যুষিত এলাকা ব্যানার-পোস্টার এবং নানা স্টেটের মানুষের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠে। সেখানের হোটেলগুলোতে রুম সংকট দেখা দেয়। এবার শেখ হাসিনা না আসায় অনেকটা স্থবির দেখা যায় রাজনৈতিক মাঠ। তবে ভার্চুয়ালি শেখ হাসিনা এবার বক্তব্য প্রদান করবেন আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সারা বছর আমরা নানান দিসব পালনের মাধ্যমে নানানভাবে সক্রিয় থাকি। প্রতি সেপ্টেম্বর মাসে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার আগমন আমাদের নেতা কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক গতিশীলতা তৈরি করে। প্রতিবারের মতো এবার ও ব্যাপক আয়োজনে জননেত্রীকে নাগরিক সংবর্ধনা দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল। এবারের জননেত্রীর আগমন আমাদের জন্য ছিল বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। কথা ছিল এবার এলে তিনি নতুন কমিটি দিয়ে যাবেন।

যুক্তরাষ্ট্র যুব দলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী এবার নিউইয়র্ক আসলে জাতিসংঘের সামনে বিশ্বনেতাদের উপস্থিতিতে সাধারণ জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা তার কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করতাম। দেশের রন্দ্রে রন্দ্রে আজ দুর্নীতি। ধিক্কার জানানোর জন্য এবার আমাদের পরিকল্পনা ছিল দলের বিভক্তি ভেঙে এক হয়ে প্রতিবাদ করা।

নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন বাবু বলেন, সারা বছর আমরা অপেক্ষা করে থাকি শেখ হাসিনার আগমনের জন্য। এটা আমাদের সবচেয়ে বড় কর্মসূচি। এই শহরে তার উপস্থিতিতে ২৮ সেপ্টেম্বর তার জন্মদিন উদযাপন করি ব্যাপক আয়োজনে। জননেত্রী এবার নিষেধ করেছেন জকজমকপূর্ণভাবে পালন না করার জন্য। তারপরেও আমরা নেত্রী জন্মদিন পালন করার কর্মসূচি নিয়েছি।

বাংলাদেশে আওয়ামী যুবলীগ যুক্তরাষ্ট্র শাখার আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও ডাউনটাউন ম্যানহাটন বাংলাদেশ বিজনেস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো: রিয়াজুল কাদির লস্কর (মিঠু) বলেন, প্রবাসী একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে জননেত্রী শেখ হাসিনার আগমন আমাদের কাছে ঈদের মতো। যুক্তরাষ্ট্রের নানান স্টেট থেকে আমাদের নেতাকর্মীরা আসেন। জামায়াত-শিবির-বিএনপি যেন নেত্রীর বিরুদ্ধে কোনো কিছু করতে না পারে সে জন্য আমরা ভ্যানগার্ডের মতো কাজ করি।

প্রতিবার শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে জ্যাকসন হাইটসে ৫ ফিটের নৌকা তৈরি করে দেয়ালে সাজান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী নান্টু মিয়া। তিনি বলেন, আমি ২০ বছর ধরে দেশে যাই না। প্রতিবার এই মাসে শুধু শেখ হাসিনাকে দেখতে পারতাম। তার সম্মানে নৌকা ও ব্যানার বানাতাম। এবার কোনো কিছু করতে পারছি না। মাসজুড়ে যেন আনন্দের বন্যা বইতো। সব কিছু মনে করে আমার কান্না আসছে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

নিউইয়র্কে শেখ হাসিনার আগমনে গতিশীল হয় দেশী রাজনীতি

 তোফাজ্জল লিটন, নিউইয়র্ক থেকে 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জাতিসংঘে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি
জাতিসংঘে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন উপলক্ষে প্রতিবছর নিউইয়র্কে আসেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগরে সভানেত্রী শেখ হাসিনা। করোনাভাইরাসের কারণে ৭৫তম অধিবেশনটি অনুষ্ঠিত হবে ভার্চুয়ালি। তাই পৃথিবীর কোনো দেশের নেতৃবৃন্দ এবার নিউইয়র্কে আসছেন না। প্রতিবার নিউইয়র্কে শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীরা ব্যাপক উজ্জীবিত হন।

নিউইয়র্ক শহরের বাঙালি অধ্যুষিত এলাকা ব্যানার-পোস্টার এবং নানা স্টেটের মানুষের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠে। সেখানের হোটেলগুলোতে রুম সংকট দেখা দেয়। এবার শেখ হাসিনা না আসায় অনেকটা স্থবির দেখা যায় রাজনৈতিক মাঠ। তবে ভার্চুয়ালি শেখ হাসিনা এবার বক্তব্য প্রদান করবেন আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সারা বছর আমরা নানান দিসব পালনের মাধ্যমে নানানভাবে সক্রিয় থাকি। প্রতি সেপ্টেম্বর মাসে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার আগমন আমাদের নেতা কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক গতিশীলতা তৈরি করে। প্রতিবারের মতো এবার ও ব্যাপক আয়োজনে জননেত্রীকে নাগরিক সংবর্ধনা দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল। এবারের জননেত্রীর আগমন আমাদের জন্য ছিল বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। কথা ছিল এবার এলে তিনি নতুন কমিটি দিয়ে যাবেন। 

যুক্তরাষ্ট্র যুব দলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী এবার নিউইয়র্ক আসলে জাতিসংঘের সামনে বিশ্বনেতাদের উপস্থিতিতে সাধারণ জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা তার কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করতাম। দেশের রন্দ্রে রন্দ্রে আজ দুর্নীতি। ধিক্কার জানানোর জন্য এবার আমাদের পরিকল্পনা ছিল দলের বিভক্তি ভেঙে এক হয়ে প্রতিবাদ করা। 

নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন বাবু বলেন, সারা বছর আমরা অপেক্ষা করে থাকি শেখ হাসিনার আগমনের জন্য। এটা আমাদের সবচেয়ে বড় কর্মসূচি। এই শহরে তার উপস্থিতিতে ২৮ সেপ্টেম্বর তার জন্মদিন উদযাপন করি ব্যাপক আয়োজনে। জননেত্রী এবার নিষেধ করেছেন জকজমকপূর্ণভাবে পালন না করার জন্য। তারপরেও আমরা নেত্রী জন্মদিন পালন করার কর্মসূচি নিয়েছি। 

বাংলাদেশে আওয়ামী যুবলীগ যুক্তরাষ্ট্র শাখার আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও ডাউনটাউন ম্যানহাটন বাংলাদেশ বিজনেস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো: রিয়াজুল কাদির লস্কর (মিঠু) বলেন, প্রবাসী একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে জননেত্রী শেখ হাসিনার আগমন আমাদের কাছে ঈদের মতো। যুক্তরাষ্ট্রের নানান স্টেট থেকে আমাদের নেতাকর্মীরা আসেন। জামায়াত-শিবির-বিএনপি যেন নেত্রীর বিরুদ্ধে কোনো কিছু করতে না পারে সে জন্য আমরা ভ্যানগার্ডের মতো কাজ করি। 

প্রতিবার শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে জ্যাকসন হাইটসে ৫ ফিটের নৌকা তৈরি করে দেয়ালে সাজান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী নান্টু মিয়া। তিনি বলেন, আমি ২০ বছর ধরে দেশে যাই না। প্রতিবার এই মাসে শুধু শেখ হাসিনাকে দেখতে পারতাম। তার সম্মানে নৌকা ও ব্যানার বানাতাম। এবার কোনো কিছু করতে পারছি না। মাসজুড়ে যেন আনন্দের বন্যা বইতো। সব কিছু মনে করে আমার কান্না আসছে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]