জাতির পিতার ছবি পিছনে নয় সামনে ঝুলাতে হবে
jugantor
অফিস-আদালতে
জাতির পিতার ছবি পিছনে নয় সামনে ঝুলাতে হবে

  রহমান মৃধা, সুইডেন থেকে  

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩:৪০:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

গণতন্ত্রের যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ তা হলো বিশ্বস্ততা। সম্প্রতি সুইডেনের রাজনৈতিক দলগুলো এবং এর প্রধানদের বিভিন্ন কার্যকলাপের বিশ্বস্ততার ওপর একটি জরিপ করা হয়েছে। তবে যদি কোন একটি দেশের সমগ্র পরিকাঠামোতে বিশ্বস্ততার অভাব থাকে তখন এ ধরণের জরিপ গ্রহণযোগ্য হয় না। জরিপ সেখানেই সম্ভব যেখানে সত্যিকারের গণতন্ত্রের বেস্ট প্র্যাকটিস হয়ে থাকে। সুইডেন গণতন্ত্রের ওপর বিশ্বাসী। তাই এখানে এ ধরণের জরিপ মাঝে মধ্যে হয়।

এবারের জরিপে দেখা গেল সুইডেনের ছোট একটি রাজনৈতিক দল ভেন্সটার পার্টির নেতা Jonas Sjöstedt বিশ্বস্ততার শীর্ষে। দলটি ছোট হলেও এর নেতার ওপর জনগণ সবচেয়ে বেশি আস্থাশীল। অন্যদিকে ইসভেরিয়ে ডেমোক্রেট দলের নেতা Jimmi Åkesson কোভিড-১৯ এর ওপর বর্তমান সরকারের ব্যর্থতা, দায়ভার এবং অসচেতনতার ওপর প্রথম থেকেই কড়া সমালোচনা করে আসছে।

কেউ অসুস্থ হলে বা সাধারণ সর্দি জ্বর হলে তাদেরকে ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করেছে। কিন্তু কয়েক দিন আগে Jimmi Åkesson অসুস্থ অবস্থায় সংসদে এসে সাংবাদিকদের ক্যামেরায় ধরা খেয়েছে। সেইসঙ্গে তার ওয়াক এজ ইউ টক কনসেপ্টেরও বারোটা বাজিয়েছে। তার নেতৃত্ব এখন প্রশ্নের সম্মুখীন।

মজার ব্যাপার হলো একটি সৃজনশীল সমাজ বা দেশে এই ভাবেই রাজনীতিবিদদের কর্মের ওপর পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে সাংবাদিকরা কড়া নজর রাখেন। এক্ষেত্রে সাংবাদিকদের যেমন বাকস্বাধীনতা থাকা দরকার ঠিক তেমনিভাবে সাংবাদিকদের মোড়াল ভ্যালু, সঠিক তথ্য যুক্তিযুক্তভাবে প্রকাশ করার মতো পরিবেশ এবং দক্ষতা থাকতে হবে। সুইডেন বা সুইজারল্যান্ডের মতো দেশে এ দিকগুলোর ওপর যথেষ্ট গুরুত্ব দেয়া হয়।

এখন আমি যদি বাংলাদেশের পরিস্থিতি সঙ্গে এখানকার সব বিষয়ে তুলনা করি সেটা বেমানান হবে। কারণ বাংলাদেশের সর্বাঙ্গীণ পরিকাঠামো এসব দেশের মতো করে এখনও গড়ে ওঠেনি। তারপরও আমি বিষয়টি তুলে ধরছি ভালো কিছু জানা এবং শেখার জন্য। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য লার্নিং ফ্রম লার্নার এবং লার্নিং বাই ডুইং কনসেপ্ট এর ব্যবহার শেখা খুবই জরুরি।

এখন অতীতের চিন্তাচেতনা বা সংবিধানের নিয়ম কানুনকে ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করার সময় এসেছে। বাংলাদেশের উচিত হবে পুরাতন ব্রিটিশ বা পাকিস্তান আমলের আইন কানুনের অবসান ঘটিয়ে দেশের চাহিদা অনুযায়ী নতুন আইন তৈরি এবং তার ব্যবহার বাড়ানো। আইন ব্যবস্থার ওপর কড়া নজর দিতে হবে যেন এটা সবার জন্যই সমান ভাবে প্রযোজ্য হয়। মানুষে মানুষে ভেদাভেদ কমাতে হবে।

সবাইকে কোয়ালিটি লাইফের আওতায় আনতে হবে। গ্লোবালাইজেশন এবং ডিজিটালাইজেশনের যুগে যুগোপযোগী কোয়ালিটি লাইফ পেতে হলে পরিবর্তনের বিকল্প নাই।
প্রযুক্তিকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে। দুর্নীতির অবসান ঘটাতে ক্যাশ টাকার ব্যবহার বন্ধ করে কার্ডের মাধ্যমে কেনাবেচা বাড়াতে হবে।

শিক্ষাকে ভিজুয়ালিজম এবং অন দি জব ট্রেনিংয়ের সমন্বয় ঘটাতে হবে। যাকে বলা যেতে পারে লার্নিং বাই ডুইং এবং লার্ন ফ্রম লার্নার কনসেপ্টে জোর দিতে হবে। শিক্ষার্থীদের স্টাডি লোন দিতে হবে যাতে করে তারা বাবা মার ওপর নির্ভরশীল না থাকে।

সরকারি কর্মীদের জনগণের সেবক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। সবাইকে একটি গ্রহণযোগ্য বেতন দিতে হবে। সবাই যেন ট্যাক্স পে করে সেদিকে নজর দিতে হবে। শুধু বেতন বাড়ালেই বা সুযোগ সুবিধা দিলেই হবে না। সকল কর্মীদের নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। যাতে করে তারা সব সময়ের জন্য নিয়োগযোগ্য থাকে।

অন্যান্য ভাষার তুলনায় বাংলা ভাষাকে প্রাধান্য দিতে হবে। যাতে করে জন্মভূমির প্রতি সকলের ভালোবাসা বৃদ্ধি পায়। সুইডেনে যেমন সামান্য ক্লিনার পদে কাজ করতে গেলেও তারা প্রথমে জিজ্ঞেস করবে সুইডিশ ভাষা জানা আছে কিনা। একজন বিদেশি তার মাতৃভাষার পাশাপাশি আরও দুই-তিনটি ভাষা জানা সত্বেও তাকে সুইডিশ জানতেই হবে।

সর্বোপরি গণতন্ত্রের ওপর বিশ্বাস এবং জনগণের মূল্যায়ন করতে হবে। এগ্রি টু ডিজএগ্রি কনসেপ্টের ওপর রেসপেক্ট বাড়াতে হবে।

একটি বিষয়ের প্রতি সবার একমত পোষণ করতে হবে- সেটা হলো জাতির পিতা এবং জাতীয় সঙ্গীতের ওপর কোন দ্বিমত পোষণ করা যাবে না। মনে রাখতে হবে প্রেসিডেন্ট বা মন্ত্রী আসবে যাবে তবে জাতির পিতা একটি দেশে একজনই থাকেন। জাতির পিতার ছবি অফিস-আদালতে কর্মীদের পিছনে নয় সামনে ঝুলাতে হবে। এর মাধ্যমে প্রতিটি সিদ্ধান্ত তাকে এবং তার স্বপ্নকে মনে করিয়ে দিবে। আমাদের উদ্দেশ্য হবে সোনার বাংলা গড়তে আমাদের সিদ্ধান্তে আমরা যেন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ থাকি এবং এই মর্মে সাক্ষ্য প্রদান করছি।

লেখক: রহমান মৃধা, সাবেক পরিচালক (প্রোডাকশন অ্যান্ড সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট), ফাইজার, সুইডেন থেকে, [email protected]

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
অফিস-আদালতে

জাতির পিতার ছবি পিছনে নয় সামনে ঝুলাতে হবে

 রহমান মৃধা, সুইডেন থেকে 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গণতন্ত্রের যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ তা হলো বিশ্বস্ততা। সম্প্রতি সুইডেনের রাজনৈতিক দলগুলো এবং এর প্রধানদের বিভিন্ন কার্যকলাপের বিশ্বস্ততার ওপর একটি জরিপ করা হয়েছে। তবে যদি কোন একটি দেশের সমগ্র পরিকাঠামোতে বিশ্বস্ততার অভাব থাকে তখন এ ধরণের জরিপ গ্রহণযোগ্য হয় না। জরিপ সেখানেই সম্ভব যেখানে সত্যিকারের গণতন্ত্রের বেস্ট প্র্যাকটিস হয়ে থাকে। সুইডেন গণতন্ত্রের ওপর বিশ্বাসী। তাই এখানে এ ধরণের জরিপ মাঝে মধ্যে হয়।

এবারের জরিপে দেখা গেল সুইডেনের ছোট একটি রাজনৈতিক দল ভেন্সটার পার্টির নেতা Jonas Sjöstedt বিশ্বস্ততার শীর্ষে। দলটি ছোট হলেও এর নেতার ওপর জনগণ সবচেয়ে বেশি আস্থাশীল। অন্যদিকে ইসভেরিয়ে ডেমোক্রেট দলের নেতা Jimmi Åkesson কোভিড-১৯ এর ওপর বর্তমান সরকারের ব্যর্থতা, দায়ভার এবং অসচেতনতার ওপর প্রথম থেকেই কড়া সমালোচনা করে আসছে। 

কেউ অসুস্থ হলে বা সাধারণ সর্দি জ্বর হলে তাদেরকে ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করেছে। কিন্তু কয়েক দিন আগে Jimmi Åkesson অসুস্থ অবস্থায় সংসদে এসে সাংবাদিকদের ক্যামেরায় ধরা খেয়েছে। সেইসঙ্গে তার ওয়াক এজ ইউ টক কনসেপ্টেরও বারোটা বাজিয়েছে। তার নেতৃত্ব এখন প্রশ্নের সম্মুখীন।

মজার ব্যাপার হলো একটি সৃজনশীল সমাজ বা দেশে এই ভাবেই রাজনীতিবিদদের কর্মের ওপর পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে সাংবাদিকরা কড়া নজর রাখেন। এক্ষেত্রে সাংবাদিকদের যেমন বাকস্বাধীনতা থাকা দরকার ঠিক তেমনিভাবে সাংবাদিকদের মোড়াল ভ্যালু, সঠিক তথ্য যুক্তিযুক্তভাবে প্রকাশ করার মতো পরিবেশ এবং দক্ষতা থাকতে হবে। সুইডেন বা সুইজারল্যান্ডের মতো দেশে এ দিকগুলোর ওপর যথেষ্ট গুরুত্ব দেয়া হয়।

এখন আমি যদি বাংলাদেশের পরিস্থিতি সঙ্গে এখানকার সব বিষয়ে তুলনা করি সেটা বেমানান হবে। কারণ বাংলাদেশের সর্বাঙ্গীণ পরিকাঠামো এসব দেশের মতো করে এখনও গড়ে ওঠেনি। তারপরও আমি বিষয়টি তুলে ধরছি ভালো কিছু জানা এবং শেখার জন্য। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য লার্নিং ফ্রম লার্নার এবং লার্নিং বাই ডুইং কনসেপ্ট এর ব্যবহার শেখা খুবই জরুরি।

এখন অতীতের চিন্তাচেতনা বা সংবিধানের নিয়ম কানুনকে ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করার সময় এসেছে। বাংলাদেশের উচিত হবে পুরাতন ব্রিটিশ বা পাকিস্তান আমলের আইন কানুনের অবসান ঘটিয়ে দেশের চাহিদা অনুযায়ী নতুন আইন তৈরি এবং তার ব্যবহার বাড়ানো। আইন ব্যবস্থার ওপর কড়া নজর দিতে হবে যেন এটা সবার জন্যই সমান ভাবে প্রযোজ্য হয়। মানুষে মানুষে ভেদাভেদ কমাতে হবে।

সবাইকে কোয়ালিটি লাইফের আওতায় আনতে হবে। গ্লোবালাইজেশন এবং ডিজিটালাইজেশনের যুগে যুগোপযোগী কোয়ালিটি লাইফ পেতে হলে পরিবর্তনের বিকল্প নাই।  
প্রযুক্তিকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে। দুর্নীতির অবসান ঘটাতে ক্যাশ টাকার ব্যবহার বন্ধ করে কার্ডের মাধ্যমে কেনাবেচা বাড়াতে হবে।

শিক্ষাকে ভিজুয়ালিজম এবং অন দি জব ট্রেনিংয়ের সমন্বয় ঘটাতে হবে। যাকে বলা যেতে পারে লার্নিং বাই ডুইং এবং লার্ন ফ্রম লার্নার কনসেপ্টে জোর দিতে হবে। শিক্ষার্থীদের স্টাডি লোন দিতে হবে যাতে করে তারা বাবা মার ওপর নির্ভরশীল না থাকে।

সরকারি কর্মীদের জনগণের সেবক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। সবাইকে একটি গ্রহণযোগ্য বেতন দিতে হবে। সবাই যেন ট্যাক্স পে করে সেদিকে নজর দিতে হবে। শুধু বেতন বাড়ালেই বা সুযোগ সুবিধা দিলেই হবে না। সকল কর্মীদের নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। যাতে করে তারা সব সময়ের জন্য নিয়োগযোগ্য থাকে।

অন্যান্য ভাষার তুলনায় বাংলা ভাষাকে প্রাধান্য দিতে হবে। যাতে করে জন্মভূমির প্রতি সকলের ভালোবাসা বৃদ্ধি পায়। সুইডেনে যেমন সামান্য ক্লিনার পদে কাজ করতে গেলেও তারা প্রথমে জিজ্ঞেস করবে সুইডিশ ভাষা জানা আছে কিনা। একজন বিদেশি তার মাতৃভাষার পাশাপাশি আরও দুই-তিনটি ভাষা জানা সত্বেও তাকে সুইডিশ জানতেই হবে।

সর্বোপরি গণতন্ত্রের ওপর বিশ্বাস এবং জনগণের মূল্যায়ন করতে হবে। এগ্রি টু ডিজএগ্রি কনসেপ্টের ওপর রেসপেক্ট বাড়াতে হবে।

একটি বিষয়ের প্রতি সবার একমত পোষণ করতে হবে- সেটা হলো জাতির পিতা এবং জাতীয় সঙ্গীতের ওপর কোন দ্বিমত পোষণ করা যাবে না। মনে রাখতে হবে প্রেসিডেন্ট বা মন্ত্রী আসবে যাবে তবে জাতির পিতা একটি দেশে একজনই থাকেন। জাতির পিতার ছবি অফিস-আদালতে কর্মীদের পিছনে নয় সামনে ঝুলাতে হবে। এর মাধ্যমে প্রতিটি সিদ্ধান্ত তাকে এবং তার স্বপ্নকে মনে করিয়ে দিবে। আমাদের উদ্দেশ্য হবে সোনার বাংলা গড়তে আমাদের সিদ্ধান্তে আমরা যেন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ থাকি এবং এই মর্মে সাক্ষ্য প্রদান করছি। 

লেখক: রহমান মৃধা, সাবেক পরিচালক (প্রোডাকশন অ্যান্ড সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট), ফাইজার, সুইডেন থেকে, [email protected]

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
 

ঘটনাপ্রবাহ : রহমান মৃধার কলাম

০৪ অক্টোবর, ২০২০
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০