পর্তুগালের করোনা সংক্রমণ রোধে নতুন স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর
jugantor
পর্তুগালের করোনা সংক্রমণ রোধে নতুন স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর

  ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল থেকে  

১৫ অক্টোবর ২০২০, ২২:৫৯:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী অ্যান্তনিও কস্তা ১৪ অক্টোবর মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে বর্তমান করোনা সংক্রমণের ব্যাপকতার কারণে নতুন স্বাস্থ্যবিধি এবং নিয়ম ঘোষণা করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে আমরা পূর্বের চেয়ে আরও বেশি কঠিন সময় পার করছি। গত দিনগুলোতে যে সংক্রমণ ছিল তার চেয়ে দ্বিগুণ হারে সংক্রমণ হচ্ছে এবং পরিস্থিতি প্রতিদিনই খারাপের দিকে যাচ্ছে। তাই সরকার নিরুপায় হয়ে নতুন কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে নতুন কিছু বিধিনিষেধ এবং প্রস্তাবনা উল্লেখ করেছেন তা নিচে আলোচনা করা হল-

১। পর্তুগালে সারা দেশকে বিপর্যয় অঞ্চল হিসেবে সতর্কতা জারি করা হয়েছে এবং বিপর্যয়জনিত পরিস্থিতি সম্পর্কে সতর্কতার মাত্রা বাড়াতে সরকার যে কোনোপ্রকার ন্যায়সঙ্গত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে এবং সবাইকে এটি গ্রহণ করে নিতে হবে।
২। আজ মধ্যরাত থেকে ৫ জনের বেশি লোক একত্রিত হতে পারবে না। এই সীমাবদ্ধতা বাণিজ্যিক এরিয়া, পাবলিক এরিয়া ও রেস্টুরেন্টসহ সব জায়গায় বলবত থাকবে।
৩। পারিবারিক আচার-অনুষ্ঠান যেমন- বিবাহসহ অন্যান্য অনুষ্ঠানে ১৪ অক্টোবর থেকে সর্বোচ্চ ৫০ জন অংশগ্রহণ করতে পারবে এবং তাদের অবশ্যই শারীরিক দূরত্ব এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা বিধি মেনে চলতে হবে।
৪। একাডেমিক প্রতিষ্ঠান যেমন- বিশ্ববিদ্যালয় এবং পলিটেকনিকেলগুলোতে যে কোনো প্রকার একাডেমিক উদযাপন বা যৌথ কার্যকলাপ নবীনবরণ বা যেকোনো ধরনের উদযাপন এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে। ইতোপূর্বে এর মাধ্যমে সংক্রমণ অনেকটাই বেড়েছে তা যেন আর পুনরাবৃত্তি না হয়।
৫। পর্তুগালের নিরাপত্তা বাহিনী এবং খাদ্য অর্থনৈতিক সুরক্ষা কর্তৃপক্ষকে (ASAE) রাস্তায় এবং বাণিজ্যিক ও রেস্টুরেন্ট, ক্যাটারিং প্রতিষ্ঠান নতুন স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর করার জন্য পরিদর্শন এবং তদারকির জন্য জোর প্রচেষ্টা চালাতে বলা হয়েছে।
৬। বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, রেস্টুরেন্ট বা খাবার পরিবেশন জাতীয় প্রতিষ্ঠান নতুন বিধি-বিধান না মানলে ১০ হাজার ইউরো পর্যন্ত জরিমানার বিধান নিশ্চিত করা হয়েছে এবং আরও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
৭। যেসব নাগরিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তাদেরকে বাধ্যতামূলকভাবে STAYAWAY COVID মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার এবং সকল নাগরিককে রাস্তায় এবং পাবলিক এরিয়াতে মাস্ক পরিধান করার জন্য গুরুত্বসহকারে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
৮। পর্তুগালের জাতীয় সংসদে রাস্তায় বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহার এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের নিয়োজিত কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং প্রজাতন্ত্রের সব কর্মচারী, সামরিক বাহিনী নিরাপত্তা বাহিনীসহ সরকারি সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর জন্য বাধ্যতামূলকভাবে STAYAWAY COVID মোবাইল

অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের আইন পাস করার জন্য উপস্থাপন করা হবে।
প্রধানমন্ত্রী অ্যান্তোনিও কস্তা পর্তুগালে প্রথমবারের মতো করোনা মহামারী যখন আঘাত হেনেছিল তখন জনগণ যেভাবে সহায়তা করেছিল তার প্রশংসা করে বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেশ তথা দেশের অর্থনীতি রক্ষার্থে সবার সহযোগিতা চেয়েছেন এবং সবার প্রতি একজন আদর্শ নাগরিক হিসেবে প্রবর্তিত বিধিনিষেধ মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

পর্তুগালের করোনা সংক্রমণ রোধে নতুন স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর

 ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল থেকে 
১৫ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী অ্যান্তনিও কস্তা ১৪ অক্টোবর মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে বর্তমান করোনা সংক্রমণের ব্যাপকতার কারণে নতুন স্বাস্থ্যবিধি এবং নিয়ম ঘোষণা করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে আমরা পূর্বের চেয়ে আরও বেশি কঠিন সময় পার করছি। গত দিনগুলোতে যে সংক্রমণ ছিল তার চেয়ে দ্বিগুণ হারে সংক্রমণ হচ্ছে এবং পরিস্থিতি প্রতিদিনই খারাপের দিকে যাচ্ছে। তাই সরকার নিরুপায় হয়ে নতুন কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে নতুন কিছু বিধিনিষেধ এবং প্রস্তাবনা উল্লেখ করেছেন তা নিচে আলোচনা করা হল-

১। পর্তুগালে সারা দেশকে বিপর্যয় অঞ্চল হিসেবে সতর্কতা জারি করা হয়েছে এবং বিপর্যয়জনিত পরিস্থিতি সম্পর্কে সতর্কতার মাত্রা বাড়াতে সরকার যে কোনোপ্রকার ন্যায়সঙ্গত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে এবং সবাইকে এটি গ্রহণ করে নিতে হবে।
২। আজ  মধ্যরাত থেকে ৫ জনের বেশি লোক একত্রিত হতে পারবে না। এই সীমাবদ্ধতা  বাণিজ্যিক এরিয়া, পাবলিক এরিয়া ও রেস্টুরেন্টসহ সব জায়গায় বলবত থাকবে।
৩। পারিবারিক আচার-অনুষ্ঠান যেমন- বিবাহসহ অন্যান্য অনুষ্ঠানে ১৪ অক্টোবর থেকে সর্বোচ্চ ৫০ জন অংশগ্রহণ করতে পারবে এবং তাদের অবশ্যই শারীরিক দূরত্ব এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা বিধি মেনে চলতে হবে।
৪। একাডেমিক প্রতিষ্ঠান যেমন- বিশ্ববিদ্যালয় এবং পলিটেকনিকেলগুলোতে যে কোনো প্রকার একাডেমিক উদযাপন বা যৌথ কার্যকলাপ নবীনবরণ বা যেকোনো ধরনের উদযাপন এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে। ইতোপূর্বে এর মাধ্যমে সংক্রমণ অনেকটাই বেড়েছে তা যেন আর পুনরাবৃত্তি না হয়।
৫। পর্তুগালের নিরাপত্তা বাহিনী এবং খাদ্য অর্থনৈতিক সুরক্ষা কর্তৃপক্ষকে (ASAE) রাস্তায় এবং বাণিজ্যিক ও রেস্টুরেন্ট, ক্যাটারিং প্রতিষ্ঠান নতুন স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর করার জন্য পরিদর্শন এবং তদারকির জন্য জোর প্রচেষ্টা চালাতে বলা হয়েছে।
৬। বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, রেস্টুরেন্ট বা খাবার পরিবেশন জাতীয় প্রতিষ্ঠান নতুন বিধি-বিধান না মানলে ১০ হাজার ইউরো পর্যন্ত জরিমানার বিধান নিশ্চিত করা হয়েছে এবং আরও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
৭। যেসব নাগরিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তাদেরকে বাধ্যতামূলকভাবে STAYAWAY COVID মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার এবং সকল নাগরিককে রাস্তায় এবং পাবলিক এরিয়াতে মাস্ক পরিধান করার জন্য গুরুত্বসহকারে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
৮। পর্তুগালের জাতীয় সংসদে রাস্তায় বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহার এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের নিয়োজিত কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং প্রজাতন্ত্রের সব কর্মচারী, সামরিক বাহিনী নিরাপত্তা বাহিনীসহ সরকারি সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর জন্য বাধ্যতামূলকভাবে STAYAWAY COVID মোবাইল

অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের আইন পাস করার জন্য উপস্থাপন করা হবে।
প্রধানমন্ত্রী অ্যান্তোনিও কস্তা পর্তুগালে প্রথমবারের মতো করোনা মহামারী যখন আঘাত হেনেছিল তখন জনগণ যেভাবে সহায়তা করেছিল তার প্রশংসা করে বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেশ তথা দেশের অর্থনীতি রক্ষার্থে সবার সহযোগিতা চেয়েছেন এবং সবার প্রতি একজন আদর্শ নাগরিক হিসেবে প্রবর্তিত বিধিনিষেধ মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]