নিউইয়র্কে ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রে লিয়ার লেভিন
jugantor
স্বাধীনতার ৫০ বছর
নিউইয়র্কে ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রে লিয়ার লেভিন

  অনলাইন ডেস্ক  

২৫ অক্টোবর ২০২০, ১৬:১১:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের মহান বন্ধু খ্যাতিমান আমেরিকান চলচ্চিত্র পরিচালক লিয়ার লেভিন অংশ নিয়েছেন দ্য কনসার্ট ফর বাংলাদেশ অবলম্বনে নির্মিতব্য “একটি দেশের জন্য গান” প্রামাণ্যচিত্রে। লেখক ও সাংবাদিক শামীম আল আমিন এই প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মাণ করছেন।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে যেসব বিদেশি বন্ধু নানাভাবে সহায়তা দিয়েছেন, ভালোবাসা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন তাদের কথা তুলে ধরা ও তাদেরকে নিয়ে কাজ করার জন্য সাংবাদিক শামীম নিউইয়র্কে গড়ে তুলেছেন ফ্রেন্ডস অব ফ্রিডম নামে একটি সংগঠন। সেই সংগঠনের ব্যানারেই প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মিত হচ্ছে।

শামীম আল আমিন জানিয়েছেন, প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মাণের কাজ অনেক দূর এগিয়েছে। যদিও করোনা মহামারীর কারণে এটি নির্মাণের প্রক্রিয়া অনেকভাবেই বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এরপরও স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে ২০২১ সালে প্রামাণ্যচিত্রটির নির্মাণ কাজ শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

তিনি আরও জানান, অনেকের অংশগ্রহণ প্রামাণ্যচিত্রটিকে অনেক বেশি বস্তুনিষ্ঠ, প্রাণবন্ত করে তুলেছে। বিশেষ করে লিয়ার লেভিনের মতো ব্যক্তিত্বের এতে অংশ নেয়া গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

চলচ্চিত্র পরিচালক ও আলোকচিত্র শিল্পী লিয়ার লেভিন ১৯৭০ সালের প্রলয়ঙ্করি ঘূর্ণিঝড়ের পর বাংলাদেশে ছুটে এসেছিলেন। তিনি ঘূর্ণিঝড় উপদ্রুত মানুষকে নিয়ে একটি তথ্যচিত্র তৈরি করেন; যা দুর্গতদের সাহায্যে তহবিল সংগ্রহে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

এরপর ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানী সামরিক বাহিনীর বর্বর অত্যাচার নির্যাতনের কথা জেনে আবারো তিনি এদেশে আসেন। লিয়ার লেভিন প্রায় দুই মাস পশ্চিম বাংলায় থেকে বিভিন্ন শরণার্থী শিবির ও যুদ্ধফ্রন্টের ছবি তোলেন।

বাংলাদেশ মুক্তি সংগ্রামী শিল্পী সংস্থা নামের একটি গানের দল তখন ঘুরে ঘুরে মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের দেশাত্মবোধক ও সংগ্রামী গান শুনিয়ে উজ্জীবিত করতো। লেভিন জুড়ে যান তাদের সাথে। তাদের সঙ্গে ট্রাকে করে ঘুরে বেড়াতে থাকেন।

পরে তিনি ‘জয় বাংলা’ নামে ৭২ মিনিটের একটি প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করেন। তবে কোনো স্পন্সর না পাওয়ায় ছবিটি পরিত্যক্ত হয়। দুই দশকের বেশি সময় পর চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ ও তার স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ লিয়ার লেভিনের সঙ্গে যোগাযোগ করে তার তোলা ফুটেজগুলো সংগ্রহ করেন। তারা লিয়ার লেভিনের ফুটেজকে নবরূপায়ণ দেন ‘মুক্তির গান’ ছবিতে। ২০১৩ সালের ২৭ মার্চ বাংলাদেশ সরকার লিয়ার লেভিনকে ঢাকায় অবস্থিত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সম্মাননা প্রদান করে।

একাত্তরে বাংলাদেশে ছুটে যাওয়ার ক্ষেত্রে লিয়ার লেভিন প্রেরণা পেয়েছিলেন ওই বছরের ১ আগস্ট নিউইয়র্কের ঐতিহাসিক মেডিসন স্কয়ার গার্ডেনে হওয়া কনসার্ট ফর বাংলাদেশ থেকে। ২৪ অক্টোবর শুক্রবার নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে নিজের ফ্ল্যাটে দেয়া দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে সেই সময়ের পটভূমি বর্ণনা করেন লিয়ার লেভিন।

বিশেষ করে জর্জ হ্যারিসন ও পণ্ডিত রবি শঙ্করের আয়োজনে সেই কনসার্ট কিভাবে গোটা বিশ্বে বাংলাদেশের পক্ষে জনমত তৈরি করলো, জানালেন তাও। বর্ণনা করলেন নিজের চোখে দেখা কনসার্টের চমৎকার আবহ। কথা বলতে গিয়ে বার বার তিনি আবেগতাড়িত হয়েছেন, চোখের জলে ভেসেছেন। সাক্ষাৎকারের বিস্তারিত দেখা যাবে “একটি দেশের জন্যে গান” প্রামাণ্যচিত্রে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
স্বাধীনতার ৫০ বছর

নিউইয়র্কে ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রে লিয়ার লেভিন

 অনলাইন ডেস্ক 
২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৪:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের মহান বন্ধু খ্যাতিমান আমেরিকান চলচ্চিত্র পরিচালক লিয়ার লেভিন অংশ নিয়েছেন দ্য কনসার্ট ফর বাংলাদেশ অবলম্বনে নির্মিতব্য “একটি দেশের জন্য গান” প্রামাণ্যচিত্রে। লেখক ও সাংবাদিক শামীম আল আমিন এই প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মাণ করছেন। 

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে যেসব বিদেশি বন্ধু নানাভাবে সহায়তা দিয়েছেন, ভালোবাসা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন তাদের কথা তুলে ধরা ও তাদেরকে নিয়ে কাজ করার জন্য সাংবাদিক শামীম নিউইয়র্কে গড়ে তুলেছেন ফ্রেন্ডস অব ফ্রিডম নামে একটি সংগঠন। সেই সংগঠনের ব্যানারেই প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মিত হচ্ছে।  

শামীম আল আমিন জানিয়েছেন, প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মাণের কাজ অনেক দূর এগিয়েছে। যদিও করোনা মহামারীর কারণে এটি নির্মাণের প্রক্রিয়া অনেকভাবেই বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এরপরও স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে ২০২১ সালে প্রামাণ্যচিত্রটির নির্মাণ কাজ শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে।  

তিনি আরও জানান, অনেকের অংশগ্রহণ প্রামাণ্যচিত্রটিকে অনেক বেশি বস্তুনিষ্ঠ, প্রাণবন্ত করে তুলেছে। বিশেষ করে লিয়ার লেভিনের মতো ব্যক্তিত্বের এতে অংশ নেয়া গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

চলচ্চিত্র পরিচালক ও আলোকচিত্র শিল্পী লিয়ার লেভিন ১৯৭০ সালের প্রলয়ঙ্করি ঘূর্ণিঝড়ের পর বাংলাদেশে ছুটে এসেছিলেন। তিনি ঘূর্ণিঝড় উপদ্রুত মানুষকে নিয়ে একটি তথ্যচিত্র তৈরি করেন; যা দুর্গতদের সাহায্যে তহবিল সংগ্রহে বিশেষ ভূমিকা রাখে। 

এরপর ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানী সামরিক বাহিনীর বর্বর অত্যাচার নির্যাতনের কথা জেনে আবারো তিনি এদেশে আসেন। লিয়ার লেভিন প্রায় দুই মাস পশ্চিম বাংলায় থেকে বিভিন্ন শরণার্থী শিবির ও যুদ্ধফ্রন্টের ছবি তোলেন। 

বাংলাদেশ মুক্তি সংগ্রামী শিল্পী সংস্থা নামের একটি গানের দল তখন ঘুরে ঘুরে মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের দেশাত্মবোধক ও সংগ্রামী গান শুনিয়ে উজ্জীবিত করতো। লেভিন জুড়ে যান তাদের সাথে। তাদের সঙ্গে ট্রাকে করে ঘুরে বেড়াতে থাকেন।  

পরে তিনি ‘জয় বাংলা’ নামে ৭২ মিনিটের একটি প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করেন। তবে কোনো স্পন্সর না পাওয়ায় ছবিটি পরিত্যক্ত হয়। দুই দশকের বেশি সময় পর চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ ও তার স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ লিয়ার লেভিনের সঙ্গে যোগাযোগ করে তার তোলা ফুটেজগুলো সংগ্রহ করেন। তারা লিয়ার লেভিনের ফুটেজকে নবরূপায়ণ দেন ‘মুক্তির গান’ ছবিতে। ২০১৩ সালের ২৭ মার্চ বাংলাদেশ সরকার লিয়ার লেভিনকে ঢাকায় অবস্থিত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সম্মাননা প্রদান করে।

একাত্তরে বাংলাদেশে ছুটে যাওয়ার ক্ষেত্রে লিয়ার লেভিন প্রেরণা পেয়েছিলেন ওই বছরের ১ আগস্ট নিউইয়র্কের ঐতিহাসিক মেডিসন স্কয়ার গার্ডেনে হওয়া কনসার্ট ফর বাংলাদেশ থেকে। ২৪ অক্টোবর শুক্রবার নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে নিজের ফ্ল্যাটে দেয়া দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে সেই সময়ের পটভূমি বর্ণনা করেন লিয়ার লেভিন। 

বিশেষ করে জর্জ হ্যারিসন ও পণ্ডিত রবি শঙ্করের আয়োজনে সেই কনসার্ট কিভাবে গোটা বিশ্বে বাংলাদেশের পক্ষে জনমত তৈরি করলো, জানালেন তাও। বর্ণনা করলেন নিজের চোখে দেখা কনসার্টের চমৎকার আবহ। কথা বলতে গিয়ে বার বার তিনি আবেগতাড়িত হয়েছেন, চোখের জলে ভেসেছেন। সাক্ষাৎকারের বিস্তারিত দেখা যাবে “একটি দেশের জন্যে গান” প্রামাণ্যচিত্রে। 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]