মানুষ কেন নার্ভাস হয়? কীভাবে স্ট্রেস মোকাবেলা করবেন?
jugantor
মানুষ কেন নার্ভাস হয়? কীভাবে স্ট্রেস মোকাবেলা করবেন?

  রহমান মৃধা, সুইডেন থেকে  

৩০ জানুয়ারি ২০২১, ১৩:৪৫:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রেমে পড়েছেন! প্রথমবারের মত মঞ্চে উঠেছেন, হাজার মানুষ তাকিয়ে রয়েছে আপনার দিকে। বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা। ৯০ মিনিট খেলার পরও গোল হয়নি, পেনাল্টি করতে হবে। হারজিত নির্ভর করছে শেষের পেনাল্টির ওপর। সবাই নার্ভাস, কী পরিমাণ নার্ভাস তা কেউ জানে না। চাকরির ইন্টারভিউ, ভীষণ নার্ভাস। কিছুতেই নিজেকে নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না। পছন্দের মানুষটিকে পছন্দ করি কিন্তু বলার মত শক্তি বা সাহস কিছুই নেই। কারণ কী?

লজ্জা, ভয়, জড়তা, দুর্বলতা, নার্ভাস নাকি সব কিছুর সমন্বয়? মাঝেমাঝেই নার্ভাস হয়ে পড়েন? কোন অতিরিক্ত কাজ এসে গেলে অথবা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোন কাজ সারতে না পারলেই কি নার্ভাসনেস আপনাকে গ্রাস করে? এমন আরও অনেক কিছু আছে যা আপনাকে প্রায়শই নার্ভাস করে তোলে। কিন্তু নার্ভাস হয়ে পড়লেই তো হবে না। নিজেই নিজেকে এ সমস্যা থেকে বের করে আনতে হবে।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বদলে যাওয়া জীবনযাত্রায় স্ট্রেসের পরিমাণ অনেকটাই বেড়েছে। স্ট্রেস বা মানসিক চাপের পরিমাণ বাড়লে স্বাভাবিকভাবেই বাড়বে মানসিক চাপে ভেঙে পড়ার প্রবণতা। কোনও বড় কাজ করার আগে, পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা দিতে যাওয়ার আগে, পেশার জগতে কোনও কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বা পারিবারিক-সামাজিক সংকটে এই মানসিক চাপ বিরাট আকার ধারণ করে।

এ ধরণের সমস্যায় অহরহ পড়তে হয় আমাদের। দিন যত যাচ্ছে, জীবন তত জটিল হচ্ছে। জীবন যত জটিল হচ্ছে মানসিক চাপও তত বাড়ছে। এবং এভাবে এটা বেড়েই চলেছে। কথা বলবেন মনোবিজ্ঞানীদের সঙ্গে? তারা বলবেন গান শুনুন, সিনেমা দেখুন, বই পড়ুন। যা করতে ভালো লাগে তাই করুন ইত্যাদি।

শরীর সুস্থ থাকলে, স্বাস্থ্য ভাল থাকলে, স্ট্রেস কম হবে। তাই খাওয়া দাওয়ার দিকে নজর দিন। পুষ্টিকর খাবার খান ইত্যাদি। এতে নিজেকে ভাল করে চিনতে এবং বুঝতে শিখবেন। নিজের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরি করুন। একা একা সময় কাটাবেন না। বন্ধু বা পছন্দের মানুষদের সঙ্গ অথবা আপনার প্রতি সহমর্মী এ ধরনের মানুষদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন, সময় ভালো যাবে।

কেন জীবনে স্ট্রেস হচ্ছে, কী কারণে মানসিক চাপে ভুগছেন তা খুঁজে বের করে সমাধান করার চেষ্টা করতে হবে। যত বেশি স্ট্রেস থেকে পালাতে চাইবেন তত বেশি স্ট্রেস আপনাকে আচ্ছন্ন করে ফেলবে।

জীবনে কী ঘটতে চলেছে, কী হবে তা নিয়ে না ভেবে যা কিছু পেয়েছেন, যা কিছু আছে তার মূল্য দিন। নিজের এবং স্রষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকুন। জীবনকে উপভোগ করুন। নিজের সাফল্যের সময়কার কথা ভাবুন। সেই সমস্ত ঘটনা যেমন পরীক্ষার কথা মনে করুন, যেগুলো আপনি সাফল্যের সঙ্গে পেরিয়ে এসেছেন। চেষ্টা করুন এমন কোনও ঘটনার কথা মনে করতে, যখন আপনি খুব আনন্দে ছিলেন।

নার্ভাস বোধ করলে পেট এবং ঠোঁটের ওপর আঙুল বোলান। আমাদের ঠোঁটে অনেক প্যারাসিমপ্যাথেটিক নার্ভ ফাইবার থাকে। আঙুল চালালে এসব ফাইবার উত্তেজিত হয়ে ওঠে ও নার্ভাস সিস্টেমকে শান্ত করতে সাহায্য করে।

ডিপ ব্রিদিং করুন। গভীরভাবে শ্বাস নিন, ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। নাক দিয়ে শ্বাস নিন, মুখ দিয়ে শ্বাস ছাড়ুন। যত সময় ধরে শ্বাস নিচ্ছেন, তার দ্বিগুণ সময় ধরে ছাড়ুন। বেলি ব্রিদিং করুন। এই ধরনের শ্বাস প্রক্রিয়ায় ফুসফুস ভরে শ্বাস নিলে বুক নয় পেট ফুলে ওঠে।

নিশ্বাস ছাড়ার সময় পেট ভিতরে ঢুকে যায়। এতে রিল্যাক্সেশন হয়। প্রতিদিন এভাবে কিছুক্ষণ শ্বাস নিন। একটা কাজ করার সময় অন্য কাজের চিন্তা করবেন না। এতে মনঃসংযোগ হবে না, নার্ভাস হয়ে পড়বেন। যখন কোনো একটি কাজ করবেন, সেই কাজেই মন দিন। মনঃসংযোগ বাড়লে নার্ভাসনেস কমবে।

নিজেকে নিয়ে আপনি কি খুব গর্বিত? নিজের কাজ, নিজের চেহারা ইত্যাদি নিয়ে কি আপনার গর্বের শেষ নেই? তাহলে এটা আপনার নার্ভাস ব্রেক-ডাউনের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। নিজের ইমেজ বা ইগোর প্রতি অল্প আঘাত এলেই আপনি ভেঙে পড়তে পারেন। এই আত্মপ্রেম বা গর্বের বোধটা কমাতে হবে।

হাজার পরামর্শ রয়েছে তা সত্ত্বেও অনেকে চাপ এবং নার্ভ সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। যার ফলে সাফল্যের দরজাও খুলছে না। নার্ভ সিস্টেম এমন একটি ইস্যু যা এতই ব্যক্তিগত যে সমাধান দেয়া সম্ভব নয়। স্রষ্টা আমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন, তার শক্তি, অস্তিত্ব, কৃতিত্ব এত অপরিসীম যা আমাদের ধরাছোঁয়ার বাইরে। সুতরাং স্রষ্টার সৃষ্টির মাঝে খুঁজতে হবে আমাদেরকে। সেক্ষেত্রে ধ্যান করা, নামাজ পড়া জরুরি।

আমাদের প্রত্যেকটি অংশ মহান স্রষ্টার নিয়ন্ত্রণে এবং শুধু তিনিই পারেন সকল সমস্যা দূর করতে। সেক্ষেত্রে বলা যেতে পারে ভাগ্যের লিখন না হয় খণ্ডন। আমার মনে হয় যেটা পুনঃনির্ধারিত সেটাই হবে। তবে আমাদেরকেই নিজ নিজ জায়গা থেকে চেষ্টা করতে হবে সমাধানের। কিন্তু সমাধানের চেষ্টা করলেই যে সমাধান হয়ে যাবে এমনটি নয়।

সবশেষে বলতে চাই, জীবনের অপর নাম সমস্যা। সব সমস্যার সমাধান হবে না। আর সব সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব একজনের নয়। আপনি যদি সব সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে নিয়ে নেন, তাহলে কোনো না কোনো ক্ষেত্রে ব্যর্থ হবেনই। যখন ব্যর্থ হবেন আত্মবিশ্বাস হারাতে থাকবেন, আপনার স্ট্রেসও বাড়তে থাকবে।

যখন স্ট্রেস বাড়বে তখন ব্যর্থতার হারও বাড়তে থাকবে। এভাবে আপনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়বেন। চূড়ান্ত অর্থে জীবনে পরাজিত হবেন। অতএব বাস্তববাদী হোন, সমাধানযোগ্য সমস্যা নিয়ে ভাবুন, নিজের সামর্থ্য সম্পর্কে সচেতন থাকুন। তাহলে অবশ্যই আপনি স্ট্রেস মোকাবেলা করতে পারবেন। জীবনে সফল হবেন।

লেখক: রহমান মৃধা, সাবেক পরিচালক (প্রোডাকশন অ্যান্ড সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট), ফাইজার, সুইডেন থেকে, rahman.mridha@gmail.com

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

মানুষ কেন নার্ভাস হয়? কীভাবে স্ট্রেস মোকাবেলা করবেন?

 রহমান মৃধা, সুইডেন থেকে 
৩০ জানুয়ারি ২০২১, ০১:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রেমে পড়েছেন! প্রথমবারের মত মঞ্চে উঠেছেন, হাজার মানুষ তাকিয়ে রয়েছে আপনার দিকে। বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা। ৯০ মিনিট খেলার পরও গোল হয়নি, পেনাল্টি করতে হবে। হারজিত নির্ভর করছে শেষের পেনাল্টির ওপর। সবাই নার্ভাস, কী পরিমাণ নার্ভাস তা কেউ জানে না। চাকরির ইন্টারভিউ, ভীষণ নার্ভাস। কিছুতেই নিজেকে নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না। পছন্দের মানুষটিকে পছন্দ করি কিন্তু বলার মত শক্তি বা সাহস কিছুই নেই। কারণ কী? 

লজ্জা, ভয়, জড়তা, দুর্বলতা, নার্ভাস নাকি সব কিছুর সমন্বয়? মাঝেমাঝেই নার্ভাস হয়ে পড়েন? কোন অতিরিক্ত কাজ এসে গেলে অথবা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোন কাজ সারতে না পারলেই কি নার্ভাসনেস আপনাকে গ্রাস করে? এমন আরও অনেক কিছু আছে যা আপনাকে প্রায়শই নার্ভাস করে তোলে। কিন্তু নার্ভাস হয়ে পড়লেই তো হবে না। নিজেই নিজেকে এ সমস্যা থেকে বের করে আনতে হবে।
 
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বদলে যাওয়া জীবনযাত্রায় স্ট্রেসের পরিমাণ অনেকটাই বেড়েছে। স্ট্রেস বা মানসিক চাপের পরিমাণ বাড়লে স্বাভাবিকভাবেই বাড়বে মানসিক চাপে ভেঙে পড়ার প্রবণতা। কোনও বড় কাজ করার আগে, পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা দিতে যাওয়ার আগে, পেশার জগতে কোনও কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বা পারিবারিক-সামাজিক সংকটে এই মানসিক চাপ বিরাট আকার ধারণ করে। 

এ ধরণের সমস্যায় অহরহ পড়তে হয় আমাদের। দিন যত যাচ্ছে, জীবন তত জটিল হচ্ছে। জীবন যত জটিল হচ্ছে মানসিক চাপও তত বাড়ছে। এবং এভাবে এটা বেড়েই চলেছে। কথা বলবেন মনোবিজ্ঞানীদের সঙ্গে? তারা বলবেন গান শুনুন, সিনেমা দেখুন, বই পড়ুন। যা করতে ভালো লাগে তাই করুন ইত্যাদি।

শরীর সুস্থ থাকলে, স্বাস্থ্য ভাল থাকলে, স্ট্রেস কম হবে। তাই খাওয়া দাওয়ার দিকে নজর দিন। পুষ্টিকর খাবার খান ইত্যাদি। এতে নিজেকে ভাল করে চিনতে এবং বুঝতে শিখবেন। নিজের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরি করুন। একা একা সময় কাটাবেন না। বন্ধু বা পছন্দের মানুষদের সঙ্গ অথবা আপনার প্রতি সহমর্মী এ ধরনের মানুষদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন, সময় ভালো যাবে।

কেন জীবনে স্ট্রেস হচ্ছে, কী কারণে মানসিক চাপে ভুগছেন তা খুঁজে বের করে সমাধান করার চেষ্টা করতে হবে। যত বেশি স্ট্রেস থেকে পালাতে চাইবেন তত বেশি স্ট্রেস আপনাকে আচ্ছন্ন করে ফেলবে।

জীবনে কী ঘটতে চলেছে, কী হবে তা নিয়ে না ভেবে যা কিছু পেয়েছেন, যা কিছু আছে তার মূল্য দিন। নিজের এবং স্রষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকুন। জীবনকে উপভোগ করুন। নিজের সাফল্যের সময়কার কথা ভাবুন। সেই সমস্ত ঘটনা যেমন পরীক্ষার কথা মনে করুন, যেগুলো আপনি সাফল্যের সঙ্গে পেরিয়ে এসেছেন। চেষ্টা করুন এমন কোনও ঘটনার কথা মনে করতে, যখন আপনি খুব আনন্দে ছিলেন।

নার্ভাস বোধ করলে পেট এবং ঠোঁটের ওপর আঙুল বোলান। আমাদের ঠোঁটে অনেক প্যারাসিমপ্যাথেটিক নার্ভ ফাইবার থাকে। আঙুল চালালে এসব ফাইবার উত্তেজিত হয়ে ওঠে ও নার্ভাস সিস্টেমকে শান্ত করতে সাহায্য করে।

ডিপ ব্রিদিং করুন। গভীরভাবে শ্বাস নিন, ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। নাক দিয়ে শ্বাস নিন, মুখ দিয়ে শ্বাস ছাড়ুন। যত সময় ধরে শ্বাস নিচ্ছেন, তার দ্বিগুণ সময় ধরে ছাড়ুন। বেলি ব্রিদিং করুন। এই ধরনের শ্বাস প্রক্রিয়ায় ফুসফুস ভরে শ্বাস নিলে বুক নয় পেট ফুলে ওঠে। 

নিশ্বাস ছাড়ার সময় পেট ভিতরে ঢুকে যায়। এতে রিল্যাক্সেশন হয়। প্রতিদিন এভাবে কিছুক্ষণ শ্বাস নিন। একটা কাজ করার সময় অন্য কাজের চিন্তা করবেন না। এতে মনঃসংযোগ হবে না, নার্ভাস হয়ে পড়বেন। যখন কোনো একটি কাজ করবেন, সেই কাজেই মন দিন। মনঃসংযোগ বাড়লে নার্ভাসনেস কমবে।

নিজেকে নিয়ে আপনি কি খুব গর্বিত? নিজের কাজ, নিজের চেহারা ইত্যাদি নিয়ে কি আপনার গর্বের শেষ নেই? তাহলে এটা আপনার নার্ভাস ব্রেক-ডাউনের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। নিজের ইমেজ বা ইগোর প্রতি অল্প আঘাত এলেই আপনি ভেঙে পড়তে পারেন। এই আত্মপ্রেম বা গর্বের বোধটা কমাতে হবে।

হাজার পরামর্শ রয়েছে তা সত্ত্বেও অনেকে চাপ এবং নার্ভ সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। যার ফলে সাফল্যের দরজাও খুলছে না। নার্ভ সিস্টেম এমন একটি ইস্যু যা এতই ব্যক্তিগত যে সমাধান দেয়া সম্ভব নয়। স্রষ্টা আমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন, তার শক্তি, অস্তিত্ব, কৃতিত্ব এত অপরিসীম যা আমাদের ধরাছোঁয়ার বাইরে। সুতরাং স্রষ্টার সৃষ্টির মাঝে খুঁজতে হবে আমাদেরকে। সেক্ষেত্রে ধ্যান করা, নামাজ পড়া জরুরি। 

আমাদের প্রত্যেকটি অংশ মহান স্রষ্টার নিয়ন্ত্রণে এবং শুধু তিনিই পারেন সকল সমস্যা দূর করতে। সেক্ষেত্রে বলা যেতে পারে ভাগ্যের লিখন না হয় খণ্ডন। আমার মনে হয় যেটা পুনঃনির্ধারিত সেটাই হবে। তবে আমাদেরকেই নিজ নিজ জায়গা থেকে চেষ্টা করতে হবে সমাধানের। কিন্তু সমাধানের চেষ্টা করলেই যে সমাধান হয়ে যাবে এমনটি নয়।

সবশেষে বলতে চাই, জীবনের অপর নাম সমস্যা। সব সমস্যার সমাধান হবে না। আর সব সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব একজনের নয়। আপনি যদি সব সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে নিয়ে নেন, তাহলে কোনো না কোনো ক্ষেত্রে ব্যর্থ হবেনই। যখন ব্যর্থ হবেন আত্মবিশ্বাস হারাতে থাকবেন, আপনার স্ট্রেসও বাড়তে থাকবে। 

যখন স্ট্রেস বাড়বে তখন ব্যর্থতার হারও বাড়তে থাকবে। এভাবে আপনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়বেন। চূড়ান্ত অর্থে জীবনে পরাজিত হবেন। অতএব বাস্তববাদী হোন, সমাধানযোগ্য সমস্যা নিয়ে ভাবুন, নিজের সামর্থ্য সম্পর্কে সচেতন থাকুন। তাহলে অবশ্যই আপনি স্ট্রেস মোকাবেলা করতে পারবেন। জীবনে সফল হবেন।

লেখক: রহমান মৃধা, সাবেক পরিচালক (প্রোডাকশন অ্যান্ড সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট), ফাইজার, সুইডেন থেকে, rahman.mridha@gmail.com

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রহমান মৃধার কলাম

০৭ মার্চ, ২০২১
১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
০২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১