মালয়েশিয়ায় ‘সাধারণ ক্ষমার পরিকল্পনার প্রয়োজন নেই’: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
jugantor
মালয়েশিয়ায় ‘সাধারণ ক্ষমার পরিকল্পনার প্রয়োজন নেই’: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে  

১২ জুন ২০২১, ২২:০৫:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

মালয়েশিয়ায় গত বছরের নভেম্বর মাসে শুরু হওয়া শ্রম পুনরুদ্ধার রিক্যালিব্রেশন কর্মসূচি এখনো অব্যাহত থাকায় অবৈধ অভিবাসীদের জন্য আবার সাধারণ ক্ষমার কর্মসূচির প্রয়োজন নেই বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সেরি হামজাহ জয়নুদিন।

একই সঙ্গে যথাযথ দলিলবিহীন অবৈধ অভিবাসীদের চিহ্নিত করার জন্য অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানিয়েছেন।
পুনঃব্যবস্থাপনার কর্মসূচির আওতায় নির্মাণ, উৎপাদন, বৃক্ষরোপণ এবং কৃষিক্ষেত্রে নিয়োগকারীদের অননুমোদিত বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের অনুমতি দেওয়া হয়।

এ কর্মসূচিটি এখন চারটি সাব-সেক্টরের নিয়োগকারীদের জন্য বাড়ানো হয়েছে- পাইকারি ও খুচরা, রেস্তোরাঁ, কার্গো পাশাপাশি পরিষ্কারের পরিষেবাগুলো।
এদিকে ইমিগ্রেশনের ফেসবুক পেজে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দেয়া হয়েছে- কঠোর লকডাউনের মধ্যেও রিক্যালিব্রেশনের কাজ চলমান থাকবে। তবে প্রবাসীদের প্রত্যাশা রিক্যালিব্রেশনের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হবে। ইতোমধ্যে বৈধকরণ কর্মসূচির মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য মালয়েশিয়া সরকারের কাছে বাংলাদেশ হাইকমিশন অনুরোধ করেছে বলে হাইকমিশনের একটি সূত্রে জানা গেছে।

১১ জুন দেশটির জাতীয় সংবাদ মাধ্যম দ্য স্টারকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে হামজা বলেছেন, "এটির কারণ তাদের যথাযথ ডকুমেন্টেশন থাকবে এবং তাদের আর লুকিয়ে থাকতে হবে না।"

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এটাও বলেছেন, বিরোধী আইনপ্রণেতারা এবং মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো অবৈধদের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং জাতীয় কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচির সুষ্ঠু বাস্তবায়ন নিশ্চিত করার জন্য সরকারকে এ পদক্ষেপ বন্ধ করে সাধারণ ক্ষমা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। তারা উল্লেখ করেছেন, এ ধরনের অভিযান দুর্বল লোকদের আত্মগোপনে ঠেলে দিতে পারে এবং কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে।

হামজা বলেছেন, পুনরুদ্ধার কর্মসূচি শুরুর পর থেকে ২ লাখেরও বেশি অভিবাসী নিবন্ধিত হয়েছেন। এদের মধ্যে প্রায় ১ লাখ ১০ হাজার বৈধতা পেতে আবেদন করেছেন এবং এর মধ্যে প্রায় ১ লাখ অবৈধ অভিবাসী নিজ নিজ দেশে ফিরে গেছেন।
হামজাহ ১৪ জন আইন প্রণেতাদের একটি দলকেও তীব্র নিন্দা জানালেন যারা ডকুমেন্টেশন প্রাপ্তির প্রক্রিয়াটি সহজ করার জন্য সরকারের পদক্ষেপের বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছিলেন, যে অবৈধ অভিবাসীরা কিছু মালয়েশিয়ার শিকার হয়েছেন। যদি তারা মালয়েশিযার দ্বারা শিকার হচ্ছে (অভিযোগ হিসাবে), আমাদের পরিস্থিতি সংশোধন করা দরকার। আমরা যদি এই লোকদের খুঁজে না পাই তবে কীভাবে আমরা এটি সংশোধন করতে পারি?

হামজা বলেছেন, গত বছরের ডিসেম্বরে মালয়েশিযায় পিআর স্ট্যাটাস, অস্থায়ী ওয়ার্ক পারমিট এবং স্বামী-স্ত্রী ভিসাসহ অন্তত ২.৫ মিলিয়ন বিদেশি নিবন্ধিত ছিল। আমরা এদের নিয়ে উদ্বিগ্ন নই। আমরা যদি তাদের ভ্যাকসিন দিতে চাই, আমরা জানি তারা কোথায় থাকে, আমরা যোগাযোগের ট্রেসিং করতে অসুবিধা হবে না।

পৃথক বিষয়ে হামজা জাতিসংঘের শরণার্থী হাই কমিশনারকে (ইউএনএইচসিআর) সতর্ক করেছেন যে, তারা যথাযথ পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে কেবল তাদের কার্ড না দেওয়ার কারণ এটি দশ বছরেরও কম সময়ের মধ্যে লাখ লাখ পৌঁছে যাবে। মন্ত্রণালয়ের রেকর্ডে ২০১৩ সালে ১ লাখ ৪০ হাজার ৯৮৩ এর তুলনায় বর্তমানে ১ লাখ ৭৯ হাজার ৩৮৩ ইউএনএইচসিআর কার্ডধারী রয়েছে। যা মালয়েশিযার সংখ্যাগরিষ্ঠ সংখ্যক শরণার্থীর সাথে একমত নন, যারা মালয়েশিয়াকে তাদের পছন্দের গন্তব্য হিসাবে গড়ে তুলেছিল, কারণ এটি বিভিন্ন সামাজিক অসুস্থতার কারণ হতে পারে।

তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার পক্ষে বহিরাগতদের বোঝা বহন করা অন্যায্য। আমরা তার নিজস্ব আইনসহ একটি সার্বভৌম দেশ হওয়ায় আমাদের একটি বিশ্বাসযোগ্য সমাধান খুঁজতে হবে এবং শরণার্থীদের সমাধানে ইউএনএইচসিআর এর সঙ্গে সরকার কাজ করবে বলেও জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামজাহ জয়নুদিন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

মালয়েশিয়ায় ‘সাধারণ ক্ষমার পরিকল্পনার প্রয়োজন নেই’: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

 আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে 
১২ জুন ২০২১, ১০:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মালয়েশিয়ায় গত বছরের নভেম্বর মাসে শুরু হওয়া শ্রম পুনরুদ্ধার রিক্যালিব্রেশন কর্মসূচি এখনো অব্যাহত থাকায় অবৈধ অভিবাসীদের জন্য আবার সাধারণ ক্ষমার কর্মসূচির প্রয়োজন নেই বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সেরি হামজাহ জয়নুদিন।

একই সঙ্গে যথাযথ দলিলবিহীন অবৈধ অভিবাসীদের চিহ্নিত করার জন্য অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানিয়েছেন।
পুনঃব্যবস্থাপনার কর্মসূচির আওতায় নির্মাণ, উৎপাদন, বৃক্ষরোপণ এবং কৃষিক্ষেত্রে নিয়োগকারীদের অননুমোদিত বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের অনুমতি দেওয়া হয়।

এ কর্মসূচিটি এখন চারটি সাব-সেক্টরের নিয়োগকারীদের জন্য বাড়ানো হয়েছে- পাইকারি ও খুচরা, রেস্তোরাঁ, কার্গো পাশাপাশি পরিষ্কারের পরিষেবাগুলো।
এদিকে ইমিগ্রেশনের ফেসবুক পেজে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দেয়া হয়েছে- কঠোর লকডাউনের মধ্যেও রিক্যালিব্রেশনের কাজ চলমান থাকবে। তবে প্রবাসীদের প্রত্যাশা রিক্যালিব্রেশনের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হবে। ইতোমধ্যে বৈধকরণ কর্মসূচির মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য মালয়েশিয়া সরকারের কাছে বাংলাদেশ হাইকমিশন অনুরোধ করেছে বলে হাইকমিশনের একটি সূত্রে জানা গেছে।

১১ জুন দেশটির জাতীয় সংবাদ মাধ্যম দ্য স্টারকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে হামজা বলেছেন, "এটির কারণ তাদের যথাযথ ডকুমেন্টেশন থাকবে এবং তাদের আর লুকিয়ে থাকতে হবে না।"

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এটাও বলেছেন, বিরোধী আইনপ্রণেতারা এবং মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো অবৈধদের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং জাতীয় কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচির সুষ্ঠু বাস্তবায়ন নিশ্চিত করার জন্য সরকারকে এ পদক্ষেপ বন্ধ করে সাধারণ ক্ষমা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। তারা উল্লেখ করেছেন, এ ধরনের অভিযান দুর্বল লোকদের আত্মগোপনে ঠেলে দিতে পারে এবং কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে।

হামজা বলেছেন, পুনরুদ্ধার কর্মসূচি শুরুর পর থেকে ২ লাখেরও বেশি অভিবাসী নিবন্ধিত হয়েছেন। এদের মধ্যে প্রায় ১ লাখ ১০ হাজার বৈধতা পেতে আবেদন করেছেন এবং এর মধ্যে প্রায় ১ লাখ অবৈধ অভিবাসী নিজ নিজ দেশে ফিরে গেছেন।
হামজাহ ১৪ জন আইন প্রণেতাদের একটি দলকেও তীব্র নিন্দা জানালেন যারা ডকুমেন্টেশন প্রাপ্তির প্রক্রিয়াটি সহজ করার জন্য সরকারের পদক্ষেপের বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছিলেন, যে অবৈধ অভিবাসীরা কিছু মালয়েশিয়ার শিকার হয়েছেন। যদি তারা মালয়েশিযার দ্বারা শিকার হচ্ছে (অভিযোগ হিসাবে), আমাদের পরিস্থিতি সংশোধন করা দরকার। আমরা যদি এই লোকদের খুঁজে না পাই তবে কীভাবে আমরা এটি সংশোধন করতে পারি?

হামজা বলেছেন, গত বছরের ডিসেম্বরে মালয়েশিযায় পিআর স্ট্যাটাস, অস্থায়ী ওয়ার্ক পারমিট এবং স্বামী-স্ত্রী ভিসাসহ অন্তত ২.৫ মিলিয়ন বিদেশি নিবন্ধিত ছিল। আমরা এদের নিয়ে উদ্বিগ্ন নই। আমরা যদি তাদের ভ্যাকসিন দিতে চাই, আমরা জানি তারা কোথায় থাকে, আমরা যোগাযোগের ট্রেসিং করতে অসুবিধা হবে না।

পৃথক বিষয়ে হামজা জাতিসংঘের শরণার্থী হাই কমিশনারকে (ইউএনএইচসিআর) সতর্ক করেছেন যে, তারা যথাযথ পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে কেবল তাদের কার্ড না দেওয়ার কারণ এটি দশ বছরেরও কম সময়ের মধ্যে লাখ লাখ পৌঁছে যাবে। মন্ত্রণালয়ের  রেকর্ডে ২০১৩ সালে ১ লাখ ৪০ হাজার ৯৮৩ এর তুলনায় বর্তমানে ১ লাখ ৭৯ হাজার ৩৮৩ ইউএনএইচসিআর কার্ডধারী রয়েছে। যা মালয়েশিযার সংখ্যাগরিষ্ঠ সংখ্যক শরণার্থীর সাথে একমত নন, যারা মালয়েশিয়াকে তাদের পছন্দের গন্তব্য হিসাবে গড়ে তুলেছিল, কারণ এটি বিভিন্ন সামাজিক অসুস্থতার কারণ হতে পারে।

তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার পক্ষে বহিরাগতদের বোঝা বহন করা অন্যায্য। আমরা তার নিজস্ব আইনসহ একটি সার্বভৌম দেশ হওয়ায় আমাদের একটি বিশ্বাসযোগ্য সমাধান খুঁজতে হবে এবং শরণার্থীদের সমাধানে ইউএনএইচসিআর এর সঙ্গে সরকার কাজ করবে বলেও জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামজাহ জয়নুদিন।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন