স্পেনের জাতীয় জাদুঘরে অভিবাসীদের আনন্দ উৎসব
jugantor
স্পেনের জাতীয় জাদুঘরে অভিবাসীদের আনন্দ উৎসব

  কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে  

১৫ জুন ২০২১, ২২:৪৫:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত আন্তর্জাতিক জাদুঘর "রেইনা সুফিয়া জাদুঘর" পরিচালনা কমিটির আমন্ত্রণে বাংলাদেশি মানবাধিকার সংগঠন ভালিয়েন্তে বাংলাসহ অন্যান্য দেশের ৩৫টি সামাজিক ও মানবাধিকার সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে ‘প্রবাসে আনন্দের একদিন’ শীর্ষক এক জমকালো উৎসব হয়ে গেল গত শনিবার রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পার্কে।

বিভিন্ন দেশের কয়েক শতাধিক প্রবাসীকে আনন্দের বানে ভাসায় এ আয়োজন। ছিল নারীদের পিঠা প্রতিযোগিতা, সঙ্গীত ও নাচ, সেনেগালের পারসিউশনিস্টলা রুয়েদা, কলম্বিয়া সঙ্গীতডেসি মেসিয়াস গার্সিয়া, কলম্বিয়ান নাচ "কবিতা ভুলে যাওয়া", প্রবাসী শিল্পীদের সংগীত পরিবেশন, নৃত্য ইত্যাদি।

প্রবাসী বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের একাধিক সংগঠন প্রতি বছরের মতো এ বছরও আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে আয়োজন করে বিভিন্ন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের। কিন্তু এ বছর মাদ্রিদ প্রবাসীদের আনন্দ ছিল একটু ভিন্ন।

শনিবার (১২ জুন) স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পার্ক পরিচালনা কমিটির তত্ত্বাবধানে আয়োজন করা হয় এই প্রবাস উৎসবের। এতে দলমত-নির্বিশেষে যোগ দেন বাংলাদেশ, আফ্রিকা, আলজেরিয়া, মরক্কো, কলম্বিয়াসহ ১৫টি দেশের বিপুলসংখ্যক প্রবাসী। এ সময় প্রবাসীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য দেন- মিউজিয়ামের প্রধান পরিচালক ম্যানুয়েল বোরজ-ভিল্লে, পরিচালক আনা লঙ্গোনি, রাফায়েল পিমেণ্টেল, ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহী, রেড ইন্টার লাভাপিসের পেঁপা তররেস, রেড সলিদাদের নিনেস, সেন্ট্রো দে ডোমেস্টিকর রাফায়েল, মাইতে, মারিয়া দে সোনিয়া প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে রেইনা সুফিয়া জাদুঘরের পরিচালক আনা লঙ্গোনির বিদায় উপলক্ষে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। এ সময় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে তাকে পুরস্কার প্রদান করা হয়।

ম্যানুয়েল বোরজ-ভিল্লে, প্রবাসীদের প্রশংসা করে রেইনা সুফিয়া মিউজিয়ামের বিভিন্ন কার্যক্রমে ওপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও স্পেনের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদানের প্রশংসা করেন। তিনি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি স্থানীয় আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে অনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থেকে প্রতিটি দেশের সম্মান বজায় রাখতে প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।


উৎসবে বিভিন্ন দেশের হরেকরকম খাবারের পাশাপাশি আফ্রিকান, এশিয়ান, আরবি ও স্প্যানিশ সংগীত পরিবেশন করা হয়।

এ সময় বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ভালিয়েন্তে বাংলার সাধারণ সম্পাদক রমিজ উদ্দিন সরকার, নারীনেত্রী আফরোজা রহমান, সাংবাদিক কবির আল মাহমুদ, তানিয়া সুলতানা ঝরনা এরিক, শাওন আহমদ, জাবেল, তেরেসা, দেলোয়ার হোসেন, আল আমিন পালোয়ান, জুলহাস উদ্দিন, মাহমুদা আক্তার, মামুন, গিয়াস উদ্দিন, ইসলাম উদ্দিন, মেরেছে, ঈসা প্রমুখ।

অ্যাসোসিয়েশন ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহী বলেন, প্রবাসে নিজেদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ বাড়িয়ে তোলা এবং বিদেশে দেশের আবহমান সংস্কৃতির ঐতিহ্যকে অগ্রসরমান করা। সেই সঙ্গে ভিনদেশিদের কাছে বাঙালির সংস্কৃতির ঐতিহ্য পৌঁছে দেয়া এবং পরিবার-পরিজন নিয়ে সবাই একসঙ্গে হওয়ার আনন্দটা সব সময় অন্যরকম।

বাংলাদেশি নারীনেত্রী আফরোজা রহমান বলেন, করোনার কারণে অনেক দিন পর এরকম একটি সুন্দর এক বিকাল কাটল সবার। এজন্য তিনি রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পরিচালনা কমিটিকে ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার শান্তি কামনা করে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সাল থেকে রাজধানী মাদ্রিদে বসবাসরত অভিবাসীদের নিয়ে প্রতি বছর এ পিকনিক বা আনন্দ উৎসব আয়োজন করে আসছে রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পরিচালনা কমিটি। শুধুমাত্র গত বছর করোনার জন্য এ অনুষ্ঠান করা সম্ভব হয়নি। এছাড়া রেইনা সুফিয়া জাদুঘরকেন্দ্রিক ৩৫টি মানবাধিকার সংগঠন একত্রিত হয়ে অভিবাসীদের দাবি-দাওয়া নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

স্পেনের জাতীয় জাদুঘরে অভিবাসীদের আনন্দ উৎসব

 কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে 
১৫ জুন ২০২১, ১০:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত আন্তর্জাতিক জাদুঘর "রেইনা সুফিয়া জাদুঘর" পরিচালনা কমিটির আমন্ত্রণে বাংলাদেশি মানবাধিকার সংগঠন ভালিয়েন্তে বাংলাসহ অন্যান্য দেশের ৩৫টি সামাজিক ও মানবাধিকার সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে ‘প্রবাসে আনন্দের একদিন’ শীর্ষক এক জমকালো উৎসব হয়ে গেল গত শনিবার রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পার্কে। 

বিভিন্ন দেশের কয়েক শতাধিক প্রবাসীকে আনন্দের বানে ভাসায় এ আয়োজন। ছিল নারীদের পিঠা প্রতিযোগিতা, সঙ্গীত ও নাচ, সেনেগালের পারসিউশনিস্টলা রুয়েদা, কলম্বিয়া সঙ্গীতডেসি মেসিয়াস গার্সিয়া, কলম্বিয়ান নাচ "কবিতা ভুলে যাওয়া", প্রবাসী শিল্পীদের সংগীত পরিবেশন, নৃত্য ইত্যাদি।

প্রবাসী বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের একাধিক সংগঠন প্রতি বছরের মতো এ বছরও আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে আয়োজন করে বিভিন্ন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের। কিন্তু এ বছর মাদ্রিদ প্রবাসীদের আনন্দ ছিল একটু ভিন্ন। 

শনিবার (১২ জুন) স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পার্ক পরিচালনা কমিটির তত্ত্বাবধানে আয়োজন করা হয় এই প্রবাস উৎসবের। এতে দলমত-নির্বিশেষে যোগ দেন বাংলাদেশ, আফ্রিকা, আলজেরিয়া, মরক্কো, কলম্বিয়াসহ ১৫টি দেশের বিপুলসংখ্যক প্রবাসী। এ সময় প্রবাসীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য দেন- মিউজিয়ামের প্রধান পরিচালক ম্যানুয়েল বোরজ-ভিল্লে, পরিচালক আনা লঙ্গোনি, রাফায়েল পিমেণ্টেল, ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহী, রেড ইন্টার লাভাপিসের পেঁপা তররেস, রেড সলিদাদের নিনেস, সেন্ট্রো দে ডোমেস্টিকর রাফায়েল, মাইতে, মারিয়া দে সোনিয়া প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে রেইনা সুফিয়া জাদুঘরের পরিচালক আনা লঙ্গোনির বিদায় উপলক্ষে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। এ সময় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে তাকে পুরস্কার প্রদান করা হয়।  

ম্যানুয়েল বোরজ-ভিল্লে, প্রবাসীদের প্রশংসা করে রেইনা সুফিয়া মিউজিয়ামের বিভিন্ন কার্যক্রমে ওপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা ও স্পেনের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদানের প্রশংসা করেন। তিনি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি স্থানীয় আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে অনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থেকে প্রতিটি দেশের সম্মান বজায় রাখতে প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।


উৎসবে বিভিন্ন দেশের হরেকরকম খাবারের পাশাপাশি আফ্রিকান, এশিয়ান, আরবি ও স্প্যানিশ সংগীত পরিবেশন করা হয়।

এ সময় বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ভালিয়েন্তে বাংলার সাধারণ সম্পাদক রমিজ উদ্দিন সরকার, নারীনেত্রী আফরোজা রহমান, সাংবাদিক কবির আল মাহমুদ, তানিয়া সুলতানা ঝরনা এরিক, শাওন আহমদ, জাবেল, তেরেসা, দেলোয়ার হোসেন, আল আমিন পালোয়ান, জুলহাস উদ্দিন, মাহমুদা আক্তার, মামুন, গিয়াস উদ্দিন, ইসলাম উদ্দিন, মেরেছে, ঈসা প্রমুখ। 

অ্যাসোসিয়েশন ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহী বলেন, প্রবাসে নিজেদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ বাড়িয়ে তোলা এবং বিদেশে দেশের আবহমান সংস্কৃতির ঐতিহ্যকে অগ্রসরমান করা। সেই সঙ্গে ভিনদেশিদের কাছে বাঙালির সংস্কৃতির ঐতিহ্য পৌঁছে দেয়া এবং পরিবার-পরিজন নিয়ে সবাই একসঙ্গে হওয়ার আনন্দটা সব সময় অন্যরকম। 

বাংলাদেশি নারীনেত্রী আফরোজা রহমান বলেন, করোনার কারণে অনেক দিন পর এরকম একটি সুন্দর এক বিকাল কাটল সবার। এজন্য তিনি রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পরিচালনা কমিটিকে ধন্যবাদ জানান। 

অনুষ্ঠানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার শান্তি কামনা করে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। 

উল্লেখ্য, ২০১৮ সাল থেকে রাজধানী মাদ্রিদে বসবাসরত অভিবাসীদের নিয়ে প্রতি বছর এ পিকনিক বা আনন্দ উৎসব আয়োজন করে আসছে রেইনা সুফিয়া জাদুঘর পরিচালনা কমিটি। শুধুমাত্র গত বছর করোনার জন্য এ অনুষ্ঠান করা সম্ভব হয়নি। এছাড়া রেইনা সুফিয়া জাদুঘরকেন্দ্রিক ৩৫টি মানবাধিকার সংগঠন একত্রিত হয়ে অভিবাসীদের দাবি-দাওয়া নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন