মাদ্রিদে আন্তর্জাতিক আইএমইএক্স মেলায় বাংলাদেশ
jugantor
মাদ্রিদে আন্তর্জাতিক আইএমইএক্স মেলায় বাংলাদেশ

  কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে  

১৮ জুন ২০২১, ০১:০৬:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের উৎপাদক, পরিবেশক, ব্যবসায়ী, আমদানিকারক ও রপ্তানিকারকদের এক ছাতার নিচে নিয়ে স্পেনের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ক পত্রিকা মনেদা উনিকা (Moneda Unica) আএমইএক্স মাদ্রিদ নামক আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ক ইভেন্ট আয়োজন করে আসছে। বুধবার তাদের ১৯তম মেলায় প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ।

৫ দিনব্যাপী এ আয়োজনে ৪ দিন ভার্চুয়াল এবং ১ দিন (১৬ জুন) সরাসরি মাদ্রিদের সিটি হল পালাসিও দে সিবেলেসে অনুষ্ঠিত হয়। এবার ৫০টির অধিক দেশ এই ইভেন্টে অংশগ্রহণ করছে।

বাংলাদেশ দূতাবাস মাদ্রিদের কমার্শিয়াল উইং ১৬ জুন সরাসরি ইভেন্টে বাংলাদেশের জন্য একটি স্টল বরাদ্দ নেয়। এ স্টলে স্পেনে অবস্থিত আগ্রহী ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের সাথে সভা ও তথ্য প্রদান করা হয়েছে। সরাসরি এই ইভেন্টে বাংলাদেশকে নিয়ে ব্যাপক আগ্রহ দেখিয়েছেন স্প্যানিশ ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীরা। বাংলাদেশের শুধু গার্মেন্টস সেক্টর নয় অন্যান্য সেক্টরেও বিশেষ করে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, তথ্যপ্রযুক্তি, জনশক্তি, বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ উৎপাদনশীল খাতে স্প্যানিশ ব্যবসায়ীদের আগ্রহ রয়েছে বলে জানান দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর রেদোয়ান আহমেদ।

এ দিন বিকাল সাড়ে ৫টায় Business and Investment Opportunities in Bangladesh শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়, যা একইসাথে ইউটিউব ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়। যেখানে স্পেন ও বাংলাদেশ থেকেও অনেকেই দর্শক হিসেবে যোগ দেন। সেমিনারে মূল বক্তব্য উপস্থাপনা করেন দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর রেদোয়ান আহমেদ। মূল প্রবন্ধ পাঠ করার পূর্বে সেমিনারে বক্তব্য রাখেন দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ। তিনি বাংলাদেশকে দক্ষিণ এশিয়ার ইমার্জিং টাইগার হিসেবে আইএমএফ এবং বিশ্বব্যাংকের মন্তব্য গুরুত্বসহকারে উল্লেখ করেন।

দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর রেদোয়ান আহমেদ বলেন, কোভিড পরবর্তী অবস্থায় মাদ্রিদে এটাই প্রথম বাণিজ্য সম্পর্কিত আয়োজন। আজকের এ সরাসরি আয়োজনে বাংলাদেশের অংশ নেয়ার কারণে বাংলাদেশে ব্যবসা বা বিনিয়োগে আগ্রহী ব্যবসায়ীরা আমাদের সাথে আলোচনা করার জন্য আগে থেকেই সাক্ষাতের তারিখ নিয়ে রেখেছেন। এখানে অংশগ্রহণের কারণেই আমরা তাদের এ আগ্রহের বিষয়ে জানতে পেরেছি। আমাদের উদ্দেশ্য বাংলাদেশকে স্প্যানিশ ব্যবসায়ীদের কাছে ইতিবাচকভাবে তুলে ধরা।

সেমিনার শেষে বাংলাদেশের স্পেন-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট মিজ নুরিয়া লোপেজ বাংলাদেশে ব্যবসা ও বিনিয়োগের নানা ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরেন। মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর মেলায় অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশের স্টল পরিদর্শন করেন স্পেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ, দূতাবাসের দূতালয় প্রধান এটিএম আব্দুর রউফ মণ্ডল, প্রথম সচিব (শ্রম) মুতাসিমুল ইসলাম ও প্রথম সচিব তাহমিনা আরফিন শারমিন।

এছাড়াও স্পেন আওয়ামী লীগের সভাপতি এসআই রবিন, স্পেন বাংলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাহাদুল সুহেদসহ কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যাক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় আয়োজক আইএমইএক্স মাদ্রিদ ২০২১ কর্তৃপক্ষ মেলায় বাংলাদেশের সফল অংশগ্রহণ ও দূতাবাস থেকে সার্বিক সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশ দূতাবাসকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এ মেলায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ দূতাবাস এবং কমার্শিয়াল উইংয়ের ইতিবাচক ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন আয়োজকরা।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

মাদ্রিদে আন্তর্জাতিক আইএমইএক্স মেলায় বাংলাদেশ

 কবির আল মাহমুদ, স্পেন থেকে 
১৮ জুন ২০২১, ০১:০৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের উৎপাদক, পরিবেশক, ব্যবসায়ী, আমদানিকারক ও রপ্তানিকারকদের এক ছাতার নিচে নিয়ে স্পেনের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ক পত্রিকা মনেদা উনিকা (Moneda Unica) আএমইএক্স মাদ্রিদ নামক আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ক ইভেন্ট আয়োজন করে আসছে। বুধবার তাদের ১৯তম মেলায় প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ।

৫ দিনব্যাপী এ আয়োজনে ৪ দিন ভার্চুয়াল এবং ১ দিন (১৬ জুন) সরাসরি মাদ্রিদের সিটি হল পালাসিও দে সিবেলেসে অনুষ্ঠিত হয়। এবার ৫০টির অধিক দেশ এই ইভেন্টে অংশগ্রহণ করছে। 

বাংলাদেশ দূতাবাস মাদ্রিদের কমার্শিয়াল উইং ১৬ জুন সরাসরি ইভেন্টে বাংলাদেশের জন্য একটি স্টল বরাদ্দ নেয়। এ স্টলে স্পেনে অবস্থিত আগ্রহী ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের সাথে সভা ও তথ্য প্রদান করা হয়েছে। সরাসরি এই ইভেন্টে বাংলাদেশকে নিয়ে ব্যাপক আগ্রহ দেখিয়েছেন স্প্যানিশ ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীরা। বাংলাদেশের শুধু গার্মেন্টস সেক্টর নয় অন্যান্য সেক্টরেও বিশেষ করে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, তথ্যপ্রযুক্তি, জনশক্তি, বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ উৎপাদনশীল খাতে স্প্যানিশ ব্যবসায়ীদের আগ্রহ রয়েছে বলে জানান দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর রেদোয়ান আহমেদ।
 
এ দিন বিকাল সাড়ে ৫টায় Business and Investment Opportunities in Bangladesh শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়, যা একইসাথে ইউটিউব ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়। যেখানে স্পেন ও বাংলাদেশ থেকেও অনেকেই দর্শক হিসেবে যোগ দেন। সেমিনারে মূল বক্তব্য উপস্থাপনা করেন দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর রেদোয়ান আহমেদ। মূল প্রবন্ধ পাঠ করার পূর্বে সেমিনারে বক্তব্য রাখেন দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ। তিনি বাংলাদেশকে দক্ষিণ এশিয়ার ইমার্জিং টাইগার হিসেবে আইএমএফ এবং বিশ্বব্যাংকের মন্তব্য গুরুত্বসহকারে উল্লেখ করেন। 

দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর রেদোয়ান আহমেদ বলেন, কোভিড পরবর্তী অবস্থায় মাদ্রিদে এটাই প্রথম বাণিজ্য সম্পর্কিত আয়োজন। আজকের এ সরাসরি আয়োজনে বাংলাদেশের অংশ নেয়ার কারণে বাংলাদেশে ব্যবসা বা বিনিয়োগে আগ্রহী ব্যবসায়ীরা আমাদের সাথে আলোচনা করার জন্য আগে থেকেই সাক্ষাতের তারিখ নিয়ে রেখেছেন। এখানে অংশগ্রহণের কারণেই আমরা তাদের এ আগ্রহের বিষয়ে জানতে পেরেছি। আমাদের উদ্দেশ্য বাংলাদেশকে স্প্যানিশ ব্যবসায়ীদের কাছে ইতিবাচকভাবে তুলে ধরা। 

সেমিনার শেষে বাংলাদেশের স্পেন-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট মিজ নুরিয়া লোপেজ বাংলাদেশে ব্যবসা ও বিনিয়োগের নানা ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরেন। মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর মেলায় অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশের স্টল পরিদর্শন করেন স্পেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ, দূতাবাসের দূতালয় প্রধান এটিএম আব্দুর রউফ মণ্ডল,  প্রথম সচিব (শ্রম) মুতাসিমুল ইসলাম ও প্রথম সচিব তাহমিনা আরফিন শারমিন। 

এছাড়াও স্পেন আওয়ামী লীগের সভাপতি এসআই রবিন, স্পেন বাংলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাহাদুল সুহেদসহ কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যাক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় আয়োজক আইএমইএক্স মাদ্রিদ ২০২১ কর্তৃপক্ষ মেলায় বাংলাদেশের সফল অংশগ্রহণ ও দূতাবাস থেকে সার্বিক সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশ দূতাবাসকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এ মেলায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ দূতাবাস এবং কমার্শিয়াল উইংয়ের ইতিবাচক ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন আয়োজকরা।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন