পাসপোর্টবিহীন প্রবাসীদের দেশে ফেরাতে নাম নিবন্ধন শুরু
jugantor
পাসপোর্টবিহীন প্রবাসীদের দেশে ফেরাতে নাম নিবন্ধন শুরু

  ওয়াসীম আকরাম, লেবানন থেকে  

২২ জুন ২০২১, ০১:২৬:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

লেবানন থেকে পাসপোর্টবিহীন প্রবাসী বাংলাদেশিদের স্বেচ্ছায় দেশে ফেরতের নাম নিবন্ধনের বিশেষ কর্মসূচি শুরু হয়েছে।

দূতাবাসের আয়োজনে পূর্বঘোষিত এই কর্মসূচি ২০ জুন (রোববার) সকাল এগারোটায় আল আনসার স্টেডিয়ামে শুরু হয় এবং ২৫ জুন পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলবে। এছাড়া যাদের পাসপোর্ট আছে তারা দেশে ফিরতে নাম নিবন্ধন করতে পারবে।

প্রথম দিন নাম নিবন্ধনের উপস্থিতি কিছুটা কম থাকলেও যারা নাম নিবন্ধন করেছেন তারা রাষ্ট্রদূতসহ দূতাবাসের কর্মকর্তাদেরকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

নাম নিবন্ধনকারী নারী কর্মী শেফালী বেগম জানান, নয় বছর আগে গৃহকর্মী হিসাবে লেবানন আসেন তিনি। ভাষাগত সমস্যা ও মালিকের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে অন্যত্র পালিয়ে দীর্ঘ ৯ বছর কাজ করেন।

পাসপোর্ট ছাড়াই মালিকের বাসা ত্যাগ করে ভয়ের মধ্য দিয়ে কাজ করলেও কাগজপত্র না থাকায় দেশে যেতে পারেননি শেফালী। দূতাবাসের এমন ঘোষণার পর বাংলাদেশ থেকে জন্মনিবন্ধন সনদ এনে নাম নিবন্ধন করেন তিনি।

শেফালী বেগম বলেন, আগে এখানে রোজগার ভালোই ছিল। খেয়ে দেয়ে পরিবারের জন্য পঁচিশ বা ত্রিশ হাজার টাকা পাঠানো যেত। বর্তমানে এদেশের টাকার মূল্য হ্রাস ও ডলারের মূল্য বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন সমস্যা, কাজ থাকলেও পাঁচ বা ছয় হাজার টাকার বেশি দেশে পাঠানো অসম্ভব হয়ে পড়ায় চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

পাসপোর্টবিহীন প্রবাসীদের দেশে ফেরাতে নাম নিবন্ধন শুরু

 ওয়াসীম আকরাম, লেবানন থেকে 
২২ জুন ২০২১, ০১:২৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লেবানন থেকে পাসপোর্টবিহীন প্রবাসী বাংলাদেশিদের স্বেচ্ছায় দেশে ফেরতের নাম নিবন্ধনের বিশেষ কর্মসূচি শুরু হয়েছে।

দূতাবাসের আয়োজনে পূর্বঘোষিত এই কর্মসূচি ২০ জুন (রোববার) সকাল এগারোটায় আল আনসার স্টেডিয়ামে শুরু হয় এবং ২৫ জুন পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলবে। এছাড়া যাদের পাসপোর্ট আছে তারা দেশে ফিরতে নাম নিবন্ধন করতে পারবে।

প্রথম দিন নাম নিবন্ধনের উপস্থিতি কিছুটা কম থাকলেও যারা নাম নিবন্ধন করেছেন তারা রাষ্ট্রদূতসহ দূতাবাসের কর্মকর্তাদেরকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

নাম নিবন্ধনকারী নারী কর্মী শেফালী বেগম জানান, নয় বছর আগে গৃহকর্মী হিসাবে লেবানন আসেন তিনি। ভাষাগত সমস্যা ও মালিকের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে অন্যত্র পালিয়ে দীর্ঘ ৯ বছর কাজ করেন।

পাসপোর্ট ছাড়াই মালিকের বাসা ত্যাগ করে ভয়ের মধ্য দিয়ে কাজ করলেও কাগজপত্র না থাকায় দেশে যেতে পারেননি শেফালী। দূতাবাসের এমন ঘোষণার পর বাংলাদেশ থেকে জন্মনিবন্ধন সনদ এনে নাম নিবন্ধন করেন তিনি।

শেফালী বেগম বলেন, আগে এখানে রোজগার ভালোই ছিল। খেয়ে দেয়ে পরিবারের জন্য পঁচিশ বা ত্রিশ হাজার টাকা পাঠানো যেত। বর্তমানে এদেশের টাকার মূল্য হ্রাস ও ডলারের মূল্য বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন সমস্যা, কাজ থাকলেও পাঁচ বা ছয় হাজার টাকার বেশি দেশে পাঠানো অসম্ভব হয়ে পড়ায় চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন