ভিয়েনায় বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালন
jugantor
ভিয়েনায় বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালন

  রাকিব হাসান রাফি, স্লোভেনিয়া থেকে   

১০ আগস্ট ২০২১, ০০:০৯:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ভিয়েনায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদার মধ্য দিয়ে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯১তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়।

করোনা মহামারির প্রেক্ষিতে বিভিন্ন বিধিনিষেধের কারণে একটি অনলাইন আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে আলোচনা অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয়। অনুষ্ঠানে বঙ্গমাতার সংগ্রামী জীবনের ওপর সাধারণ আলোচনা হয়। বক্তারা তাদের বক্তব্যে বলেন, জাতির পিতার আন্দোলন সংগ্রামের প্রতিটি ক্ষেত্রে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের প্রেরণা ও অবদান রয়েছে। বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব রাষ্ট্রপ্রধানের সহধর্মিণী হয়েও আজীবন সাধারণ জীবনযাপন করেছেন।

অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সব শহিদ ও মুক্তিযুদ্ধের সব শহিদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। তিনি বঙ্গমাতার সংগ্রামী জীবনের বিভিন্ন দিক উল্লেখ করে বলেন, শেখ মুজিব থেকে বঙ্গবন্ধু, বঙ্গবন্ধু থেকে জাতির পিতা হওয়ার পেছনে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের অনন্য অবদান রয়েছে।

তিনি বলেন, মাত্র পাঁচ বছর বয়সের মধ্যে বঙ্গমাতা পিতা-মাতাকে হারিয়ে সংগ্রামী জীবনের মধ্যে বেড়ে উঠেছিলেন এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে অনবদ্য অবদান রেখে তিনিও হয়ে উঠেন বঙ্গমাতা। তার মতো মহীয়সী নারীর জীবনদর্শন অনুসরণ করার মাধ্যমে নারী উন্নয়ন আরও ত্বরান্বিত হবে। মান্যবর রাষ্ট্রদূত জাতির পিতা, তার পরিবারের সকল শহিদ ও মুক্তিযুদ্ধের সব শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে তার বক্তব্য শেষ করেন। পরিশেষে বিশেষ মোনাজাতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি সমাপ্ত হয়।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

ভিয়েনায় বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালন

 রাকিব হাসান রাফি, স্লোভেনিয়া থেকে  
১০ আগস্ট ২০২১, ১২:০৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভিয়েনায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদার মধ্য দিয়ে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯১তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়। 

করোনা মহামারির প্রেক্ষিতে বিভিন্ন বিধিনিষেধের কারণে একটি অনলাইন আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে আলোচনা অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয়। অনুষ্ঠানে বঙ্গমাতার সংগ্রামী জীবনের ওপর সাধারণ আলোচনা হয়। বক্তারা তাদের বক্তব্যে বলেন, জাতির পিতার আন্দোলন সংগ্রামের প্রতিটি ক্ষেত্রে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের প্রেরণা ও অবদান রয়েছে। বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব রাষ্ট্রপ্রধানের সহধর্মিণী হয়েও আজীবন সাধারণ জীবনযাপন করেছেন।

অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্যে  রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সব শহিদ ও মুক্তিযুদ্ধের সব শহিদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। তিনি বঙ্গমাতার সংগ্রামী জীবনের বিভিন্ন দিক উল্লেখ করে বলেন, শেখ মুজিব থেকে বঙ্গবন্ধু, বঙ্গবন্ধু থেকে জাতির পিতা হওয়ার পেছনে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের অনন্য অবদান রয়েছে।

তিনি বলেন, মাত্র পাঁচ বছর বয়সের মধ্যে বঙ্গমাতা পিতা-মাতাকে হারিয়ে সংগ্রামী জীবনের মধ্যে বেড়ে উঠেছিলেন এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে অনবদ্য অবদান রেখে তিনিও হয়ে উঠেন বঙ্গমাতা। তার মতো মহীয়সী নারীর জীবনদর্শন অনুসরণ করার মাধ্যমে নারী উন্নয়ন আরও ত্বরান্বিত হবে। মান্যবর রাষ্ট্রদূত জাতির পিতা, তার পরিবারের সকল শহিদ ও মুক্তিযুদ্ধের সব শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে তার বক্তব্য শেষ করেন। পরিশেষে বিশেষ মোনাজাতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি সমাপ্ত হয়।  
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন