করোনায় সাইপ্রাসে প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু
jugantor
করোনায় সাইপ্রাসে প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু

  মাহাফুজুল হক চৌধুরী, সাইপ্রাস থেকে  

২৪ আগস্ট ২০২১, ১৮:৫২:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোহাম্মদ সোহেল (৪০) নামে এক সাইপ্রাস প্রবাসী মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর থানার কুনঠা গ্রামের মোহাম্মদ হামিদ হোসেন মাস্টারের ছেলে।

জুলাই মাসের ২৩ তারিখ থেকে সোহেলের শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়। ২৭ জুলাই সোহেলের শরীরে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দিলে তাকে দ্রুত লিমাসল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে পরীক্ষায় তার করোনা ধরা পড়ে। করোনা থেকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে গেলে লিমাসল হাসপাতাল থেকে তাকে রাজধানীর নিকোশিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই ২৪ আগস্ট মঙ্গলবার সাইপ্রাস সময় সকাল ৮টায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। সোহেলের লাশ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

সোহেলের লাশ দেশে যাবে কিনা এখনো সেই বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

জানা যায়, তিন বোন দুই ভাইয়ের মধ্যে সোহেল পরিবারের দ্বিতীয় সন্তান। ৭ বছর আগে স্টুডেন্ট ভিসায় সাইপ্রাস পাড়ি দেন সোহেল। পড়ালেখার পাশাপাশি সাইপ্রাসের লিমাসলে ডলসি ক্লাবে কাজ করতেন তিনি।

গত বছর মোবাইলে দেশে বিয়েও করেন তিনি। বিয়ে করলেও এখনো দেশে যাওয়া হয়নি তার। এ বছর দেশে যাওয়ার কথা থাকলেও করোনা তাকে পৃথিবী থেকে বিদায় দিয়েছে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

করোনায় সাইপ্রাসে প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু

 মাহাফুজুল হক চৌধুরী, সাইপ্রাস থেকে 
২৪ আগস্ট ২০২১, ০৬:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোহাম্মদ সোহেল (৪০) নামে এক সাইপ্রাস প্রবাসী মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর থানার কুনঠা গ্রামের মোহাম্মদ হামিদ হোসেন মাস্টারের ছেলে।

জুলাই মাসের ২৩ তারিখ থেকে সোহেলের শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়। ২৭ জুলাই সোহেলের শরীরে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দিলে তাকে দ্রুত লিমাসল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে পরীক্ষায় তার করোনা ধরা পড়ে। করোনা থেকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে গেলে লিমাসল হাসপাতাল থেকে তাকে রাজধানীর নিকোশিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই ২৪ আগস্ট মঙ্গলবার সাইপ্রাস সময় সকাল ৮টায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। সোহেলের লাশ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

সোহেলের লাশ দেশে যাবে কিনা এখনো সেই বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

জানা যায়, তিন বোন দুই ভাইয়ের মধ্যে সোহেল পরিবারের দ্বিতীয় সন্তান। ৭ বছর আগে স্টুডেন্ট ভিসায় সাইপ্রাস পাড়ি দেন সোহেল। পড়ালেখার পাশাপাশি সাইপ্রাসের লিমাসলে ডলসি ক্লাবে কাজ করতেন তিনি।

গত বছর মোবাইলে দেশে বিয়েও করেন তিনি। বিয়ে করলেও এখনো দেশে যাওয়া হয়নি তার। এ বছর দেশে যাওয়ার কথা থাকলেও করোনা তাকে পৃথিবী থেকে বিদায় দিয়েছে।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন