‘আমি হচ্ছি কানাডা সরকারে প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী’
jugantor
‘আমি হচ্ছি কানাডা সরকারে প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী’

  আহসান রাজীব বুলবুল, কানাডা থেকে  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:২০:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

নিজেকে কানাডায় ‘প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী’ হিসেবে দাবি করেছেন ফেডারেল জননিরাপত্তা বিষয়ক মন্ত্রী বিল ব্লেয়ার। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যখন আমাকে মন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন, আমি তাঁকে বলেছি- আমি হচ্ছি কানাডা সরকারে প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী। কারণ আমি সবচেয়ে বেশিসংখ্যক বাংলাদেশি কানাডিয়ানের প্রতিনিধিত্ব করি, তাদের সেবা করি।

কানাডার বাংলা পত্রিকা ‘নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগরের সঞ্চালনায় সম্প্রচারিত ‘শওগাত আলী সাগর লাইভের’ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, আগামী ২০ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে তিনি লিবারেল পার্টির মনোনয়নে স্কারবোরো সাউথওয়েস্ট নির্বাচনী এলাকা থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। স্কারবোরো সাউথওয়েস্ট এলাকায় সর্বাধিক সংখ্যক বাংলাদেশি কানাডিয়ান ভোটার বসবাস করেন।

এ নির্বাচনী এলাকা থেকেই প্রভিন্সিয়াল সংসদে এমপি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ডলি বেগম।

আলোচনায় বিল ব্লেয়ার বলেন, কানাডার তিনটি নির্বাচনী আসনে বাংলাদেশি ভোটারের প্রাধান্যগুলো হচ্ছে- তার নিজের স্কারবোরো সাউথওয়েস্ট, বিচেস ইস্ট ইয়র্ক এবং কুইবেকের পাপিন্যু। তিনি বলেন, স্কারবোরো সাউথওয়েস্টে আমি, বিচেস ইস্ট ইয়র্কে নাথানিয়াল আরস্কিন স্মিথ এবং পাপিন্যূতে জাস্টিন ট্রুডো এমপি হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করছেন।

বিল ব্লেয়ার বলেন, আমরা তিনজন প্রায়ই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলি এবং বাংলাদেশি কমিউনিটির নানা বিষয় নিয়ে আমাদের মধ্যে আলাপ হয়। আমি জাস্টিন ট্রুডোকে বলেছি- আমি হচ্ছি কানাডা সরকারে প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী, কারণ আমি সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশি কানাডিয়ানদের প্রতিনিধিত্ব করি।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো আমাকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন তিনিও সর্বাধিক সংখ্যক বাংলাদেশি কমিউনিটির প্রতিনিধিত্ব করেন এবং সেজন্য তিনি গর্বিত। কানাডায় বাংলাদেশি কমিউনিটি কতটা গুরুত্বপূর্ণ, কতটা গতিশীল- সেটা জাস্টিন ট্রুডো এবং আমি হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করি।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

‘আমি হচ্ছি কানাডা সরকারে প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী’

 আহসান রাজীব বুলবুল, কানাডা থেকে 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:২০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নিজেকে কানাডায় ‘প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী’ হিসেবে দাবি করেছেন ফেডারেল জননিরাপত্তা বিষয়ক মন্ত্রী বিল ব্লেয়ার। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যখন আমাকে মন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন, আমি তাঁকে বলেছি- আমি হচ্ছি কানাডা সরকারে প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী। কারণ আমি সবচেয়ে বেশিসংখ্যক বাংলাদেশি কানাডিয়ানের প্রতিনিধিত্ব করি, তাদের সেবা করি।

কানাডার বাংলা পত্রিকা ‘নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগরের সঞ্চালনায় সম্প্রচারিত ‘শওগাত আলী সাগর লাইভের’ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, আগামী ২০ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে তিনি লিবারেল পার্টির মনোনয়নে স্কারবোরো সাউথওয়েস্ট নির্বাচনী এলাকা থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। স্কারবোরো সাউথওয়েস্ট এলাকায় সর্বাধিক সংখ্যক বাংলাদেশি কানাডিয়ান ভোটার বসবাস করেন।

এ নির্বাচনী এলাকা থেকেই প্রভিন্সিয়াল সংসদে এমপি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ডলি বেগম।

আলোচনায় বিল ব্লেয়ার বলেন, কানাডার তিনটি নির্বাচনী আসনে বাংলাদেশি ভোটারের প্রাধান্যগুলো হচ্ছে- তার নিজের স্কারবোরো সাউথওয়েস্ট, বিচেস ইস্ট ইয়র্ক এবং কুইবেকের পাপিন্যু। তিনি বলেন, স্কারবোরো সাউথওয়েস্টে আমি, বিচেস ইস্ট ইয়র্কে নাথানিয়াল আরস্কিন স্মিথ এবং পাপিন্যূতে জাস্টিন ট্রুডো এমপি হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করছেন।

বিল ব্লেয়ার বলেন, আমরা তিনজন প্রায়ই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলি এবং বাংলাদেশি কমিউনিটির নানা বিষয় নিয়ে আমাদের মধ্যে আলাপ হয়। আমি জাস্টিন ট্রুডোকে বলেছি- আমি হচ্ছি কানাডা সরকারে প্রথম বাংলাদেশি মন্ত্রী, কারণ আমি সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশি কানাডিয়ানদের প্রতিনিধিত্ব করি।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো আমাকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন তিনিও সর্বাধিক সংখ্যক বাংলাদেশি কমিউনিটির প্রতিনিধিত্ব করেন এবং সেজন্য তিনি গর্বিত। কানাডায় বাংলাদেশি কমিউনিটি কতটা গুরুত্বপূর্ণ, কতটা গতিশীল- সেটা জাস্টিন ট্রুডো এবং আমি হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করি।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন