একই লিঙ্গের বিয়ের ক্ষেত্রে ‘হ্যাঁ’ বলেছে সুইজারল্যান্ড
jugantor
একই লিঙ্গের বিয়ের ক্ষেত্রে ‘হ্যাঁ’ বলেছে সুইজারল্যান্ড

  সহিদুল আলম স্বপন, জেনেভা (সুইজারল্যান্ড) থেকে  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৪০:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

সমকামী দম্পতিদের পূর্ণবিবাহ এবং দত্তক অধিকার প্রদানের একটি আইন সুইস নাগরিকদের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ দ্বারা গৃহীত হয়েছে। জরিপের রিপোর্টকে ভুল প্রমাণ করে ভোটাররা ভোট দিয়েছেন। রোববার অনুষ্ঠিত ভোটের ফলাফল সুইজারল্যান্ডকে বিশ্বব্যাপী ৩০তম দেশ এবং পশ্চিম ইউরোপের শেষ দেশগুলোর মধ্যে একটি পুরুষ-পুরুষ এবং মহিলা-মহিলা দম্পতির নাগরিক বৈবাহিক মর্যাদা প্রসারিত করার পক্ষে রায় দেয়।

প্রায় ৬৪.১% ভোটার এ সংস্কার গ্রহণ করেন এবং ২৬ সুইস ক্যান্টনের কেউ এর বিরুদ্ধে আসেননি। ছোট ক্যান্টন অ্যাপেনজেল ইনার রোডেন, যেখানে ৫০.৮% প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয় তারাই ছিল সবচেয়ে দ্বিধাগ্রস্ত।

সুইজারল্যান্ড সরকার এ ফলাফলকে স্বাগত জানিয়েছে। সুইস আইনমন্ত্রী কারিন কেলার-সুটার বলেছেন, এর অর্থ বর্তমান বৈষম্যের অবসান হলো এবং রাষ্ট্র নাগরিকদের ওপর এমন কিছু চাপিয়ে দেবে না যে, তাদের কীভাবে জীবনযাপন করতে হবে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

একই লিঙ্গের বিয়ের ক্ষেত্রে ‘হ্যাঁ’ বলেছে সুইজারল্যান্ড

 সহিদুল আলম স্বপন, জেনেভা (সুইজারল্যান্ড) থেকে 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৪০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সমকামী দম্পতিদের পূর্ণবিবাহ এবং দত্তক অধিকার প্রদানের একটি আইন সুইস নাগরিকদের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ দ্বারা গৃহীত হয়েছে। জরিপের রিপোর্টকে ভুল প্রমাণ করে ভোটাররা ভোট দিয়েছেন। রোববার অনুষ্ঠিত ভোটের ফলাফল সুইজারল্যান্ডকে বিশ্বব্যাপী ৩০তম দেশ এবং পশ্চিম ইউরোপের শেষ দেশগুলোর মধ্যে একটি পুরুষ-পুরুষ এবং মহিলা-মহিলা দম্পতির নাগরিক বৈবাহিক মর্যাদা প্রসারিত করার পক্ষে রায় দেয়।

প্রায় ৬৪.১% ভোটার এ সংস্কার গ্রহণ করেন এবং ২৬ সুইস ক্যান্টনের কেউ এর বিরুদ্ধে আসেননি। ছোট ক্যান্টন অ্যাপেনজেল ইনার রোডেন, যেখানে ৫০.৮% প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয় তারাই ছিল সবচেয়ে দ্বিধাগ্রস্ত।

সুইজারল্যান্ড সরকার এ ফলাফলকে স্বাগত জানিয়েছে। সুইস আইনমন্ত্রী কারিন কেলার-সুটার বলেছেন, এর অর্থ বর্তমান বৈষম্যের অবসান হলো এবং রাষ্ট্র নাগরিকদের ওপর এমন কিছু চাপিয়ে দেবে না যে, তাদের কীভাবে জীবনযাপন করতে হবে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর