পর্তুগালে শারদীয় দুর্গোৎসব আয়োজন
jugantor
পর্তুগালে শারদীয় দুর্গোৎসব আয়োজন

  ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল থেকে  

১৬ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৯:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

পর্তুগালে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সংগঠন বাংলাদেশি হিন্দু অ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগালের উদ্যোগে সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব আয়োজন করা হয়। ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী উৎসবটি পাঁচ দিনব্যাপী হলেও প্রবাসে পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির কারণে ক্ষুদ্র পরিসরে এর সব আচার-অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা হয়।

উক্ত উৎসবে সমাপনী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পর্তুগালে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস লিসবনের রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান, দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব আবদুল্লাহ আল রাজি ও আলমগীর হোসেন এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা সামিউল হকসহ পর্তুগালের বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

রাষ্ট্রদূত বলেন, প্রত্যেকের নিজ নিজ ধর্ম পালন এবং চর্চা করা প্রতিটি মানুষের নৈতিক দায়িত্ব; কেননা ধর্ম চর্চায় মানুষের মানবিক গুণাবলীর উদয় হয়, ফলে সমাজের শৃঙ্খলা বজায় থাকে এবং সবার জন্য সুফল বয়ে আনে। তিনি সকলকে অভিবাদন এবং শুভেচ্ছা জানান।

আয়োজক কমিটির সম্পাদক পিলু রঞ্জন সরকার বলেন, খুবই সংক্ষিপ্ত পরিসরে এ আয়োজন করা হলেও সকলের উৎসাহ-উদ্দীপনার কোনো কমতি ছিল না। তিনি অংশগ্রহণকারী সবাইকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠান আয়োজনে সহযোগিতা করার জন্য লিসবন শহরের স্থানীয় মিউনিসিপ্যালিটির প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

সন্ধ্যায় উপস্থিত অতিথিদের সম্মানে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এখানে অংশগ্রহণকারী শিশু শিল্পীরা দেশাত্মবোধক ও ধর্মীয় আবৃত্তি, গান, নৃত্য পরিবেশন করেন। উক্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পরিবেশনা উপস্থিত সবাইকে মুগ্ধ করে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

পর্তুগালে শারদীয় দুর্গোৎসব আয়োজন

 ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল থেকে 
১৬ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পর্তুগালে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সংগঠন বাংলাদেশি হিন্দু অ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগালের উদ্যোগে সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব আয়োজন করা হয়। ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী উৎসবটি পাঁচ দিনব্যাপী হলেও প্রবাসে পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির কারণে ক্ষুদ্র পরিসরে এর সব আচার-অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা হয়।

উক্ত উৎসবে সমাপনী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পর্তুগালে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস লিসবনের রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান,  দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব আবদুল্লাহ আল রাজি ও আলমগীর হোসেন এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা সামিউল হকসহ পর্তুগালের বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

রাষ্ট্রদূত বলেন, প্রত্যেকের নিজ নিজ ধর্ম পালন এবং চর্চা করা প্রতিটি মানুষের নৈতিক দায়িত্ব; কেননা ধর্ম চর্চায় মানুষের মানবিক গুণাবলীর উদয় হয়, ফলে সমাজের শৃঙ্খলা বজায় থাকে এবং সবার জন্য সুফল বয়ে আনে।  তিনি সকলকে অভিবাদন এবং শুভেচ্ছা জানান। 

আয়োজক কমিটির সম্পাদক পিলু রঞ্জন সরকার বলেন, খুবই সংক্ষিপ্ত পরিসরে এ আয়োজন করা হলেও সকলের উৎসাহ-উদ্দীপনার কোনো কমতি ছিল না। তিনি অংশগ্রহণকারী সবাইকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠান আয়োজনে সহযোগিতা করার জন্য লিসবন শহরের স্থানীয় মিউনিসিপ্যালিটির প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

সন্ধ্যায় উপস্থিত অতিথিদের সম্মানে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এখানে অংশগ্রহণকারী শিশু শিল্পীরা দেশাত্মবোধক ও ধর্মীয় আবৃত্তি, গান, নৃত্য  পরিবেশন করেন। উক্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পরিবেশনা উপস্থিত সবাইকে মুগ্ধ করে।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন