এক প্রবাসীর আর্থিক সহায়তায় দেশে ফিরছেন আরেক প্রবাসী
jugantor
এক প্রবাসীর আর্থিক সহায়তায় দেশে ফিরছেন আরেক প্রবাসী

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে  

১৬ অক্টোবর ২০২১, ০১:১৫:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব মালয়েশিয়ার সভাপতি মনির বিন আমজাদের আর্থিক সহায়তায় দেশে ফিরছেন জগন্নাথপুরের তেরা মিয়া (৪৯)। ১৭ অক্টোবর ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে দেশে ফিরবেন তিনি।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের মৃত উমর আলীর পুত্র তেরা মিয়া (৪৯) ২০১৮ সালে ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় দালালের প্ররোচনায় সমুদ্রপথে স্বপ্নের দেশ মালয়েশিয়ায় গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে বৈধ হতে বিভিন্নজনের কাছে টাকা দিয়েও বৈধ হতে পারেননি। অবৈধ গ্লানি মাথায় নিয়ে তেরা মিয়া লুকিয়ে লুকিয়ে কাজ করলেও করোনাকালে জুটেনি তার কাজ। এমতাবস্থায় কাজ না থাকায় নানা কারণে ভেঙে পড়েন তেরা মিয়া। ঘরে বসেই দিন কাটছিল তার। এতে তার শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে, দেখা দেয় বিভিন্ন রোগ।

আগস্টের শেষদিকে একজন শুভাকাঙ্ক্ষীর সহায়তায় সুঙ্গাইভুলু হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসা চলে টানা দেড় মাস। অক্টোবরের প্রথম দিকে ডাক্তার বলেন তার কিডনিতে পাথর ধরা পড়েছে, অপারেশন করাতে হবে। অপারেশন করতে হলে তার অনেক টাকার প্রয়োজন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তেরা মিয়ার বিষয় নিয়ে হাসপাতাল থেকে যোগাযোগ করে হাইকমিশনের সঙ্গে। হাইকমিশন থেকে কোনো সহায়তার আশ্বাস না পাওয়ায় একটি ইসলামিক সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সংস্থা যোগাযোগ করে বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব অব মালয়েশিয়ার সভাপতি মনির বিন আমজাদের সঙ্গে। মনির বিন আমজাদ হাসপাতালে চিকিৎসারত তেরা মিয়ার খোঁজখবর নিতে শুরু করেন। মনির বিন আমজাদ দায়িত্ব নিয়ে তাকে সুস্থ করে তুলতে।

এরই মাঝে তেরা মিয়া জানান, তিনি মালয়েশিয়ায় অপারেশন করাবেন না, দেশে চলে যাবেন। সিদ্ধান্ত হয় দেশে পাঠানোর। দেশে পাঠাতে হলে দরকার ট্রাভেল পাস। হাসপাতাল বলছে হাইকমিশনে যোগাযোগ করে কোনো রেসপন্স পাওয়া যায় না। টিএন্ডটি নাম্বারে ফোন করেও লাভ হয়নি। যেহেতু তেরা মিয়ার পাসপোর্ট নেই তাকে দেশে পাঠাতে হলে অবশ্যই হাইকমিশনের সহায়তা প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে হাসপাতাল থেকে আবারো ফোন করা হয়। ওপর প্রান্ত থেকে কোনো উওর নেই। শেষমেশ হাইকমিশনের লেবার কাউন্সিলর (২য়) হেদায়েতুল ইসলাম মণ্ডলের ব্যক্তিগত মোবাইল নাম্বারে ফোন করা হয়। বিস্তারিত তাকে অবগত করা হয় তেরা মিয়ার বিষয়ে। হেদায়েতুল ইসলাম মণ্ডল তেরা মিয়ার নাগরিকত্ব যাচাই-বাছাই করে তার নামে ট্রাভেল পাস ইস্যু করেন। ভাগ্যের চাকা পরিবর্তন করতে এসে স্বপ্নের দেশ মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব অব মালয়েশিয়ার সভাপতি মনির বিন আমজাদের আর্থিক সহায়তায় মুমূর্ষু অবস্থায় তেরা মিয়া অগামী রোববার দেশে ফিরছেন।

এদিকে করোনার শুরু থেকে খাদ্য সহায়তা প্রদানে বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব অব মালয়েশিয়ার সভাপতি মনির বিন আমজাদ কুড়িয়েছেন প্রশংসা। সংকটে তার এ সহায়তায় ধন্যবাদ জানিয়েছেন মালয়েশিয়ান এবং প্রবাসী বাংলাদেশিরা। সবার সহায়তায় সংকটে থাকা প্রবাসীদের কল্যাণে কাজ করছেন বলে জানান মনির বিন আমজাদ।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

এক প্রবাসীর আর্থিক সহায়তায় দেশে ফিরছেন আরেক প্রবাসী

 আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে 
১৬ অক্টোবর ২০২১, ০১:১৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব মালয়েশিয়ার সভাপতি  মনির বিন আমজাদের আর্থিক সহায়তায় দেশে ফিরছেন জগন্নাথপুরের তেরা মিয়া (৪৯)। ১৭ অক্টোবর ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে দেশে ফিরবেন তিনি।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের মৃত উমর আলীর পুত্র তেরা মিয়া (৪৯) ২০১৮ সালে ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় দালালের প্ররোচনায় সমুদ্রপথে স্বপ্নের দেশ মালয়েশিয়ায় গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে বৈধ হতে বিভিন্নজনের কাছে টাকা দিয়েও বৈধ হতে পারেননি। অবৈধ গ্লানি মাথায় নিয়ে তেরা মিয়া লুকিয়ে লুকিয়ে কাজ করলেও করোনাকালে জুটেনি তার কাজ। এমতাবস্থায় কাজ না থাকায় নানা কারণে ভেঙে পড়েন তেরা মিয়া। ঘরে বসেই দিন কাটছিল তার। এতে তার শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে, দেখা দেয় বিভিন্ন রোগ। 

আগস্টের শেষদিকে একজন শুভাকাঙ্ক্ষীর সহায়তায় সুঙ্গাইভুলু হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসা চলে টানা দেড় মাস। অক্টোবরের প্রথম দিকে ডাক্তার বলেন তার কিডনিতে পাথর ধরা পড়েছে, অপারেশন করাতে হবে। অপারেশন করতে হলে তার অনেক টাকার প্রয়োজন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তেরা মিয়ার বিষয় নিয়ে হাসপাতাল থেকে যোগাযোগ করে হাইকমিশনের সঙ্গে। হাইকমিশন থেকে কোনো সহায়তার আশ্বাস না পাওয়ায় একটি ইসলামিক সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সংস্থা যোগাযোগ করে বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব অব মালয়েশিয়ার সভাপতি মনির বিন আমজাদের সঙ্গে। মনির বিন আমজাদ হাসপাতালে চিকিৎসারত তেরা মিয়ার খোঁজখবর নিতে শুরু করেন। মনির বিন আমজাদ দায়িত্ব নিয়ে তাকে সুস্থ করে তুলতে।

এরই মাঝে তেরা মিয়া জানান, তিনি মালয়েশিয়ায় অপারেশন করাবেন না, দেশে চলে যাবেন। সিদ্ধান্ত হয় দেশে পাঠানোর। দেশে পাঠাতে হলে দরকার ট্রাভেল পাস। হাসপাতাল বলছে হাইকমিশনে যোগাযোগ করে কোনো রেসপন্স পাওয়া যায় না। টিএন্ডটি নাম্বারে ফোন করেও লাভ হয়নি। যেহেতু তেরা মিয়ার পাসপোর্ট নেই তাকে দেশে পাঠাতে হলে অবশ্যই হাইকমিশনের সহায়তা প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে  হাসপাতাল থেকে আবারো ফোন করা হয়। ওপর প্রান্ত থেকে কোনো উওর নেই। শেষমেশ  হাইকমিশনের লেবার কাউন্সিলর (২য়) হেদায়েতুল ইসলাম মণ্ডলের ব্যক্তিগত মোবাইল নাম্বারে ফোন করা হয়। বিস্তারিত তাকে অবগত করা হয় তেরা মিয়ার বিষয়ে। হেদায়েতুল ইসলাম মণ্ডল তেরা মিয়ার নাগরিকত্ব যাচাই-বাছাই করে তার নামে ট্রাভেল পাস ইস্যু করেন। ভাগ্যের চাকা পরিবর্তন করতে এসে স্বপ্নের দেশ মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব অব মালয়েশিয়ার সভাপতি মনির বিন আমজাদের আর্থিক সহায়তায় মুমূর্ষু অবস্থায়  তেরা মিয়া  অগামী রোববার দেশে ফিরছেন।
 
এদিকে করোনার শুরু থেকে খাদ্য সহায়তা প্রদানে বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব অব মালয়েশিয়ার সভাপতি মনির বিন আমজাদ কুড়িয়েছেন প্রশংসা। সংকটে তার এ সহায়তায় ধন্যবাদ জানিয়েছেন মালয়েশিয়ান এবং প্রবাসী বাংলাদেশিরা। সবার সহায়তায় সংকটে থাকা প্রবাসীদের কল্যাণে কাজ করছেন বলে জানান মনির বিন আমজাদ।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন