বসন্ত নগরীতে জাতিসংঘের জীববৈচিত্র্য সম্মেলন
jugantor
বসন্ত নগরীতে জাতিসংঘের জীববৈচিত্র্য সম্মেলন

  সাব্বির আহম্মেদ, চীন থেকে  

১৯ অক্টোবর ২০২১, ০০:৩২:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

চীনের বসন্ত নগরী হিসেবে কুনমিংয়ে কপ-১৫ নামে পরিচিত জীববৈচিত্র্য নিয়ে জাতিসংঘের (ইউএন) সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এক দশকের মধ্যে জীববৈচিত্র বিষয়ে এটিই সবচেয়ে বড় বৈশ্বিক সমাবেশ ছিল। আশা করাই যায় এটি ১০ বছরের জন্য জীববৈচিত্র্য, ইকোসিস্টেমের সংরক্ষণ এবং পুনরুদ্ধারের জন্য একটি বৈশ্বিক রোডম্যাপ প্রদান করবে।

সোমবারে জীববৈচিত্র্য সম্মেলনটি শুরু হয়েছিল এবং ১১-১৫ অক্টোবরের মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম শহর কুনমিংয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হলো- ‘পরিবেশগত সভ্যতা: পৃথিবীতে সমস্ত জীবনের জন্য একটি ভাগ করা ভবিষ্যত নির্মাণ।’

বাংলাদেশের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন ২০২০ সালের জাতিসংঘের জীববৈচিত্র্য সম্মেলনে ১১ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন। মহামারি পরিস্থিতির কারণে মন্ত্রী এবং বাংলাদেশের অন্য সদস্যরা অনলাইনে সম্মেলনে যোগ দেন। প্রতিনিধি দলের উপ-নেতা চীনে নিয়োজিত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাহবুবুজ্জামান এবং দূতাবাসের মিনিস্টার ও ডেপুটি চিফ মিশন ড. মুহম্মদ নজরুল ইসলাম সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ এবং অন্যান্য বিশ্ব নেতারা ভিডিও লিংকের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেন।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে এবং তার নির্দেশনায় বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে সমৃদ্ধ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও সুরক্ষায় সম্পূর্ণভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

মন্ত্রী আরও বলেন, পর্যাপ্ত অর্থের সাহায্যে একটি সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা সমর্থন করা প্রয়োজন। এই লক্ষ্যে তিনি প্রতিবছর কমপক্ষে ৮০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বরাদ্দের ওপর জোর দেন যা জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও উন্নতির জন্য বৈশ্বিক জিডিপির ১% শতাংশ। এই তহবিলের মধ্যে অর্ধেক উন্নয়নশীল দেশে যাওয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন।

উল্লেখ্য, কোভিড -১৯ মহামারির কারণে জীববৈচিত্র্য সম্মেলনের ১৫তম সভা দুটি ধাপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রথম অংশটি সোমবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় যেখানে বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক অতিথি অনলাইনে অংশ নিয়েছিল। দ্বিতীয় অংশটি আগামী এপ্রিল-মে মাসে কুনমিং সিটিতে অনুষ্ঠিত হবে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

বসন্ত নগরীতে জাতিসংঘের জীববৈচিত্র্য সম্মেলন

 সাব্বির আহম্মেদ, চীন থেকে 
১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চীনের বসন্ত নগরী হিসেবে কুনমিংয়ে কপ-১৫ নামে পরিচিত জীববৈচিত্র্য নিয়ে জাতিসংঘের (ইউএন) সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এক দশকের মধ্যে জীববৈচিত্র বিষয়ে এটিই সবচেয়ে বড় বৈশ্বিক সমাবেশ ছিল। আশা করাই যায় এটি ১০ বছরের জন্য জীববৈচিত্র্য, ইকোসিস্টেমের সংরক্ষণ এবং পুনরুদ্ধারের জন্য একটি বৈশ্বিক রোডম্যাপ প্রদান করবে।

সোমবারে জীববৈচিত্র্য সম্মেলনটি শুরু হয়েছিল এবং ১১-১৫ অক্টোবরের মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম শহর কুনমিংয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হলো- ‘পরিবেশগত সভ্যতা: পৃথিবীতে সমস্ত জীবনের জন্য একটি ভাগ করা ভবিষ্যত নির্মাণ।’

বাংলাদেশের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন ২০২০ সালের জাতিসংঘের জীববৈচিত্র্য সম্মেলনে ১১ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন। মহামারি পরিস্থিতির কারণে মন্ত্রী এবং বাংলাদেশের অন্য সদস্যরা অনলাইনে সম্মেলনে যোগ দেন। প্রতিনিধি দলের উপ-নেতা চীনে নিয়োজিত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাহবুবুজ্জামান এবং দূতাবাসের মিনিস্টার ও ডেপুটি চিফ মিশন ড. মুহম্মদ নজরুল ইসলাম সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ এবং অন্যান্য বিশ্ব নেতারা ভিডিও লিংকের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেন।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে এবং তার নির্দেশনায় বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে সমৃদ্ধ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও সুরক্ষায় সম্পূর্ণভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

মন্ত্রী আরও বলেন, পর্যাপ্ত অর্থের সাহায্যে একটি সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা সমর্থন করা প্রয়োজন। এই লক্ষ্যে তিনি প্রতিবছর কমপক্ষে ৮০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বরাদ্দের ওপর জোর দেন যা জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও উন্নতির জন্য বৈশ্বিক জিডিপির ১% শতাংশ। এই তহবিলের মধ্যে অর্ধেক উন্নয়নশীল দেশে যাওয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন।

উল্লেখ্য, কোভিড -১৯ মহামারির কারণে জীববৈচিত্র্য সম্মেলনের ১৫তম সভা দুটি ধাপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রথম অংশটি সোমবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় যেখানে বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক অতিথি অনলাইনে অংশ নিয়েছিল। দ্বিতীয় অংশটি আগামী এপ্রিল-মে মাসে কুনমিং সিটিতে অনুষ্ঠিত হবে।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন