গ্রিসে রেমিটেন্স দিবস পালিত
jugantor
গ্রিসে রেমিটেন্স দিবস পালিত

  জাকির হোসাইন চৌধুরী, গ্রিস থেকে  

১৪ নভেম্বর ২০২১, ০০:৪৭:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বৈশ্বিক মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে যখন সারাবিশ্ব অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মুখে তখন বিদেশে কর্মরত প্রবাসী বাংলাদেশিরাই দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রেখেছেন।

করোনাকালীন দুই বছরে রেকর্ড পরিমাণ রেমিটেন্স প্রেরণ করেছেন রেমিটেন্স যোদ্ধারা। বৈদেশিক মুদ্রায় রাষ্ট্রীয় তহবিল বা বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ স্বয়ংসম্পন্ন হতে প্রবাসীদের অগ্রণী ভূমিকায় অন্যান্য খাতের বৈদেশিক মুদ্রার পাশাপাশি বিশ্বের অর্থনৈতিক উন্নত দেশের কাতারে বাংলাদেশকে দাঁড় করিয়েছে।

বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে পরিচিতি লাভ করার জন্য যে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ মাণদণ্ডের শর্তাবলী থাকে, তার মধ্যে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে তিনটিতেই সাফল্য অর্জন করেছে।

বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হওয়ার অঙ্গীকার নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের এ বিস্ময়কর অগ্রগতি যে কয়টি খাতের ওপর নির্ভরশীল প্রবাসীদের আয় বা তাদের পাঠানো রেমিটেন্স তার মধ্যে অন্যতম।

তারই ধারাবাহিকতায় বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে গ্রিসেও তার ব্যাতিক্রম ঘটেনি। পালিত হচ্ছে রেমিট্যান্স ডে বা বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ দিবস। বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমেদ সব প্রবাসী বাংলাদেশিদের রেমিটেন্স প্রেরণে অনুপ্রেরিত করার উদ্দেশ্যে গ্রিসের রাজধানী এথেন্সে অবস্থিত সব বাংলাদেশিদের টাকা প্রেরণের মাধ্যম (মানি ট্রান্সফার) বা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সারা বছর প্রতি মাসে একবার পরিদর্শনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

বাংলাদেশ সরকারের পাশাপাশি দেশ গড়ার কাজে অগ্রণী ভূমিকা রাখার জন্য গ্রিসে বসবাসরত সব প্রবাসী বাংলাদেশি ভাই-বোনদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। আগামীতে প্রবাসীদের রেমিটেন্স প্রেরণে আরও উৎসাহিত করতে রাষ্ট্রদূত স্বয়ং বিভিন্ন বাংলাদেশি মানি ট্রান্সফারের দোকানে বা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দূতাবাসের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ করবেন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

গ্রিসে রেমিটেন্স দিবস পালিত

 জাকির হোসাইন চৌধুরী, গ্রিস থেকে 
১৪ নভেম্বর ২০২১, ১২:৪৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

 বৈশ্বিক মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে যখন সারাবিশ্ব অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মুখে তখন বিদেশে কর্মরত প্রবাসী বাংলাদেশিরাই দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রেখেছেন। 

করোনাকালীন দুই বছরে রেকর্ড পরিমাণ রেমিটেন্স প্রেরণ করেছেন রেমিটেন্স যোদ্ধারা।  বৈদেশিক মুদ্রায় রাষ্ট্রীয় তহবিল বা  বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ স্বয়ংসম্পন্ন হতে প্রবাসীদের অগ্রণী ভূমিকায় অন্যান্য খাতের বৈদেশিক মুদ্রার পাশাপাশি বিশ্বের অর্থনৈতিক উন্নত দেশের কাতারে বাংলাদেশকে দাঁড় করিয়েছে।  

বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে পরিচিতি লাভ করার জন্য  যে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ মাণদণ্ডের শর্তাবলী থাকে, তার মধ্যে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে তিনটিতেই সাফল্য অর্জন করেছে। 

বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হওয়ার অঙ্গীকার নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের এ বিস্ময়কর অগ্রগতি যে কয়টি খাতের ওপর নির্ভরশীল প্রবাসীদের আয় বা তাদের পাঠানো রেমিটেন্স তার মধ্যে অন্যতম।

তারই ধারাবাহিকতায় বিশ্বের অন্যান্য  দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে গ্রিসেও তার ব্যাতিক্রম ঘটেনি। পালিত হচ্ছে রেমিট্যান্স ডে  বা বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ দিবস। বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমেদ সব প্রবাসী বাংলাদেশিদের রেমিটেন্স প্রেরণে অনুপ্রেরিত করার উদ্দেশ্যে গ্রিসের রাজধানী এথেন্সে অবস্থিত সব বাংলাদেশিদের টাকা প্রেরণের মাধ্যম (মানি ট্রান্সফার) বা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সারা বছর প্রতি মাসে একবার পরিদর্শনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। 

বাংলাদেশ সরকারের পাশাপাশি দেশ গড়ার কাজে  অগ্রণী  ভূমিকা রাখার জন্য গ্রিসে বসবাসরত সব প্রবাসী বাংলাদেশি ভাই-বোনদের  ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। আগামীতে প্রবাসীদের রেমিটেন্স  প্রেরণে আরও উৎসাহিত করতে রাষ্ট্রদূত স্বয়ং বিভিন্ন বাংলাদেশি মানি ট্রান্সফারের দোকানে বা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দূতাবাসের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ করবেন।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন