বাংলাদেশিদের জন্য উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে গ্রিসের শ্রমবাজার
jugantor
বাংলাদেশিদের জন্য উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে গ্রিসের শ্রমবাজার

  নিরব আহমেদ রুমন, গ্রিস থেকে   

৩০ নভেম্বর ২০২১, ২৩:৫৯:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

গ্রিসের শ্রমবাজার বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য উন্মুক্ত হবে। সম্প্রতি প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি এবং গ্রিসের অভিবাসন ও অ্যাসাইলাম বিষয়ক মন্ত্রী নোটিস মিতারাকির মধ্যে এক আনুষ্ঠানিক বৈঠকের পর নিরাপদ অভিবাসন বিষয়ে সহযোগিতা ও বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক আনয়নের বিষয়ে বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যে আগ্রহপত্র স্বাক্ষরিত হয়।

বৈঠকে তারা অবৈধ অভিবাসন রোধ এবং বৈধভাবে প্রবেশের মাধ্যমে বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য বিশেষ শ্রমবাজার উন্মুক্ত করার বিষয়ে আলোচনাকালে, বৈধ পন্থায় শ্রমিকদের প্রবেশাধিকার দিলে অবৈধ মানবপাচার অনেকাংশে বন্ধ হয়ে যাবে বলে মতপ্রকাশ করেন।

এ সময় তারা বাংলাদেশ থেকে চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন শ্রমঘন খাতসমূহে শ্রমিক ও বিভিন্ন পেশাজীবীদের আগমনের জন্য বিভিন্ন প্রাসঙ্গিক দিক নিয়ে আলোচনা করেন এবং আশা প্রকাশ করেন যে, বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যকার প্রস্তাবিত গ্রিসে বাংলাদেশি শ্রমিকদের কর্মসংস্থান বিষয়ক সমঝোতা স্মারকটি স্বাক্ষরিত হলে বাংলাদেশ হতে আগ্রহী শ্রমিকরা সহজে নিরাপদে ও স্বল্প খরচে গ্রিসে এসে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে পারবেন।

এতে বাংলাদেশ এবং গ্রিস উভয়ই অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে। গ্রিক মন্ত্রী মিতারাকি আগামী জানুয়ারির মধ্যে প্রস্তাবিত সমঝোতা স্মারকের খসড়া চূড়ান্ত এবং আগামী ফেব্রুয়ারিতে তার ঢাকা সফরকালে প্রস্তাবিত সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বৈঠকে রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমেদ, প্রবাসীকল্যাণ সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, দূতাবাসের কর্মকর্তা ও গ্রিক সরকারের অভিবাসন মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রিসের কৃষি, পর্যটন এবং তৈরি পোশাক শিল্প খাতসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিদেশি শ্রমিকের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে; যা পূরণের জন্য গ্রিক সরকার এ বছরের সেপ্টেম্বরে মাসে বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ সংক্রান্ত আইনটি সংশোধন করে প্রবাসী শ্রমিকদের ৫ বছর মেয়াদি ভিসা প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়। এর ফলে দেশটিতে বিদেশি শ্রমিকদের বৈধভাবে এসে কর্মসংস্থানের ব্যাপক সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন গ্রিস এর সভাপতি সাংবাদিক তাইজুল ফয়েজ,সাধারণ সম্পাদক মুমিন খান এর আমন্ত্রণে বিশ্ব সিলেট উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.একে আবদুল মোমেন এমপি। তখনকার গ্রিসে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মো.জসীম উদ্দিন এনডিসি গ্রিসে সরকারি বাংলা স্কুলের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে একটি স্মারক পত্র প্রদান করেন প্রতিউত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে প্রস্তাব করব জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী তথা মুজিব বর্ষে ‘‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সেন্টেনিয়াল স্কুল” নামে একটি সরকারি ভাবে বাংলাদেশি স্কুল প্রতিষ্ঠা করার জন্য।পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রস্তাব এর প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতি প্রদান করেন। করোনার জন্য দেরিতে হলেও কার্যক্রমের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণের লক্ষ্যে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইমরান আহমদ, এমপি উচ্চ পর্যায়ের আন্তঃমন্ত্রণালয় প্রতিনিধি দল নিয়ে পাঁচ দিনের সরকারি গ্রিসে আসেন।মন্ত্রীর সফর সঙ্গী প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব আহমেদ মুনির সালেহীন ,বাংলাদেশ ওয়েজ-আর্নার বোর্ডের মহা-পরিচালক মোহাম্মদ হামিদুর রহমান ,অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বিশ্বজিৎ ভট্টাচারিয়া খোকন (এনডিসি) প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ের মহা-পরিচালক মোহাম্মদ সারোয়ার আলম ,পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ মনোয়ার মোকাররম এবং পিডব্লিউডি'র প্রকৌশলী কাজী ফিরোজ হাসান।

মুজিববর্ষের কর্মসূচী অনুযায়ী গ্রীসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশী পরিবারের সন্তানদের বাংলা শিক্ষা কার্যক্রমের আওয়াতায় বঙ্গবন্ধুর নামে একটি বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিদ্যালয়ের জায়গা নির্ধারণ ও সংশ্লিষ্ট গ্রিক মন্ত্রণালয়ের সাথে ফলপ্রসূ বৈঠক করেন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

বাংলাদেশিদের জন্য উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে গ্রিসের শ্রমবাজার

 নিরব আহমেদ রুমন, গ্রিস থেকে  
৩০ নভেম্বর ২০২১, ১১:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গ্রিসের শ্রমবাজার বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য উন্মুক্ত হবে। সম্প্রতি প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী  ইমরান আহমদ এমপি এবং গ্রিসের অভিবাসন ও অ্যাসাইলাম বিষয়ক মন্ত্রী নোটিস মিতারাকির মধ্যে এক আনুষ্ঠানিক বৈঠকের পর নিরাপদ অভিবাসন বিষয়ে সহযোগিতা ও বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক আনয়নের বিষয়ে বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যে আগ্রহপত্র স্বাক্ষরিত হয়। 

বৈঠকে তারা অবৈধ অভিবাসন রোধ এবং বৈধভাবে প্রবেশের মাধ্যমে বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য বিশেষ শ্রমবাজার উন্মুক্ত করার বিষয়ে আলোচনাকালে, বৈধ পন্থায় শ্রমিকদের প্রবেশাধিকার দিলে অবৈধ মানবপাচার অনেকাংশে বন্ধ হয়ে যাবে বলে মতপ্রকাশ করেন।

এ সময় তারা বাংলাদেশ থেকে চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন শ্রমঘন খাতসমূহে শ্রমিক ও বিভিন্ন পেশাজীবীদের আগমনের জন্য বিভিন্ন প্রাসঙ্গিক দিক নিয়ে আলোচনা করেন এবং আশা প্রকাশ করেন যে, বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যকার প্রস্তাবিত গ্রিসে বাংলাদেশি শ্রমিকদের কর্মসংস্থান বিষয়ক সমঝোতা স্মারকটি স্বাক্ষরিত হলে বাংলাদেশ হতে আগ্রহী শ্রমিকরা সহজে নিরাপদে ও স্বল্প খরচে গ্রিসে এসে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে পারবেন। 

এতে বাংলাদেশ এবং গ্রিস উভয়ই অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে। গ্রিক মন্ত্রী মিতারাকি আগামী জানুয়ারির মধ্যে প্রস্তাবিত সমঝোতা স্মারকের খসড়া চূড়ান্ত এবং আগামী ফেব্রুয়ারিতে তার ঢাকা সফরকালে প্রস্তাবিত সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
 
বৈঠকে রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমেদ, প্রবাসীকল্যাণ সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, দূতাবাসের কর্মকর্তা ও গ্রিক সরকারের অভিবাসন মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রিসের কৃষি, পর্যটন এবং তৈরি পোশাক শিল্প খাতসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিদেশি শ্রমিকের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে; যা পূরণের জন্য গ্রিক সরকার এ বছরের সেপ্টেম্বরে মাসে বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ সংক্রান্ত আইনটি সংশোধন করে প্রবাসী শ্রমিকদের ৫ বছর মেয়াদি ভিসা প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়। এর ফলে দেশটিতে বিদেশি শ্রমিকদের বৈধভাবে এসে কর্মসংস্থানের ব্যাপক সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন গ্রিস এর সভাপতি সাংবাদিক তাইজুল ফয়েজ,সাধারণ সম্পাদক মুমিন খান এর আমন্ত্রণে  বিশ্ব সিলেট উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.একে আবদুল মোমেন এমপি। তখনকার গ্রিসে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মো.জসীম উদ্দিন এনডিসি গ্রিসে সরকারি  বাংলা স্কুলের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে একটি স্মারক পত্র প্রদান করেন প্রতিউত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে প্রস্তাব করব  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী তথা মুজিব বর্ষে ‘‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সেন্টেনিয়াল স্কুল” নামে একটি সরকারি ভাবে  বাংলাদেশি স্কুল প্রতিষ্ঠা করার জন্য।পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রস্তাব এর প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতি প্রদান করেন।  করোনার জন্য দেরিতে হলেও  কার্যক্রমের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণের লক্ষ্যে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইমরান আহমদ, এমপি  উচ্চ পর্যায়ের আন্তঃমন্ত্রণালয় প্রতিনিধি দল নিয়ে পাঁচ দিনের সরকারি   গ্রিসে আসেন।মন্ত্রীর  সফর সঙ্গী  প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব  আহমেদ মুনির সালেহীন ,বাংলাদেশ ওয়েজ-আর্নার বোর্ডের মহা-পরিচালক মোহাম্মদ হামিদুর রহমান ,অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বিশ্বজিৎ ভট্টাচারিয়া খোকন  (এনডিসি) প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ের মহা-পরিচালক মোহাম্মদ সারোয়ার আলম ,পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ মনোয়ার মোকাররম  এবং পিডব্লিউডি'র  প্রকৌশলী  কাজী ফিরোজ হাসান।

মুজিববর্ষের কর্মসূচী অনুযায়ী গ্রীসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশী পরিবারের সন্তানদের বাংলা শিক্ষা  কার্যক্রমের আওয়াতায় বঙ্গবন্ধুর  নামে একটি বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিদ্যালয়ের জায়গা নির্ধারণ ও সংশ্লিষ্ট গ্রিক মন্ত্রণালয়ের সাথে ফলপ্রসূ  বৈঠক করেন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন [email protected] এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন