ইতালিতে স্পন্সরে শ্রমিক নেওয়ার গেজেট প্রকাশ
jugantor
ইতালিতে স্পন্সরে শ্রমিক নেওয়ার গেজেট প্রকাশ

  জমির হোসেন, ইতালি থেকে  

১৯ জানুয়ারি ২০২২, ২১:১৬:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালিতে ৬৯ হাজার ৭০০ শ্রমিক নেওয়ার গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে। ১৭ জানুয়ারী অফিসিয়াল গেজেট প্রকাশ করা হয়।

এর আগে ১২ জানুয়ারি সকাল নয়টা থেকে আবেদন জমা নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তবে ভিন্ন ভিন্ন সেক্টরে ভিন্ন তারিখে আবেদন জমা নেওয়া হবে। এরমধ্যে ২৭ জানুয়ারি নন সিজনাল এবং ১ ফেব্রুয়ারিতে সিজনাল। এভাবে একটানা ১৭ মার্চ পর্যন্ত আবেদন জমা নেওয়া হবে।

অন্যদিকে দুটি ক্যাটাগরি রয়েছে নন-সিজনাল ভিসায় যারা আসবে তারা দুই বছরের ষ্টে-পারমিট পাবে আর যারা সিজনাল ভিসায় আসবে তারা নয় মাসের বৈধতা পাবে।

জানা গেছে, এবছর ২০২২ সাধারন স্পন্সর বাংলাদেশিদের জন্য আবেদন করা অনেক কঠিন হবে। এর অন্যতম কারন হলো- যেসব ক্ষেত্রে নন সিজনাল স্পন্সর দিয়েছে এসব সেক্টরে বাংলাদেশি তেমন কোন মালিকানা নেই। যেমন কনস্ট্রাকশন,ভারী পরিবহন,পর্যটন এবং বড় হোটেল ব্যবসায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা তেমন একটা আধিপত্য বিস্তার করতে পারেনি।

ফলে নন সিজনাল স্পন্সরে আসা কঠিন হয়ে পড়বে। এ সেক্টরে ২৭ হাজার ৭০০ শ্রমিক আসতে পারবে বিভিন্ন দেশ থেকে, এরমধ্যে,১৭ হাজার নির্দিষ্টভাবে আলবেনিয়া,আলজেরিয়া,বাংলাদেশ,বসনিয়া-হার্জেগোভিনা,কোরিয়া (রিপাবলিকা ডি কোরিয়া), কোস্টা ডি আভোরিও,এগিট্টো,এল সালভাদর, ইটিওপিয়া, ফিলিপাইন,গাম্বিয়া, ঘানা, জিয়াপ্পোন, গুয়াতেমালা, ভারত, কসোভো, মালি, মারোক্কো, মরিশাস,মোল্দোভা,মন্টিনিগ্রো,নাইজার,নাইজেরিয়া,পাকিস্তান,রিপাবলিকা ডি ম্যাসেডোনিয়া দেলনর্ড, সেনেগাল,সার্বিয়া,শ্রীলংকা,সুদান,তিউনিসিয়া, ইউক্রেইনা রয়েছে।

অন্যদিকে সিজনাল ভিসায় ৩১ দেশ থেকে ৪২ হাজার শ্রমিক আসতে পারবে বাংলাদেশসহ। এ সেক্টরে বেশ সুযোগ রয়েছে। তবে ২০২০ সালের সিজনাল ভিসা এখনও তেমন একটা বের হতে দেখা যায়নি। সেক্ষেত্রে এবছর জমা দেবার পর কতটা স্পন্সর বের হবে এ নিয়ে আশংকা রয়েছে বিভিন্ন মহলে।

এব্যাপারে আইন পরামর্শক ও জাসদের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আনিচুজ্জামান আনিস বলেন, ইতালিতে ২৭ জানুয়ারী ঘোষিত নন সিজনাল (স্পন্সর) ভিসার আবেদন গত বছরগুলোর ন্যায় উম্মুক্ত নয়। এবার এখানে শুধুমাত্র তিন ক্যাটাগরিতে জমা দিতে পারবে। কনস্ট্রাকশন,ভারী যানবাহনের চালক, বড় আবাসিক হোটেল ও পর্যটনে ক্ষেত্রে লোক আবেদন করতে পারবে।

এখানে উল্লেখিত ক্যাটাগরির মালিকদের সাথে বাংলাদেশি প্রবাসিদের তেমন সম্পর্ক নেই বললেই চলে। সে কারনে স্পন্সরে আবেদন করা অনেকটা কঠিন হয়ে পড়েছে। সেক্ষেত্রে কৃষিকাজের সিজিওনাল ভিসার আবেদন করা অনেকটা সহজ। ভালো মালিক পেলে ৪/৫ মাসের ভিতর নুল্লাঅস্তা(ভিসা) পাওয়া সম্ভব।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

ইতালিতে স্পন্সরে শ্রমিক নেওয়ার গেজেট প্রকাশ

 জমির হোসেন, ইতালি থেকে 
১৯ জানুয়ারি ২০২২, ০৯:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালিতে ৬৯ হাজার ৭০০ শ্রমিক নেওয়ার গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে। ১৭ জানুয়ারী অফিসিয়াল গেজেট প্রকাশ করা হয়। 

এর আগে ১২ জানুয়ারি সকাল নয়টা থেকে আবেদন জমা নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তবে ভিন্ন ভিন্ন সেক্টরে ভিন্ন তারিখে আবেদন জমা নেওয়া হবে। এরমধ্যে ২৭ জানুয়ারি নন সিজনাল এবং ১ ফেব্রুয়ারিতে সিজনাল। এভাবে একটানা ১৭ মার্চ পর্যন্ত আবেদন জমা নেওয়া হবে। 

অন্যদিকে দুটি ক্যাটাগরি রয়েছে নন-সিজনাল ভিসায় যারা আসবে তারা দুই বছরের ষ্টে-পারমিট পাবে আর যারা সিজনাল ভিসায় আসবে তারা নয় মাসের বৈধতা পাবে। 

জানা গেছে, এবছর ২০২২ সাধারন স্পন্সর বাংলাদেশিদের জন্য আবেদন  করা অনেক কঠিন হবে। এর অন্যতম কারন হলো- যেসব ক্ষেত্রে নন সিজনাল স্পন্সর দিয়েছে এসব সেক্টরে বাংলাদেশি তেমন কোন মালিকানা নেই। যেমন কনস্ট্রাকশন,ভারী পরিবহন,পর্যটন এবং বড় হোটেল ব্যবসায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা তেমন একটা আধিপত্য বিস্তার করতে পারেনি। 

ফলে নন সিজনাল স্পন্সরে আসা কঠিন হয়ে পড়বে। এ সেক্টরে ২৭ হাজার ৭০০ শ্রমিক আসতে পারবে বিভিন্ন দেশ থেকে, এরমধ্যে,১৭ হাজার নির্দিষ্টভাবে আলবেনিয়া,আলজেরিয়া,বাংলাদেশ,বসনিয়া-হার্জেগোভিনা,কোরিয়া (রিপাবলিকা ডি কোরিয়া), কোস্টা ডি আভোরিও,এগিট্টো,এল সালভাদর, ইটিওপিয়া, ফিলিপাইন,গাম্বিয়া, ঘানা, জিয়াপ্পোন, গুয়াতেমালা, ভারত, কসোভো, মালি, মারোক্কো, মরিশাস,মোল্দোভা,মন্টিনিগ্রো,নাইজার,নাইজেরিয়া,পাকিস্তান,রিপাবলিকা ডি ম্যাসেডোনিয়া দেলনর্ড, সেনেগাল,সার্বিয়া,শ্রীলংকা,সুদান,তিউনিসিয়া, ইউক্রেইনা রয়েছে। 

অন্যদিকে সিজনাল ভিসায় ৩১ দেশ থেকে ৪২ হাজার শ্রমিক আসতে পারবে বাংলাদেশসহ। এ সেক্টরে বেশ সুযোগ রয়েছে। তবে ২০২০ সালের সিজনাল ভিসা এখনও তেমন একটা বের হতে দেখা যায়নি। সেক্ষেত্রে এবছর জমা দেবার পর কতটা স্পন্সর বের হবে এ নিয়ে আশংকা রয়েছে বিভিন্ন মহলে। 

এব্যাপারে আইন পরামর্শক ও জাসদের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আনিচুজ্জামান আনিস বলেন, ইতালিতে ২৭ জানুয়ারী ঘোষিত নন সিজনাল (স্পন্সর) ভিসার আবেদন গত বছরগুলোর ন্যায় উম্মুক্ত নয়। এবার এখানে শুধুমাত্র তিন ক্যাটাগরিতে জমা দিতে পারবে। কনস্ট্রাকশন,ভারী যানবাহনের চালক, বড় আবাসিক হোটেল ও পর্যটনে ক্ষেত্রে লোক আবেদন করতে পারবে। 

এখানে উল্লেখিত ক্যাটাগরির মালিকদের সাথে বাংলাদেশি প্রবাসিদের তেমন সম্পর্ক নেই বললেই চলে। সে কারনে স্পন্সরে আবেদন করা অনেকটা কঠিন হয়ে পড়েছে। সেক্ষেত্রে কৃষিকাজের সিজিওনাল ভিসার আবেদন করা অনেকটা সহজ। ভালো মালিক পেলে ৪/৫ মাসের ভিতর নুল্লাঅস্তা(ভিসা) পাওয়া সম্ভব।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন