পর্তুগালে ১৫ দিনে ৫ শতাংশ নাগরিক ওমিক্রনে আক্রান্ত
jugantor
পর্তুগালে ১৫ দিনে ৫ শতাংশ নাগরিক ওমিক্রনে আক্রান্ত

  ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল থেকে  

২৩ জানুয়ারি ২০২২, ২১:৩৫:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

পর্তুগাল নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের আঘাতে গত ১৪ দিনে ৫ লাখ ৪০ হাজারেরও বেশি নাগরিক আক্রান্ত হয়েছেন; যা দেশটির মোট জনসংখ্যার ৫ শতাংশেরও বেশি। এমনকি গত চার দিন যাবৎ প্রতিদিন গড়ে ৫০ হাজারেরও বেশি নাগরিক আক্রান্ত হচ্ছেন এবং এর একদিনে সর্বোচ্চ ৫৮ হাজার ৫৩৯ জন নাগরিক আক্রান্ত হয়েছেন।

পর্তুগালের স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে এ সংখ্যাটা আগামী ২৪ ও ২৫ জনুয়ারি পর্যন্ত আরও কিছু বাড়তে পারে; তবে হয়তো এরপর থেকে তা ক্রমান্বয়ে কমতে থাকবে।

গত সপ্তাহে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বিশেষজ্ঞ টেকনিক্যাল কমিটির মতামত অনুযায়ী স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির একটি সময় থাকে এরপর থেকে তা আবার ক্রমান্বয়ে নামতে থাকে সুতরাং জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে সংক্রমণ পরিস্থিতি কমতির দিকে থাকবে; তবে বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না।

পর্তুগাল প্রায় ৮৬% নাগরিককে করোনার পূর্ণ ডোজ প্রদান করেছে এবং প্রায় ৪০ শতাংশ নাগরিক বুস্টার ডোজ গ্রহণ করেছেন। অপরদিকে প্রায় ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী ৩ লাখের বেশি শিশুকে প্রথম ডোজ দিতে সক্ষম হয়েছে। ভ্যাকসিন কার্যক্রমের দিক থেকে দেশটি ইউরোপের অন্যতম শীর্ষস্থানে অবস্থান করছে।


পর্তুগালের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী এ পর্যন্ত ২১ লাখ ৭৬ হাজার ২৫৬ জন নাগরিক সংক্রমিত হয়েছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১৯ হাজার ৫৩৯ জন। বর্তমানে দেশটিতে ৪ লাখ ৫৪ হাজার ৮২১ জন নাগরিক করোনা আক্রান্ত অবস্থায় আছেন।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

পর্তুগালে ১৫ দিনে ৫ শতাংশ নাগরিক ওমিক্রনে আক্রান্ত

 ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল থেকে 
২৩ জানুয়ারি ২০২২, ০৯:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পর্তুগাল নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের আঘাতে গত ১৪ দিনে ৫ লাখ ৪০ হাজারেরও বেশি নাগরিক আক্রান্ত হয়েছেন; যা দেশটির  মোট জনসংখ্যার ৫ শতাংশেরও বেশি। এমনকি গত চার দিন যাবৎ প্রতিদিন গড়ে ৫০ হাজারেরও বেশি নাগরিক আক্রান্ত হচ্ছেন এবং এর একদিনে সর্বোচ্চ ৫৮ হাজার ৫৩৯ জন নাগরিক আক্রান্ত হয়েছেন।

পর্তুগালের স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে এ সংখ্যাটা আগামী ২৪ ও ২৫  জনুয়ারি পর্যন্ত আরও কিছু বাড়তে পারে; তবে হয়তো এরপর থেকে তা ক্রমান্বয়ে কমতে থাকবে।

গত সপ্তাহে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বিশেষজ্ঞ টেকনিক্যাল কমিটির মতামত অনুযায়ী স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির একটি সময় থাকে এরপর থেকে তা আবার ক্রমান্বয়ে নামতে থাকে সুতরাং জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে সংক্রমণ পরিস্থিতি কমতির দিকে থাকবে; তবে বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না।

পর্তুগাল প্রায় ৮৬% নাগরিককে করোনার পূর্ণ ডোজ প্রদান করেছে এবং প্রায় ৪০ শতাংশ নাগরিক বুস্টার ডোজ গ্রহণ করেছেন। অপরদিকে প্রায় ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী ৩ লাখের বেশি শিশুকে প্রথম ডোজ দিতে সক্ষম হয়েছে। ভ্যাকসিন কার্যক্রমের দিক থেকে দেশটি ইউরোপের অন্যতম শীর্ষস্থানে অবস্থান করছে।


পর্তুগালের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী এ পর্যন্ত ২১ লাখ ৭৬ হাজার ২৫৬ জন নাগরিক সংক্রমিত হয়েছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১৯ হাজার ৫৩৯ জন। বর্তমানে দেশটিতে ৪ লাখ ৫৪ হাজার ৮২১ জন নাগরিক করোনা আক্রান্ত অবস্থায় আছেন।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর