সুইজারল্যান্ডে প্রথম মাঙ্কিপক্স শনাক্ত
jugantor
সুইজারল্যান্ডে প্রথম মাঙ্কিপক্স শনাক্ত

  সহিদুল আলম স্বপন, সুইজারল্যান্ড থেকে  

২২ মে ২০২২, ২৩:৪৩:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

শনিবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সুইজারল্যান্ডের ক্যান্টন বার্নে মাঙ্কিপক্সের প্রথম কেস শনাক্ত হয়েছে। ফেডারেল অফিস অব পাবলিক হেলথ (এফওপিএইচ) এক টুইট বার্তায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বর্তমানে ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকায় মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ পরিলক্ষিত হচ্ছে। সুইজারল্যান্ডের রাজধানী ক্যান্টন বার্নে প্রথম কেস ধরা পড়ার বিষয়ে হওয়া নিশ্চিত হওয়া গেছে।

যতদূর জানা যায়, বার্ন ক্যান্টনের ওই ব্যক্তি বিদেশে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ক্যান্টন এক বিবৃতিতে বলেছে- সংক্রামিত ব্যক্তি বহির্বিভাগের রোগীদের মতো চিকিৎসা নিচ্ছেন এবং নিজ বাড়িতে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন।ঐ ব্যক্তির সাথে যোগাযোগের সকল ব্যক্তিকে কন্টাক্ট ট্রেসিংয়ের মাধ্যমে জানানো হয়েছে।

মাঙ্কিপক্স একটি বিরল ভাইরাল রোগ, যা প্রাণী থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রামিত হয়। এটি একটি বিরল ভাইরাল সংক্রমণ যা সাধারণত হালকা হয় এবং যেখান থেকে বেশিরভাগ মানুষ কয়েক সপ্তাহের মধ্যে পুনরুদ্ধার করে। মে মাসের শুরু থেকে ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মানুষের মধ্যে মাঙ্কিপক্সের একটি অস্বাভাবিক ক্লাস্টার পরিলক্ষিত হচ্ছে। সুইজারল্যান্ডের প্রতিবেশী জার্মানি এবং ফ্রান্স উভয় দেশের ক্ষেত্রেই রোগের প্রাদুর্ভাব ইতোমধ্যে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে।

জেনেভায় অবস্থিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে যে, তারা ৫০টি সন্দেহভাজন কেস তদন্ত করে দেখছে। সংস্থাটি কোনো দেশের নাম উল্লেখ না করে সতর্ক করেছে যে এ সংখ্যা আরো বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নয়টি ইউরোপীয় দেশ, সেইসাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং অস্ট্রেলিয়াতে সংক্রমণ নিশ্চিত করা হয়েছে।

মাঙ্কিপক্স মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। সুইস ফেডারেল অফিস অফ পাবলিক হেলথ (এফওপিএইচ), ইসিডিসি (ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল) এবং ডব্লিউএইচওর (ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন) সঙ্গে সমন্বয় করে পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

সুইজারল্যান্ডে প্রথম মাঙ্কিপক্স শনাক্ত

 সহিদুল আলম স্বপন, সুইজারল্যান্ড থেকে 
২২ মে ২০২২, ১১:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শনিবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সুইজারল্যান্ডের ক্যান্টন বার্নে মাঙ্কিপক্সের প্রথম কেস শনাক্ত হয়েছে। ফেডারেল অফিস অব পাবলিক হেলথ (এফওপিএইচ) এক টুইট বার্তায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বর্তমানে ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকায় মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ পরিলক্ষিত হচ্ছে। সুইজারল্যান্ডের রাজধানী ক্যান্টন বার্নে প্রথম কেস ধরা পড়ার বিষয়ে হওয়া নিশ্চিত হওয়া গেছে।  

যতদূর জানা যায়, বার্ন ক্যান্টনের ওই ব্যক্তি বিদেশে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ক্যান্টন এক বিবৃতিতে বলেছে- সংক্রামিত ব্যক্তি বহির্বিভাগের রোগীদের মতো চিকিৎসা নিচ্ছেন এবং নিজ বাড়িতে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন।ঐ ব্যক্তির সাথে যোগাযোগের সকল ব্যক্তিকে কন্টাক্ট ট্রেসিংয়ের মাধ্যমে জানানো হয়েছে।

মাঙ্কিপক্স একটি বিরল ভাইরাল রোগ, যা প্রাণী থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রামিত হয়। এটি একটি বিরল ভাইরাল সংক্রমণ যা সাধারণত হালকা হয় এবং যেখান থেকে বেশিরভাগ মানুষ কয়েক সপ্তাহের মধ্যে পুনরুদ্ধার করে। মে মাসের শুরু থেকে ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মানুষের মধ্যে মাঙ্কিপক্সের একটি অস্বাভাবিক ক্লাস্টার পরিলক্ষিত হচ্ছে। সুইজারল্যান্ডের প্রতিবেশী জার্মানি এবং ফ্রান্স উভয় দেশের ক্ষেত্রেই রোগের প্রাদুর্ভাব ইতোমধ্যে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে।

জেনেভায় অবস্থিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে যে, তারা ৫০টি সন্দেহভাজন কেস তদন্ত করে দেখছে। সংস্থাটি  কোনো দেশের নাম উল্লেখ না করে সতর্ক করেছে যে এ সংখ্যা আরো বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নয়টি ইউরোপীয় দেশ, সেইসাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং অস্ট্রেলিয়াতে সংক্রমণ নিশ্চিত করা হয়েছে।

মাঙ্কিপক্স মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। সুইস ফেডারেল অফিস অফ পাবলিক হেলথ (এফওপিএইচ),  ইসিডিসি (ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল) এবং ডব্লিউএইচওর (ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন) সঙ্গে সমন্বয় করে পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।
 

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন