বিদেশি কর্মীদের জন্য সঞ্চয় প্রকল্প চালুর পরিকল্পনা মালয়েশিয়ার
jugantor
বিদেশি কর্মীদের জন্য সঞ্চয় প্রকল্প চালুর পরিকল্পনা মালয়েশিয়ার

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে  

২০ আগস্ট ২০২২, ০০:১০:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিদেশি কর্মীদের সঞ্চয় প্রকল্প চালুর পরিকল্পনা করছে মালয়েশিয়া সরকার। প্রকল্পটি চালু হলে বিদেশি কর্মীরা চাকরির মেয়াদ শেষে এককালীন সঞ্চয় নিয়ে দেশে ফিরতে পারবেন।

১৯ আগস্ট মালয়েশিয়ায় ‘বিদেশি শ্রমিকদের সমস্যা, সমাধান কী?’ ডিসকুসি মিন্ডা টিভি কর্তৃক ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ প্রফেসরস এমপিএন আয়োজিত অনুষ্ঠানে এমনটি জানিয়েছেন দেশটির মানবসম্পদ মন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারাভানান।

মন্ত্রী বলেছেন, ১০ বছর পর বিদেশি কর্মীদের (পিএলকেস) চাকরির মেয়াদ শেষে তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে অস্বীকৃতি জানানোর সমস্যাটি ছিল। কারণ তাদের সঞ্চয় ছিল না। স্কিমটি চালু হলে এ সমস্যা আর থাকবে না।

সুতরাং এ সঞ্চয় স্কিমটি বাস্তবায়িত করা দরকার, যাতে তাদের সঞ্চয় থাকে এবং শর্তটি অন্তর্ভুক্ত থাকবে সঞ্চয় কেবলমাত্র ১০ বছর পরে তাদের নিজ দেশেই তোলা যাবে।

সারাভানান বলছেন, এ স্কিমটি বাস্তবায়িত হতে সময় লাগতে পারে, কারণ আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার অধীনে জোরপূর্বক শ্রমের সূচকসহ বেশ কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করতে হবে।

এদিকে আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে দক্ষ শ্রমিকসহ বিদেশি কর্মীদের প্রবেশের ক্ষেত্রে জনশক্তি অধিদপ্তরের অনুমোদন নিতে হবে। এ নতুন পদ্ধতির বিস্তারিত মন্ত্রিসভা বৈঠকের পর পরের সপ্তাহে ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন মানবসস্পদ মন্ত্রী এম সারাভানান।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

বিদেশি কর্মীদের জন্য সঞ্চয় প্রকল্প চালুর পরিকল্পনা মালয়েশিয়ার

 আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে 
২০ আগস্ট ২০২২, ১২:১০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিদেশি কর্মীদের সঞ্চয় প্রকল্প চালুর পরিকল্পনা করছে মালয়েশিয়া সরকার। প্রকল্পটি চালু হলে বিদেশি কর্মীরা চাকরির মেয়াদ শেষে এককালীন সঞ্চয় নিয়ে দেশে ফিরতে পারবেন।

১৯ আগস্ট মালয়েশিয়ায় ‘বিদেশি শ্রমিকদের সমস্যা, সমাধান কী?’ ডিসকুসি মিন্ডা টিভি কর্তৃক ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ প্রফেসরস এমপিএন আয়োজিত অনুষ্ঠানে এমনটি জানিয়েছেন দেশটির মানবসম্পদ মন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারাভানান।

মন্ত্রী বলেছেন, ১০ বছর পর বিদেশি কর্মীদের (পিএলকেস) চাকরির মেয়াদ শেষে তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে অস্বীকৃতি জানানোর সমস্যাটি ছিল। কারণ তাদের সঞ্চয় ছিল না। স্কিমটি চালু হলে এ সমস্যা আর থাকবে না।

সুতরাং এ সঞ্চয় স্কিমটি বাস্তবায়িত করা দরকার, যাতে তাদের সঞ্চয় থাকে এবং শর্তটি অন্তর্ভুক্ত থাকবে সঞ্চয় কেবলমাত্র ১০ বছর পরে তাদের নিজ দেশেই তোলা যাবে।

সারাভানান বলছেন, এ স্কিমটি বাস্তবায়িত হতে সময় লাগতে পারে, কারণ আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার অধীনে জোরপূর্বক শ্রমের সূচকসহ বেশ কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করতে হবে।

এদিকে আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে দক্ষ শ্রমিকসহ বিদেশি কর্মীদের প্রবেশের ক্ষেত্রে জনশক্তি অধিদপ্তরের অনুমোদন নিতে হবে। এ নতুন পদ্ধতির বিস্তারিত মন্ত্রিসভা বৈঠকের পর পরের সপ্তাহে ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন মানবসস্পদ মন্ত্রী এম সারাভানান।

[প্রিয় পাঠক, যুগান্তর অনলাইনে পরবাস বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাসে আপনার কমিউনিটির নানান খবর, ভ্রমণ, আড্ডা, গল্প, স্মৃতিচারণসহ যে কোনো বিষয়ে লিখে পাঠাতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন jugantorporobash@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন