•       ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে আটক ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক মহিউদ্দিন রানাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার
যুগান্তর রিপোর্ট    |    
প্রকাশ : ২১ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
কোম্পানির দামেই বিক্রি হচ্ছে হার্টের রিং
করোনারি স্ট্যান্ট (হার্টের রিং) ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে দেশের হৃদরোগের চিকিৎসা। রিংয়ের দাম কমানোর সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বুধবার হাসপাতালে রিং সরবরাহ বন্ধ করে রোগীদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয় তারা। এ অবস্থায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নমনীয় হলে বৃহস্পতিবার পুনরায় ব্যবসায়ীরা তাদের দামেই রিং বিক্রি শুরু করে এবং রোগীদের রিং পরানো আবার শুরু হয়। জাতীয় হৃদরোগ হাসপাতালসহ সংশ্লিষ্ট হাসপাতালগুলো বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
জাতীয় হৃদরোগ হাসপাতালের একাধিক চিকিৎসক যুগান্তরকে জানান, এ দিন সকাল থেকে স্বাভাবিকভাবে হাসপাতালের পাঁচটি ক্যাথল্যাবে রোগীদের রিং পরান চিকিৎসকরা। তবে সরকারের প্রস্তাবিত দামে নয়, কোম্পানিগুলো তাদের নির্ধারিত দামেই রিং সরবরাহ করে। সরকার সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য (এমআরপি) নির্ধারণের আগে তাদের দামেই রিং কিনতে হবে- এমন শর্তে কোম্পানিগুলো রিং সরবরাহ শুরু করে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হৃদরোগ হাসপাতালের কয়েকজন চিকিৎসক বলেন, আজকের পরিস্থিতিতে এটাই প্রমাণ হল, কোম্পানিগুলোর কাছে সরকার তথা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অসহায়। সাধারণ রোগীদের রিং কোম্পানিগুলোর স্বেচ্ছাচারিতা মেনে নিতে বাধ্য করল তারা।
প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের এক সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, চারটি কোম্পানি দুই ধরনের রিং (বেয়ার মেটাল ও ড্রাগ ইলুইটিং) সর্বনিন্ম মূল্যে যথাক্রমে ২৫ হাজার ও ৫০ হাজার টাকায় বিক্রির প্রস্তাব করেছে। এ খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে বুধবার অঘোষিত ধর্মঘট পালন করে রিং সরবরাহকারী কোম্পানিগুলো। এতে ওই দিন জটিল হৃদরোগে আক্রান্ত কয়েকশ’ রোগীর শরীরে রিং পরাতে পারেননি চিকিৎসকরা।
এ প্রসঙ্গে ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের পরিচালক (চলতি দায়িত্বে) নায়ার সুলতানা যুগান্তরকে বলেন, পরিস্থিতি এখন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে। অধিদফতরের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের রিংয়ের সবোচ্চ খুচরা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্ধারিত মূল্যতালিকা আজই বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হবে এবং এই দামেই রিং বিক্রি করতে কোম্পানিগুলো বাধ্য থাকবে।






আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত