মিয়ানমারের ঊর্ধ্বতন ৭ সেনাকে সুইজারল্যান্ডের নিষেধাজ্ঞা

  যুগান্তর ডেস্ক ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ২২:১৯ | অনলাইন সংস্করণ

মায়ানমার সেনাবাহিনী
মিয়ানমার সেনাবাহিনী। ফাইল ছবি

রাখাইনে রোহিঙ্গা নিধন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সাত ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তার ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সুইজারল্যান্ড। তাদের সম্পত্তিও জব্দ করা হয়েছে।

মিয়ানমারের পত্রিকা ইরাবতি জানায়, বুধবার থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়েছে। এর আগে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) সাত সেনা কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়।

সুইজারল্যান্ড নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা সাত কর্মকর্তার নাম প্রকাশ করেনি। ইরাবতির ধারণা, ইইউ’র নিষেধাজ্ঞার তালিকায় থাকা সাত কর্মকর্তাকেই নিষিদ্ধ করেছে দেশটি। ওই কর্মকর্তারা হলেন- ডেপুটি মেজর জেনারেল অং কিয়াও জাও, মেজর জেনারেল মং মং সোয়ে, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থান উ, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং অং, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খিন মং সোয়ে, বিজেপি কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থুরা সান লুইন ও অষ্টম কমান্ডার থান্ট জিন উ।

রোহিঙ্গাদের নিয়ে মিথ্যাচারের নতুন কৌশল

রোহিঙ্গা গণহত্যা নিয়ে বারবারই মিথ্যাচার করেছে মিয়ানমার সরকার। দেশটির নেত্রী অং সান সু চি’সহ নেতাকর্মীরা বিশ্ববাসীর কাছে ডাহা মিথ্যা তথ্য তুলে ধরেছে। এবার নতুন কৌশল হাতে নিয়েছে। রাখাইনে একটি মডেল গ্রাম তুলেছে মিয়ানমার। সেখানের বাসিন্দাদের দিয়ে রোহিঙ্গা বিষয়ে মিথ্যা বক্তব্য রটাচ্ছে সরকার। সেখানে বসবাসকারী বৌদ্ধরা বলছে, ‘রাখাইনবাসীরা এখন কাঁদছে। কালাসরা (রোহিঙ্গা) আমাদের সবকিছু ছিনিয়ে নিয়েছে।’

তবে মডেল গ্রামের মুসলিম বাসিন্দা মং আমিন টেলিফোনে সিএনএন সাংবাদিকদের বলেন, ‘রাখাইনে আমাদের কারাগারের মতোই রেখেছে সরকার। এখানে কোনো স্বাধীনতা নেই। নেই শান্তি, চাকরি, শিক্ষা।’

মংডু শহরের প্রশাসক ইউ মিন্ট খাইন বলেন, ‘রাখাইনে কোনো গণহত্যা ঘটেনি। গণহত্যা ঘটলে এখানে এখনও মুসলিমরা আছে কীভাবে?’

রোহিঙ্গারাই মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে হত্যার হুমকি দিয়েছে বলেও দাবি তুলেছেন এক বৌদ্ধ। নায়ে ফু বলেন, ‘রাখাইনে সেনা অভিযানের জন্য রোহিঙ্গারাই দায়ী। তারা তাতমাদাউকে (সেনাবাহিনী) হুমকি দিয়েছিল। লাউড স্পিকার ব্যবহার করে তারা ঘোষণা দিয়েছিল, সেনাদের হত্যা করে উদযাপন করব আমরা। সেনা সদস্য ও রাখাইন জনগণকে রান্না করব।’

সাংবাদিক দেখলেই ক্ষেপে উঠছে বৌদ্ধরা

কট্টর বৌদ্ধরা রাখাইনে সাংবাদিক দেখলেই ক্ষেপে উঠছে। হ্লা তুন নামের এক বৌদ্ধ রোহিঙ্গাদের ওপর ক্ষোভ ঝেড়ে বলেন, ‘তারাই আমাদের সব লুটপাট করে পালিয়েছে। রাখাইনে কিছুই তারা ফেলে যায়নি।’

সাংবাদিকদের ওপর রাগ ঝেড়ে তিনি বলেন, ‘সবাই রোহিঙ্গাদের কথাই বলছে। কিন্তু আমাদের কথা কেউ বলছে না।’

ঘটনাপ্রবাহ : রোহিঙ্গা বর্বরতা

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter