নিজ দেশে ফিরতে এরদোগানই ভরসা!

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:৫৮ | অনলাইন সংস্করণ

এরদোগান
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান। ছবি: সংগৃহীত

যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার ৩৫ লাখ মানুষ তুরস্কে শরণার্থী হিসেবে জীবনযাপন করছেন। তারা যুদ্ধের একটি শেষ দেখতে চান। তাদের নিরাপদে দেশে ফেরাতে পারে একমাত্র তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান।

তুরস্কভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আনাদলুর এক প্রতিবেদনে শরণার্থীরা তাদের সাহায্যের কথা বলেন। সিরিয়ার কুর্দি ও আরব শরণার্থীরা তুরস্কের সাহায্যে নিজ দেশে ফেরারও স্বপ্ন দেখছেন।

তারা তুরস্কের প্রশংসা করে বলেন, তুরস্ক তাদের সব রকমের সহযোগিতা করছে। সন্ত্রাসীরা তাদের থাকার জায়গা দখল করার পর তুরস্কে শরণার্থী হিসেবে বসবাস করছেন।

সিরিয়ার সীমান্তবর্তী সানলুরফা প্রদেশের সুরুক জেলায় বিশাল টেন্ট সিটিতে শরণার্থীদের থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছে তুরস্ক। সেখানে তাদের প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। সেখানে তাল আবায়াদ, রাস আল আয়ান ও আয়ান আল আরাবের (কোবানি) কয়েক হাজার নিপীড়িত বাসিন্দা থাকছেন। তাদের ওইসব এলাকা ওয়াইপিজে/পিকেকে সন্ত্রাসী দখল করে রেখেছে।

আহমেদ সুলাইমান একজন সিরিয়ান কুর্দি শরণার্থী যিনি আয়ান আল আরাব থেকে এসেছেন। এখন টেন্ট সিটিতে থাকেন। সুলাইমান জানান, যখন আমরা তুরস্কে আসি তখন আমাদের খুব ভালো লাগছিল। তারা আমাদের খুব সাহায্য করেছে।

সোলায়মান আরও বলেন, সরকার আমাদের খুব যত্ন করেছে। যদি আমরা তুরস্কে না আসতাম তাহলে আমরা ধ্বংস হয়ে যেতাম।

তিনি আরও জানান, তার দেশকে অনেক মিস করেন। যুদ্ধের শেষ দেখার জন্য তিনি উন্মুখ।

তিনি বলেন, সন্ত্রাসীরা আমার বাড়ি ধ্বংস করে দিয়েছে। আমি আমার এলাকা সন্ত্রাসীমুক্ত দেখতে চাই। তুরস্ক আমার এলাকা সন্ত্রাসমুক্ত করে নিরাপদ ও শান্তিপূর্ণ করতে পারে।

আহদা জামাল বলেন, তিনি তার সাত সন্তানকে নিয়ে ইদলিব থেকে পালিয়ে এসেছেন। এখন সন্তানরা নিরাপদে বড় হচ্ছে। তিনি বলেন, আমার সন্তানরা আবার তুরস্কে তাদের পড়াশোনা শুরু করেছে।

জামাল বলেন, আমি যদি সিরিয়ায় থাকতাম আমার সন্তানরা মারা যেত অথবা সন্ত্রাসীগোষ্ঠী আমার সন্তানদের নিয়ে যেত আমার কাছ থেকে।

পাঁচ সন্তানের জননী আসমা আল হাদি বলেন, আমি সাত বছর ধরে তুরস্কে অবস্থান করছি।

আল হাদি বলেন, আমি একজন কুর্দি। আমার এলাকা যদি সন্ত্রাসীমুক্ত হতো এবং শান্তি ফিরে আসত, তাহলে আমরা নিজ দেশে ফিরে যেতাম।

৩০ বছরের বেশি সময় ধরে তুরস্ক সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। পিকেকে তুরস্ক, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। তাদের হাতে নারী ও শিশুসহ ৪০ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে। পিওয়াইডি/ওয়াইপিজে এটি সিরিয়ান শাখার।

তুরস্ক ৩৫ লাখেরও বেশি সিরিয়ান শরণার্থীদের জায়গা দিয়েছে, যা পৃথিবীর অন্য যে কোনো দেশের চেয়েও বেশি।

২০১১ সালে শুরু হওয়া এক বিধ্বংসী সংঘাত থেকে সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধ চলছে। যখন আসাদ সরকার অপ্রত্যাশিত হিংস্রতা বিক্ষোভকারীদের ওপর চাপিয়ে দিয়েছিল।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×